CC News

বিয়ের দাবিতে সেনা সদস্যের বাড়িতে তরুণী

 
 

রাজবাড়ী: বিয়ের দাবিতে এক সেনা সদস্যের বাড়িতে উঠেছে সুমি খাতুন (২১) নামে এক তরুণী। এ ঘটনার পর ওই তরুণীকে বিয়ের আশ্বাস দেয়া হলেও বুধবার দুপুর থেকে পলাতক রয়েছে ওই সেনা সদস্য। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে রাজবাড়ি জেলা সদরের মূলঘর ইউনিয়নের বাঘিয়া গ্রামে। ওই সেনা সদস্যের নাম শামীম মোল্লা (২৫)। সে স্থানীয় আক্কাছ মোল্লার ছেলে। বর্তমানে সে কুমিল্লা সেনা ক্যাম্পে কর্মরত আছেন বলে জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই বাড়িতে গিয়ে কথা হয় তরুণীটির সাথে। তিনি জানান, তার বাড়ি জেলা সদরের শহীদওহাবপুর ইউনিয়নের গোয়ালন্দ মোড়ে। তারা দুজন (শামীম ও তিনি) এক সাথে ২০১৫ সালে রাজবাড়ীর ডা. আবুল হোসেন কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষা দেন। সেখান থেকেই তাদের পরিচয়। এরপর শামীম তাকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তার সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। এক পর্যায়ে তাদের সেই সম্পর্ক গড়ায় দৈহিক মেলা মেশায়। শামীম তাকে ফুসলিয়ে মৌখিকভাবে কবুল বলে বিভিন্ন সময়ে তার সাথে দৈহিক মেলামেশা করে। সম্প্রতি শামীম তাকে বিয়ে করতে গড়িমসি করলে সুমি তার পরিবারকে বিষয়টি জানায়। এরপর তার পরিবারের লোকজনও শামীমের পরিবারকে জানায়। কিন্তু শামীম টালবাহানা করতে থাকে। উপায় না পেয়ে তিনি মঙ্গলবার সকালে শামীমের বাড়িতে গিয়ে উঠেন। তখন শামীমও বাড়িতে ছিল।

এঘটনার পর বুধবার সকালে তার পরিবারের লোকজন শামীমের বাড়িতে বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে আসে। কথাবার্তার এক পর্যায়ে শামীম তাকে বিয়ে করতে রাজীও হয়। কিন্তু দুপুরের পর শামীম কৌঁশলে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। এরপর থেকে তিনি ওই বাড়িতেই অবস্থান করছেন। যতক্ষণ পর্যন্ত শামীম তাকে বিয়ে না করবে ততক্ষণ পর্যন্ত তিনি ওই বাড়িতেই অবস্থান করবেন বলে ওই তরুণী জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে শামীমের বাবা আক্কাছ মোল্লা জানান, আমরা বিয়ের আয়োজনও করেছিলাম। কিন্তু দুপুরের পর থেকে শামীমকে পাওয়া যাচ্ছে না।

সুমির মা জানান, বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত শামীমের পরিবার সময় নিয়েছে। এর মধ্যে তারা শামীম ও সুমিকে বিয়ে দিবে। আর যদি বিয়ে না হয় তাহলে আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

মূলঘর ইউনিয়নের স্থানীয় ইউপি সদস্য আ. হালিম মোল্লা জানান, আমরাও শামীমের পরিবারকে বুঝিয়েছি মেয়েটিকে মেনে নাও। শামীমের সাথে বিয়ে দাও। বুধবার শামীমের বাবা আক্কাছ তাদের বিয়ে দেয়ার জন্য এলাকার লোকজনকে দাওয়াতও দিয়েছিলেন। কিন্তু পরবর্তীতে সে নিজেই শামীমকে পালিয়ে যেতে সহযোগিতা করে।

 

এ বিষয়ে সেনা সদস্য শামীম মোল্লার ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বরে একাধিক বার ফোন করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

Print Friendly, PDF & Email