CC News

রাজশাহীতে বিএনপির কর্মী সম্মেলনে সংঘর্ষ, আহত ১০

 
 

রাজশাহী: রাজশাহী মহানগর বিএনপির কর্মী সম্মেলনে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের উপস্থিতিতে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় ১০ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে ৩ জনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

সোমবার (১৫ মে) বিকেল পৌনে ৫টার দিকে নগরীর উত্তরা কমিউনিটি সেন্টারে যুবদলের দুই গ্রুপের নেতাদের মঞ্চে দাড়ানো নিয়ে তর্ক-বিতর্ক থেকে এ ঘটনা ঘটেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মহানগর যুবদলের নতুন কমিটি ও পদবঞ্চিত নেতাদের মঞ্চে দাড়ানোকে কেন্দ্র করে তর্ক-বিতর্ক শুরু হয়। একপর্যায়ে কমিউনিটি সেন্টারের মধ্যে কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে দুই গ্রুপ। পরে এ সংঘর্ষ কমিউনিটি সেন্টারের বাইরেও ছড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষ চলাকালে যুবদলের নতুন কমিটির পক্ষের নেতাকর্মীরা পদবঞ্চিত কয়েকজন কর্মীকে বাঁশ দিয়ে পিটিয়ে জখম করে। পরে পুলিশ গিয়ে লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং আহতদের উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। এ সময় পুলিশ বিএনপির এক কর্মীকে আটক করে।

সংঘর্ষের কারণে কর্মী সম্মেলন সংক্ষিপ্ত করা হয়।

এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় আওয়ামী লীগকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘প্রতিবেশী বন্ধুর কুটকৌশলে নয়, জনগণের ভোটের মাধ্যমে নির্বাচনে এসে হয় ক্ষমতায় বসুন, না হয় বিরোধী দলে বসুন।’

দেশে শেখ হাসিনার অধীনে কোনো জাতীয় নির্বাচন হবে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘যে নামেই হোক, নির্বাচনকালীন সরকারের অধীনেই জাতীয় নির্বাচন হতে হবে।’

মামলার রায় দিয়ে ১০০ আসনে বিএনপির জনপ্রিয় নেতাদের সরকার নির্বাচনের বাইরে রাখার পরিকল্পনা করছে উল্লেখ করে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘৩০০ আসনে যতো খুশি বিএনপি নেতাদের অযোগ্য করুন না কেন, খালেদা জিয়াকে অযোগ্য করার চেষ্টা করা হলে শেখ হাসিনা নিজেই অযোগ্য হয়ে যাবেন। খালেদা জিয়াকে ছাড়া দেশে কোনো নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না।’

রাজশাহী মহানগর বিএনপি সভাপতি সিটি মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের সভাপতিত্বে সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু ও রাজশাহী বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু বক্তব্য রাখেন।

সম্মেলন পরিচালনা করেন মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলন।

Print Friendly