CC News

আসছে ২৫ বৈশাখ, সাজছে পতিসর

 
 

আত্রাই (নওগাঁ): আসছে ২৫ বৈশাখ সাজছে পতিসর। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতিধন্য নওগাঁর আত্রাইয়ের পতিসরে এখন শুধুই সাজসাজ রব। কবির কুঠিবাড়ি, দেবেন্দ্রমঞ্চ, কুঠিবাড়ি চত্বর, জেলা পরিষদের ডাকবাংলো, কবির হাতে গড়া রথীন্দ্রনাথ ইনস্টিটিউশন, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ কৃষি প্রযুক্তি ইনস্টিটিউশন, রবীন্দ্র সাহিত্য পরিষদসহ পুরো পতিসর এলাকা অন্যান্য বারের তুলনায় এবার নতুনভাবে সাজছে। যেহেতু আগামী ২৫ বৈশাখ (৮ মে) পতিসরে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৬তম জন্ম বার্ষিকী অনুষ্ঠানে মহামান্য রাষ্ট্রপতি এ্যাড. আব্দুল হামিদের পদার্পন ঘটছে। তাই স্বাভাবিকভাবেই এবারের সাজটিও অতিতকে ছাড়িয়ে যাচ্ছে। জানা যায়, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তার পিতার কালিগ্রাম পরগনা জমিদারী স্টেট দেখাশুনার জন্য সর্বপ্রথম ১৮৯৯ ইং সনে আত্রাইয়ের পতিসরে আসেন। তিনি ওই সময় থেকেই এলাকার কৃষকদের নিয়ে ভাবনায় বিভোর হন এবং কৃষকের উন্নয়নে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করেন। এসব পদক্ষেপ বাস্তবায়নে এরপর থেকে বিভিন্ন সময় তিনি বেশ কয়েকবার এই পতিসরে এসছেন। সে সময়ে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন নিভৃত পল্লী নাগরতীরের পতিসরে তিনি আত্রাইঘাট রেলওয়ে স্টেশন থেকে নৌপথে আসতেন। তার ব্যবহৃত বোটটি এখনও সংরক্ষিত রয়েছে কাছারিবাড়িতে। এলাকার জনগণের শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও কৃষিসহ সার্বিক উন্নয়নে  তার অসাধারণ অবদান রয়েছে বলেই এলাকাবাসী আজও ¯্রদ্ধাভরে স্বরণ করে এই কবিকে। সংশ্লিষ্ট ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান বিশিষ্ট রবীন্দ্র গবেষক এসএম ফারুক বখ্ত বলেন, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এলকার কৃষকদের উন্নয়নে সর্ব প্রথম এখানে কৃষি ব্যাংক স্থাপন করেন। যেখান থেকে অবহেলিত কৃষকদের কৃষিঋণের মাধ্যমে স্বাবলম্বী করার প্রয়াস তিনি পেয়েছিলেন। তিনিই প্রথম বিলাত থেকে এলাকয় কলের লাঙ্গল এনেছিলেন। এ কলের লাঙ্গল পরিচালনান প্রশিক্ষণ নিতে তার একমাত্র পুত্র রথীন্দ্রনাথকে সে সময় বিলাত পাঠিয়েছিলেন। কবির আগমন ছিল এলাকাবসীর জন্য আশির্বাদ। তরুণ রবীন্দ্র গবেষক ও রবীন্দ্র স্মৃতি সংগ্রাহক এম মতিউর রহমান মামুন বলেন, কবির আগমনে পতিসর আজ ধন্য। তারই স্মৃতি হিসেবে এখানে গড়ে উঠেছে অনেক স্থাপনা। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে থাকা কবির বিভিন্ন স্মৃতি সংগ্রহ করে পতিসরে সংরক্ষণের প্রয়াস চালাচ্ছি। ইতোমধ্যেই কবির কাছারিবাড়ি প্রত্নতত্ব অধিদপ্তরের নিয়ন্ত্রণে নেয়ায় এখানকার মান আরও বেড়েছে। আত্রাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মোখলেছুর রহমান বলেন, প্রতিবারের ন্যায় এবারও আগামী ২৫ বৈশাখ বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৬ তম জন্ম বার্ষিকী পতিসরে রাষ্ট্রীয়ভাবে উদযাপিত হবে। যেহেতু এবারের অনুষ্ঠানে মহামান্য রাষ্ট্রপতি আসছেন এ জন্য এবারের অনুষ্ঠানটি হবে অত্যন্ত প্রাণবন্ত বলে আশা করছি। এতোমধ্যেই রাষ্ট্রপতির হেলিকপ্টার অবতরণের জন্য সেখানে অস্থায়ী হেলিপ্যাড নির্মাণ করা হয়েছে। রাস্তাঘাট সংস্কার করা হচ্ছে। আমরা সব রকমের প্রস্তুতি এগিয়ে নিয়েছি।

Print Friendly