CC News

শেখ হাসিনা যে প্রকৃতিরই কন্যা

 
 

।। খুজিস্তা নূর ই নাহারিন (মুন্নি) ।।

সমুদ্র সৈকতে গিয়ে পানিতে নামবেননা তা কি হয়! আর তিনি যদি হন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা! কারণ বাইগারনদী ও কাশবন শৈশবেই তাকে মুগ্ধ করেছিলো। করেছে জোছনা ও বৃষ্টি ।তিনি যেন রাষ্ট্রনায়ক ই নন, প্রকৃতি কন্যা, মাটি ও মানুষের নেত্রী।

মানুষ প্রকৃতিরই অংশ। তাই প্রকৃতির কাছে গেলে মন ব্যাকুল হয় কাছে ডাকে। মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা যখনই সুযোগ পান মানুষের কাছে থাকতে পছন্দ করেন। মাটি আর মানুষ এই দুই নিয়েইতো জীবন।

খুব ছোটবেলা থেকে আর আট দশটা সাধারন মেয়ের মতোই তিনি খুব উচ্ছল আর প্রাণবন্ত। দুই পাশে দুটো কলা বেণী করে স্কুলে যাওয়া। স্কুলে যাওয়ার সাথে সাথে হইচৈ ছুটোছুটি করে গোল্লাছুট আর বন্দীবাসা খেলা। স্কুলের সামনের দোকানির কাছ থেকে প্রতিদিন তেঁতুল আর বাদাম কিনে খাওয়া। কিশোরী হাসিনা যেন আরও বেশী আমুদে কখনো নিজ হাতে হলুদ বাটছেন নয়তো মেহেদীর নক্সায় হাত রাঙাচ্ছেন, কখনোবা মমতা মাখা হাতে ছোট ভাই-বোনের চুল আঁচড়ে নিজ হাতে মুখে তুলে খাইয়ে দিচ্ছেন। মা বকছেন, ‘নিজের কোনো যত্ন নিস না, চুলে তেল দিস না।’ সেদিকে কোনো ভ্রুক্ষেপ নেই, আনমনে জ্যোৎস্নার সাথে আলাপন। কখনোবা ছোট ভাইদের সাথে নিয়ে আকাশের দিকে তাকিয়ে তাঁরা চেনানোর ছলে উদাস তাকিয়ে থাকা। ঝড়ের রাতে আম কুড়নো কিংবা শিলা বৃষ্টিতে বরফ লুকিয়ে মুখে পুড়ে নিশ্চুপ বসে থাকাতে অনেক বেশী আনন্দ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ শনিবার সকালে বোয়িং উড়োজাহাজ মেঘদূতে করে কক্সবাজারে যান। এরপর কক্সবাজার-টেকনাফ ৮০ কিলোমিটার দীর্ঘ মেরিন ড্রাইভ উদ্বোধন করে ইনানী সৈকতে পৌঁছান। আনুষ্ঠানিকতা সেরে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তিনি সৈকতে যান।

প্রধানমন্ত্রী

সমুদ্রের এতো কাছে এসে না দেখেই ফিরে যাবেন তা কি করে হয়! প্রকৃতি দুহিতা মাননীয় শেখ হাসিনা তাই সমুদ্রের ফেনিল শুভ্র সৌন্দর্যে পা ভিজিয়েই নিজেকে সুখী করতে চাইলেন। ইনানির বালুকা বেলায় হেঁটে হেঁটে মুক্ত বাতাসে ঘুরার আনন্দটুকু উপভোগ করতে চাইলেন। তাঁর মতো উচ্ছল প্রাণবন্ত মানুষ কেবল এতোটুকুতেই খুশী হতে পারেন না কিন্তু কিছু করার নেই দেশের সবচেয়ে গুরুত্ব পূর্ণ মানুষটিকে অনেক নিষেধের বেড়াজালে আবদ্ধ থাকতে হয়। সব সময় তা সুখপ্রদ নাও হতে পারে কিন্তু দায়িত্বের শৃঙ্খল অবজ্ঞা করে সাধ্য কি! দূর থেকে ঈর্ষাকাতুর অনেকে অনেক কথা বলেন প্রশ্ন তোলেন। কিন্তু দিবা-নিশি অক্লান্ত পরিশ্রম কেবলই দেশকে এগিয়ে নেওয়ার জন্যই তো!

দায়িত্ব আর কর্তব্যের ঘোরটোপে নিজের একান্ত ইচ্ছা-অনিচ্ছা, চাওয়া-পাওয়া, পছন্দ-অপছন্দ সব কিছুকেই দৃঢ়স্বরে না বলতে হয়। আমরা কেবল পাওয়া গুলো দেখি পাওয়ার পেছনের না পাওয়া আর আত্মত্যাগের কাহিনী সবসময় অজানাই রয়ে যায়।

একজন মেয়ে ছোট বেলা থেকে

বুঝতে বাধ্য হয়েছিল, ‘বাবা আমার একার জন্য নয় সবার জন্য।’ কারণ বেশীর ভাগ সময় বাবাকে জেলে থাকতে হতো। সব মেয়েদেরই স্বপ্ন থাকে বিয়ের সময়টাতে বাবার বুকে জড়িয়ে ধরে কাঁদবে কিন্তু কি আশ্চর্য সেই আনন্দ ঘন সময়টাতেও বাবা নেই, কারণ তিনি জেলে। ১৯৭৫ এ ১৫ই অগাস্ট সকালে বিনা মেঘে বজ্রপাতের মতো করে বিনা কারণেই সব আত্মীয় স্বজনের মৃত্যু সংবাদ।

যে বয়সটাতে মেয়েরা সুখে স্বপ্ন সাজায়, নিজের সাথে সাথে ঘরদোর, স্বামী আর সন্তানকে সাঁজায় সেই সময়টাতে সব ব্যক্তিগত সাধ-আহ্লাদ জলাঞ্জলি দিয়ে দেশ ও জনগণের স্বার্থে পথে নামতে হয়েছে। সেই ফাগুণের আগুণ সমস্ত কোমল স্বপ্নগুলো দ্রোহের আগুনে জ্বলে পুড়ে ছাই করে ফেলেছে। তখন রঙিন স্বপ্নরা আর পাখা মেলে না কারণ চারিদিকে কঠোর আগ্নেয়গিরি, শাসন, শোষণ, আর ষড়যন্ত্রের বিষবাষ্প সবসময় সতর্ক বার্তা পাঠায়।

মাঝে মাঝে একাকীত্বে গোধূলির রহস্যময়তা আনমনা করে দেয় কেবলই, মনে হয় কি যেন নেই, কি যেন হারিয়ে গেছে ।

শেখ হাসিনা একজন কোমল প্রাণ মমতাময়ী মা । কিন্তু এই মা’ তাঁর নিজের সন্তানদের কাছে রেখে মানুষ করতে অপারগ ছিলেন। তাঁর মাতৃহৃদয় যতই কাঁদুক, সন্তানদের মঙ্গল কামনায় ব্যাকুল হোক কিন্তু সন্তানদের জীবন মৃত্যু ঝুঁকিতে ফেলতে পারেন না কিছুতেই ।

এই যে এতো আলো, চারিদিকে এতো কোলাহল কিন্তু শঙ্কা আর ষড়যন্ত্র তাঁর পিছু ছাড়ছে না কিছুতেই। কঠিন প্রতিকূলতার মধ্যে দাঁড়িয়েও তাঁর দৃঢ় এবং সাহসী উচ্চারণ, ‘মৃত্যুকে মেনে নিব কিন্তু অন্যায়কে নয়।’ প্রতিমুহূর্তে মৃত্যু ঝুঁকির মধ্যে দিয়ে জীবন যাপন তবুও মুখে সদা হাসির রেস! ক্রিকেট খেলার মাঠে যেয়ে জয়ের আবেগে করতালি দিয়ে উঠেন, পরাজয়ে আবার কাঁদেন। প্রতিটি মুহূর্তে জাতি তাঁর মুখ পানে তাকিয়ে রয় আগামী সূর্যোদয়টা আরও বেশী উজ্জ্বল হবে এই আশায়।

আজ শেখ হাসিনা কেবল আর প্রধানমন্ত্রী নন, বঙ্গবন্ধু কন্যা নন, তার থেকেও বেশী কিছু। কারণ বাইগারনদী ও কাশবন শৈশবেই তাকে মুগ্ধ করেছিলো। করেছে জোছনা ও বৃষ্টি। তিনি যেন রাষ্ট্রনায়কই নন, প্রকৃতি কন্যা, মাটি ও মানুষের নেত্রী।

সমুদ্রে গেছেন অথচ পানিতে নামবেন না তা কি করে হয়! এক সময় তাঁর চোখের নোনা জল সমুদ্র জল হয়ে মিশে যেতো সাগরে। আজ সাগরের নোনা জল কিছুটা হলেও তাঁর কষ্ট মুছে দিয়ে প্রতিদানটুকু দিতে পেরেছে।

Print Friendly