CC News

প্রাথমিকের পাঠ্যবইয়ে ছয়টি ভুলের সংশোধনী

 
 

সিসি নিউজ : চলতি বছর প্রাথমিকের পাঠ্যবইয়ে ছয়টি ভুল চিহ্নিত করে তা সংশোধন করতে বলেছে শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)। তবে মাধ্যমিকের বইয়ে কোনো ভুল খুঁজে পাওয়া যায়নি। শুদ্ধি তালিকা অনুযায়ী, প্রথম শ্রেণির আমার বাংলা বইয়ের ৫৩ পৃষ্ঠায় ‘মৌ’ এর স্থলে ‘মউ’হবে।
তৃতীয় শ্রেণির আমার বাংলা বইয়ের ৬৮ পৃষ্ঠায় কুসুমকুমারী দাশের আদর্শ ছেলে কবিতার শুদ্ধ করা হয়েছে।
তৃতীয় শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় বইয়ের দ্বিতীয় পৃষ্ঠায় ‘ঘোষনা’ বানান ‘ঘোষণা’ করা হয়েছে।
তৃতীয় শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় বইয়ের ৫৮ পৃষ্ঠায় ‘সায়েরা বেগম’ সংশোধন করে ‘সায়েরা খাতুন’ করা হয়েছে।
তৃতীয় শ্রেণির ইংরেজি ভার্সনের হিন্দুধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা বইয়ের পেছনের প্রচ্ছদে ‘Heart’ এর স্থানে ‘Hurt’ করার জন্য বলা হয়েছে।
পঞ্চম শ্রেণির আমার বাংলা বইয়ের তৃতীয় পৃষ্ঠায় ‘সমুদ’ বানান ‘সমুদ্র’ করা হয়েছে। পঞ্চম শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় বইয়ের দ্বিতীয় পৃষ্ঠায় ‘ঘোষনা’ বানানটি সংশোধন করে ‘ঘোষণা’ করা হয়েছে।
এনসিটিবির একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, মাধ্যমিকের বইয়ে কোনো ভুল পাওয়া যায়নি। এজন্য এক্ষেত্রে কোনো সংশোধনী দেওয়া হবে না। আর প্রাথমিকের ক্ষেত্রে এই ছয়টি ক্ষেত্রেই ভুল পাওয়া গেছে।
উল্লেখ্য, চলতি শিক্ষাবর্ষে মাধ্যমিক, নিম্ন মাধ্যমিক ও প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের ৩৬ কোটি ২১ লাখ ৮২ হাজার ২৮৫টি বই বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়। কয়েকটি বইয়ের ভুলত্রুটি নিয়ে জানুয়ারি মাসের শুরুতে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। তাৎক্ষণিকভাবে এ ঘটনায় এনসিটিবি’র সদস্য (অর্থ) অধ্যাপক কাজী আবুল কালামকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়। এ কমিটির তদন্তের ভিত্তিতে এনসিটিবি’র প্রধান সম্পাদক প্রীতিশ কুমার সরকার ও ঊর্ধ্বতন বিশেষজ্ঞ লানা হুমায়রা খানকে ওএসডি ও আর্টিস্ট কাম ডিজাইনার (চিত্র ও নকশাকার) সুজাউল আবেদিনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। পরে ৯ জানুয়ারি অতিরিক্ত সচিব রুহী রহমানকে প্রধান করে তদন্ত কমিটি গঠন করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এই কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে গত ৪ ও ৫ এপ্রিল এনসিটিবির আরও ৭ কর্মকর্তাকে শাস্তিমূলক বদলি করা হয়।

Print Friendly