CC News

প্রাথমিক শিক্ষা অষ্টমে উন্নীত : প্রস্তাব চূড়ান্ত করতে কমিটি

 
 

সিসি ডেস্ক: জাতীয় শিক্ষানীতি অনুযায়ী প্রাথমিক শিক্ষা অষ্টম শ্রেণিতে উন্নীত করার বিষয়ে সার্বিক বিষয় পর্যালোচনা করে প্রস্তাব চূড়ান্ত করতে একটি কমিটি গঠন করেছে সরকার।

কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিবের নেতৃত্বে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে গঠিত এ কমিটির প্রস্তাব সার-সংক্ষেপ আকারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে উপস্থাপন করা হবে। পরে তা মন্ত্রিসভার অনুমোদনের জন্য পাঠানো হবে।

সচিবালয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মো. মোস্তাফিজুর রহমানসহ দুই মন্ত্রণালয়ের সচিব ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

‘জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১০’ এ ২০১৮ সালের মধ্যে প্রাথমিক স্তর অষ্টম শ্রেণিতে উন্নীত করার কথা বলা হয়েছে।

বৈঠকে শেষে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, ‘শিক্ষানীতি বাস্তবায়নের একটা অংশ নিয়ে আমরা আলোচনা করেছি। আমরা একটা কমিটি করে দিয়েছি। কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীরের নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া কমিটিতে দুই মন্ত্রণালয়ের একজন করে অতিরিক্ত সচিব ও যুগ্ম-সচিব, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক সদস্য হিসেবে থাকবেন।’

তিনি আরো বলেছেন, ‘কমিটি সব বিষয় পর্যালোচনা করে কাজগুলো বের করে আনবে। এ কমিটি যদি বলে মন্ত্রিসভার প্রস্তাব দেন, পাস করে আনেন; আমরা সেটা করব।’

শিক্ষামন্ত্রী আরো বলেছেন, ‘প্রাথমিক শিক্ষা শুধু অষ্টম শ্রেণিতে উন্নীত করা একটা কাজ। এর সঙ্গে আরও অনেকগুলো বিষয় আছে।’

সভায় উপস্থিত একাধিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, এ কমিটিকে ‘শিক্ষানীতি-২০১০’ অনুযায়ী প্রাথমিক শিক্ষা অষ্টম শ্রেণিতে উন্নীত করতে বিদ্যমান শিক্ষক, অবকাঠামো, পাঠ্যক্রম ইত্যাদি বিবেচনা করে একটি প্রস্তাব প্রস্তুত করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সেই প্রস্তাবের সার-সংক্ষেপ প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের জন্য পাঠানো হবে। প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন পাওয়ার পর সেটি মন্ত্রিসভা বৈঠকে উপস্থাপন করা হবে।

সভায় কমিটিকে প্রাথমিকভাবে ১৫ কর্মদিবস সময় দেওয়ার কথা বলা হলেও কমিটির প্রধান জানিয়েছেন, এ সময়ের মধ্যে এ ধরণের প্রস্তাব তৈরি করা সম্ভব হবে না।

সভায় সময়ের বিষয়টি চূড়ান্ত না হলেও তা কার্যবিবরণীতে উল্লেখ থাকবে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেছেন, ‘আমাদের অনেকগুলো কাজ আমাদের এখনই করা দরকার। অনেকগুলো হচ্ছে, অনেকগুলো হবে। এখন আমরা সার্বিক বিষয়টি বিবেচনা করে পদে পদে এগোতে চাই। চলমান কাজটাকে সুনির্দিষ্ট করে আমাদের পদেক্ষপ নেওয়া দরকার।’

তিনি আরো বলেছেন, ‘কমিটি শিক্ষানীতি বাস্তবায়নে কাজ করতে থাকবেন। কমিটি করবেন এখন এটা করা উচিত আমরা বসে সেটা করব। এ ছাড়া তারা আগে বলবেন এ বিষয়টি সম্পর্কে এমন পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।’

নুরুল ইসলাম নাহিদ আরো বলেছেন, ‘কার কি দায়িত্ব, এটা কোন সময়…অনুমান করে আমরা করি। এখন নিয়মিত মনিটরিং হবে।’

গত বছরের ১৮ মে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে এক সভায় প্রাথমিক শিক্ষা অষ্টম শ্রেণিতে উন্নীতকরণের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। পঞ্চমের সমাপনী পরীক্ষাও ২০১৬ সাল থেকেই বাতিল হয়ে অষ্টম শ্রেণিতে প্রাথমিক সমাপনী হবে বল ওই বছরের ২১ জুন জানান প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান।

কিন্তু এরপর ২৭ জুন মন্ত্রিসভা ‘অষ্টম শেণিতে প্রাইমারি স্কুল সার্টিফিকেট (পিএসসি) পরীক্ষা পদ্ধতি চালুপূর্বক পঞ্চম শ্রেণি পর্যায়ে বিদ্যমান প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) পরীক্ষা পদ্ধতি বাতিল এর প্রস্তাব অনুমোদন না দিয়ে মন্ত্রিসভা তা আরো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে উপস্থাপনের নির্দেশনা দেয়। পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষা ও অষ্টম শ্রেণির জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা আগের মতো বহাল থাকবে বলে সিদ্ধান্ত দেয় দেশের সর্বোচ্চ নীতি-নির্ধারণী ফোরাম মন্ত্রিসভা।

সভায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব আসিফ-উজ-জামান, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক এস এম ওয়াহিদুজ্জামান, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক মো. আবু হেনা মোস্তফা কামালসহ দুই মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

Print Friendly