CC News

চার ছড়াকারের ছড়া নিয়ে দুটি কথা

 
 

।। অাবু বকর মুহাম্মদ সালেহ ।।

ভূমিকাঃ
একটি অাদর্শ ছড়া বা কবিতা কেমন হবে? যিনি বা যারা ছড়া বা কবিতা লেখেন তাদেরকে এ প্রশ্নের উত্তর জানতেই হবে।
প্রথমেই একটা বিষয় পরিস্কার করে বলি, এ প্রশ্নের উত্তর জানতে অামাদেরকে দীর্ঘ সাধনার পথ পরিক্রমা করতে হবে। একজন ছড়াকারকে ভালো ও যোগ্য পাঠক হতেই হবে। বিশেষ করে যারা  ছড়া কবিতা সম্পর্কে এখনও  সম্মক ধারণা লাভ করতে সক্ষম হননি তাদেরকে পড়তেই হবে।
অামি ছড়াগুলোর প্রশংসাও করতে পারি অাবার সমালোচনাও করতে পারি। প্রশংসা করলে ছড়াকারদের ক্ষতি করা হবে তাই সমালোচনার পথই বেছে নিলাম।অাশাকরি ছড়াকারগণ উদারভাবে নেবেন।

অালোচনাঃ
ছড়া বা কবিতার একটা নিজস্ব ভাষা অাছে, সেই ভাষাটা জানতে পারার উপরই
নির্ভর করে ছড়া বা কবিতার সফলতা।

ছড়া বা কাব্যভাষা কী বা কেমন হয়?

অামরা বলি, কল কারখানা। শুনতে সাবলীল কানে অাসে একটা ব্যাঞ্জনা নিয়ে। কিন্তু অামরা যদি বলি কারখানা কল তবে শুনতে কেমন লাগবে ভেবে দেখুন।
একটি অাদর্শ ছড়ার নমুনা দেখুন,
” ঈদের জামা অানবে মামা
চাঁদ রাতে অাজ অাসবে সে
ঘুম অাসে না ঘুম অাসে না
নতুন জামায় হাসবে সে।
অাসলো মামা হাতের জামা
রক্ত চুয়ে পড়ছে গো
কাঁদছে মা ভাই অনেক মামাই
মোটর চাঁপায় মরছে গো।”

ছড়াটিতে লক্ষ্য করুন কোনো একটা শব্দও জোর করে সাজানো নয়।
শব্দগুলোর গাঁথুনি স্বতঃস্ফূর্ত।
এই কথাটা যারা বুঝতে পারবেন না তারা ছড়াকার হতে পারবেন না।
অামার এই অালোচনার নিরীখে সকল ছড়াকারই নিজেদের অবস্থান নির্ণয় করতে সক্ষম হবেন অাশা করি। তবুও কিছুটা অালোচনার অবতারণা করছি।”

ছড়া নিয়ে অালোচনাঃ
১.

টেনশন
জহুরুল ইসলাম
ইদানিং আমি খুব আছি টেনশনে
কবিতার ভাব তাই আসে নাতো মনে।
চাকরি ছোট বলে অবস্থা সঙ্গীন
অভাবটা লেগে থাকে পিছু রাতদিন।
এই ছড়াটিতে,
চাকরি ছোট বলে অবস্থা সঙ্গীন,  লাইনটা জোর করে লেখা।
ছোট চাকরির কারণে ছড়াকারের অবস্থা যতোটা না সঙ্গীন ছড়ার অবস্থা তার চেয়েও সঙ্গীন  হয়ে গেছে। ছড়াটিতে ” রাতদিন পর্বটিও রিদম হারিয়েছে। স্বাভাবিক হতো দিনরাত লিখলে।

২. ২য় ছড়া জাহিদুল ইসলামের, বৃষ্টি পড়ে।

“বৃষ্টি পড়ে ঘরের চালে
টাপুরটুপুর,
খুকু নাচে নূপুরপায়ে
ধুপুর ধুপুর।
বৃষ্টি পড়ে বৃক্ষশাখে
পুকুরজলে,
তাইনা দেখে খুকুর খুশি
যায় যে গলে।”
এই ছড়াটি পড়ে  বিখ্যাত ছড়া,
বৃষ্টি পড়ে তালে তালে
বৃষ্টি পড়ে টিনের চালে
এর কথা মনে পড়ে গেলো।

বৃষ্টি এলে কী  খুকুরা নূপুর পড়ে নাচে?
তাছাড়া ধাপুর ধুপুর শব্দ দু’টি তো অভিধানে নেই।নতুন শব্দ কী অাবিস্কার করার সুযোগ অাছে?
অারও অাছে, বৃক্ষ শাখে পর্বটি ছড়ার শব্দ হিসেবে চলে না। এর পরিবর্তে গাছের ডালে করলে ছড়ার উপযুক্ত ভাষা হয়।

৩.
প্রজাপতি
নাসির উদ্দিন
প্রজাপতি প্রজাপতি
কোথায় তুমি যাও?
সঙ্গী করে তোমার সাথে
আমায় নিয়ে নাও।
যাচ্ছি আমি ফুলের বাগে
মধু খেতে ভাই,
তোমাকে যে সঙ্গী করে
নেয়ার সময় নাই।

এ ছড়াটাও বিখ্যাত ছড়া,
মৌমাছি মৌমাছি
কোথা যাও নাচি নাচি’র ভাবছড়া।
(ভাবের অনুকরণে ছড়া= ভাবছড়া।)
নাসির উদ্দিনও ছড়ায় স্বতঃস্ফুর্ত শব্দ দিয়ে পর্ব গঠন করতে পারেননি।
“সঙ্গী করে তোমার সাথে
অামায় নিয়ে নাও।
এখানে অামায় নিয়ে নাও বাক্যটি শুদ্ধ হয়নি।স্বাভাবিক হতো যদি অামায় নিয়ে যাও করা হতো।যেহেতু উপরের লাইনে যাও শব্দটি একবার এসেছে তাই তার সাথে অন্তমিল ঠিক রাখতে জোর করেই নিয়ে নাও করতে হয়েছে।
অার একটি কথা বলা দরকার, সেটা হলো ছড়ায় দ্ব্যর্থবোধক শব্দ পরিহার করতে হবে।
২য় ছড়াতে জাহিদুল “গলে” শব্দটা ব্যবহার করেছেন। এ শব্দটির দু’টি অর্থ হয়।
তেমনি নাসির তার ছড়ায় ” নাও” শব্দটি ব্যবহার করেছেন। এ শব্দটিরও দু’টি অর্থ হয়।
৪.৪র্থ ছড়াটি কুতুব রাহমানের ‘ নিরব কাঁদে’
শিরোনামের নিরব কাঁদে কথাটার অর্থটা অামার বোধগম্য হলো না।
তাছাড়া তিনি লিখেছেন,

কেন বল বাঁধলে তারে
বাঁধনহারা যেই,
ভালোবেসে অবশেষে
তার যে দেখা নেই!
তার বিরহে পাথরচোখে
জলের ধারা বয়,
মাসগড়িয়ে বছর চলে
খবর কিগো লয়?
এখানে খবর কিগো লয়, লাইনটা স্বতঃস্ফুর্ত হয়নি এবং লয় শব্দটিরও দু’টি অর্থ অাছে।
অালোচনা অারও ব্যাপক করা যায় কিন্তু অামি মনে করি তার প্রয়োজন নেই।

একজন খাঁটি ছড়াকার হতে হলে অালোচনায় উল্লেখিত বিষয়গুলোর প্রতি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে। তবেই ছড়ায় সাফল্য অাসবে নয়তো যা লিখবেন তা দেখতে “ছড়ার মত” হলেও অাদপে তাকে ছড়া বলার সুযোগ নেই।
পরিশেষে সবার শুভকামনা কামনা করে অালোচনার সমাপ্তি টানছি।

Print Friendly