CC News

ডিমলা ও ডোমারে বজ্রপাতে আহত ১৮

 
 

সিসি নিউজ: নীলফামারী ডিমলা ও ডোমার উপজেলায় বজ্রপাতে একই পরিবারের তিনজনসহ ১৮ জন আহত হয়েছেন। আহতদের উদ্ধার করে ডিমলা ও ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। আজ রবিবার বিকাল চারটার পর হটাৎ বৃষ্টিরসাথে বজ্রপাতে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ওই আহতের ঘটনা ঘটে।
ডিমলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্র জানায়, বিকাল সাড়ে চারটার পর থেকে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে বজ্রপাতে আহত রোগীরা আসতে শুরু করে। এসময় হাসপাতালে ১৪জনকে ভর্তি করা হয়।

এলাকাবাসী জানায়, বিকাল চারটার পর হালকা বৃষ্টিরসাথে বজ্রপাট ঘটে। এসময় বিভিন্ন স্থানে আশ্রয় নেওয়া লোকজন বজ্রপাতে আহত হয়। আহতদের স্থানীয়রা উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করায়।
ওই আহতদের মধ্যে রয়েছেন বালাপাড়া ইউনিয়নের দক্ষিণ সুন্দরখাতা গ্রামের একই পরিবারের আম্বু মামুদ (৪৮), তার স্ত্রী বিউটি আক্তার (৪২), ছেলে আজাদ (১৭)।
অপর আহতরা হলেন, উত্তর তিতপাড়া গ্রামের ফজলুর রহমানের মেয়ে সাহিদা (২৭), দক্ষিণ সুন্দরখাতা গ্রামের মজনু মিয়ার স্ত্রী সুফিয়া বেগম (২৫), আব্দুল হামিদের স্ত্রী রিপা বেগম (৩৬), মানিকের স্ত্রী মৌসুমী (২৫), গোলাম মোস্তফার ছেলে রাকিব হোসেন (৭), বাবুরহাট গ্রামের মমিনুর রহমানের ছেলে আলিব হোসেন (৬), বিদ্যা রায়ের ছেলে উদাল রায় (৩৫), হরি গোপালের ছেলে বাবুল চন্দ্র রায় (৩০), দুলাল ইসলামের স্ত্রী মজিদা বেগম (৪৫), সরদার হাট গ্রামের আব্দুর সাত্তারে মেয়ে মৌসুমী (১৭), রমজান আলীর স্ত্রী আর্জিনা বেগম (৩৫)।
ডিমলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক মমতা বেগম বলেন, আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা প্রদান করা হচ্ছে। ১৪জনের মধ্যে পাঁচ জনের অবস্থা গুরুত্বর।

এদিকে একই সময়ে ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বজ্রপাতে আহত হয়ে চার জনের ভর্তি হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এরা হলো মৌজাপাঙ্গা গ্রামের আবুল কালামের স্ত্রী বেবীনা (২৫), বামুনিয়া বারোবিশা গ্রামের সপন মিয়ার স্ত্রী কোহিনুর (২৫), পাঙ্গা মুছার মোড় গ্রামের আলী হোসেনের স্ত্রী শিল্পী বেগম (২৫) ও খোকসার ঘাট গ্রামের আবুল হোসেনের মেয়ে সালমা বেগম(১৮)।
ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জরুরীর বিভাগের ডাঃ রায়হান বারী জানান, বজ্রপাতে আহত হয়ে এখানে ১০ জনকে ভর্তি করা হয়। এদের মধ্যে ৬ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেয়া হলেও চারজনকে ভর্তি করা হয়েছে।

Print Friendly