CC News

প্লাস্টিকের চালে বাজার সয়লাব!

 
 

সিসি ডেস্ক: প্লাস্টিকের চালে বাজার সয়লাব। না চেনার কারণে প্লাষ্টিকের চাল থেকে শুরু করে ভেজাল ডিমসহ বিষাক্ত খাবার গ্রহণ করছে সাধারণ মানুষজন। চীন ও ভারত থেকে মুনাফা লোভী ব্যবসায়ীরা এসব বিষাক্ত খাবার দেশে এনে বিক্রি করছেন।

দেশের বাজারে হঠাৎ করেই বেড়ে গেছে চালের দাম। তাই লোভী ব্যবসায়ীরা অতিরিক্ত লাভের আশায় এসব প্লাস্টিক চাল আমদানি করছেন।

এই চাল দেখতে স্বাভাবিক মনে হলেও এতে রয়েছে অসাস্থ্যকর উপাদান। যা মানুষের শরীরের জন্য ভীষণ ক্ষতিকর। আর সব থেকে ভযঙ্কর বিষয় হল এর দাম কম হওয়ায় সাধারণ ক্রেতারা দ্রুত তা কিনে প্রতারিত হচ্ছেন। ফলে অজান্তেই মৃত্যু থাবা বসাচ্ছে তাদের সুস্থ জীবনে।

আধুনিক প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে বিষাক্ত প্লাস্টিক দিয়ে তৈরি করা হয় এই চাল। দেখতে একেবারে সাধারণ চালের মতো হয়। আর রান্না করার পর অনেকটা বাসমতি চালের মতো দেখতে।

তাই তো সরু চাল কম দামে অনেকে কিনে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন। রান্নাঘর ভরিয়ে তুলছেন প্লাস্টিক চালে। খেয়ালও রাখেন না যে, চালের পরিবর্তে তারা দিনের পর দিন মৃত্যুকে ডেকে আনছেন।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, প্লাস্টিক চাল দীর্ঘদিন ধরে খেলে ক্যান্সার, হজমের রোগ, মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা কমে যাওয়াসহ বিভিন্ন রোগ দেখা দিতে পারে।

প্লাস্টিকের চাল চেনার উপায়:

১. প্লাস্টিকের চাল রান্না করার সময় অনেকক্ষণ পর্যন্ত শক্ত থাকে, যা সাধারণ চালের ক্ষেত্রে লক্ষ্য করা যায় না।

২. এক গ্লাস পানি নিয়ে তাতে অল্প করে চাল মিশিয়ে ভালো করে নাড়ুন। যদি দেখেন চালটা পানির ওপরে ভাসছে, তাহলে বুঝবেন এটা প্লাস্টিক চাল।

৩. অল্প করে চাল নিয়ে তাতে আগুন লাগিয়ে দিন। যদি দেখেন আগুন লাগানোর পর প্লাস্টিকের গন্ধ বের হচ্ছে, তাহলে ধরে নিবেন এ চাল প্লাষ্টিকের। যা আপনার শরীরে খাদ্যের বদলে বিষ প্রয়োগ করছেন।

৪. আগুন দেয়ার পর যদি দেখেন চাল গলে গেছে তাহলে সেটা বিষাক্ত প্লাস্টিক চাল বলেই ধরে নিতে পারেন।

প্রেস্টিসাইড (এক ধরনের বিষ যা ব্যবহৃত খাবার) উৎপাদনে চীন হল বিশ্বের এক নম্বরে। তাই তো সেদেশে উৎপাদিত প্রায় সব খাবারেই কেমিক্যালের পরিমাণ খুব বেশি থাকে। আর এসব কেমিক্যাল আমাদের শরীরে ঢুকলে অসুস্থ হয়ে পরার আশঙ্কা বৃদ্ধি পায়।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা সাবধান করে জানিয়েছেন, এই প্লাস্টেকের চাল কিন্তু শরীরের পক্ষে মোটেও সুখের নয়। নিয়মিত খেলে প্রাণসংশয় হতে পারে।

Print Friendly