CC News

যেমন হবে ঈদের সাজ

 
 

সিসি ডেস্ক: ইতিমধ্যে ঈদের সব কেনকাটা শেষ। এবার নজর সাজসজ্জার দিকে। ঈদের দিনটিতে সেরা পোশাকে নিজেকে সুন্দর দেখাক, এই আকাঙ্ক্ষা সব নারীর। তাই ঈদের দিনটিতে কোন পোশাকে কেমন সাজবেন তা নিয়ে অনেকেরই চিন্তার শেষ নেই। তাদের জন্যই আজকের প্রতিবেদন। তাই আর দেরি না করে জেনে নিন আপনার ঈদের সাজটা কেমন হবে।

সাজসজ্জারর প্রথম কথাই হচ্ছে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা। ঈদের সাজসজ্জার ক্ষেত্রে সবার আগে যেটা মনে রাখতে হবে, সেটা হলো আপনার ত্বক পরিষ্কার রাখা। এজন্য ঈদের একদিন আগেই ফেসিয়াল করে নিন। সতেজ থাকতে চাইলে ঈদের দিন সাজের আগে আপনার ত্বকে এক টুকরো বরফ ঘষে নিন।

ঈদের সাজে বেজটা কেমন হবে
ঈদে ন্যাচারাল মেকআপই ভালো লাগবে, দিনের বেলায় ময়েশ্চারাইজার লাগানোর পর কমপ্যাক্ট পাউডার লাগিয়ে নিন। এছাড়া টিনটেড ফাউন্ডেশনও লাগাতে পারেন। এক্ষেত্রে ন্যাচারাল লুক বজায় থাকবে। রাতের বেলা বা বিকেলের সাজে ফাউন্ডেশন ব্যবহার করলে লিক্যুইড বা ক্রিম ওয়াটার বেজড ফাউন্ডেশন কপাল, নাক, পুরো মুখ ও গলায় লাগিয়ে ভেজা স্পঞ্জ দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। ত্বকে যদি দাগ থাকে, সে ক্ষেত্রে প্রথমে কনসিলার বা ত্বকের রঙের চেয়ে এক শেড হালকা ফাউন্ডেশন দাগগুলোর ওপর দিয়ে আঙুলের সাহায্যে মিলিয়ে নিন। তারপর কমপ্যাক্ট পাউডার এবং ফাউন্ডেশন ব্যবহার করতে পারেন।

চোখ আকর্ষণীয় করে তুলতে
আপনার চোখকে আকর্ষণীয় করে তুলতে ব্যবহার করতে পারেন কন্ট্যাক্ট লেন্স। বাদামি পেন্সিল বা আইশ্যাডো দিয়ে ভ্রূটা সুন্দর করে এঁকে নিন। দিনে সাজের ক্ষেত্রে হালকা রঙের আইশ্যাডো দিতে পারেন আপনার চোখে। যেমন- ব্রোঞ্জ, গোলাপি, লালচে, সোনালি। রাতের সাজে চলতে পারে আপনার পোশাকের সাথে মানানসই যেকোনো আইশ্যাডো। কাজল দিয়ে পুরো চোখটা এঁকে নিন। চোখ বড় ও আকর্ষণীয় দেখাতে এক কোট মাশকারা লাগান। চোখের সাজ সম্পন্ন করুন চোখকে হাইলাইট করার মাধ্যমে। কাজল হালকা করে আঙুল দিয়ে ঘষে নিন।

ব্লাশন
ব্লাশনটা যেন ভালোভাবে ব্লেন্ড হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। দিনের সাজে ব্লাশনটা অবশ্যই হালকা হওয়া চাই। শুধু গালে একটা রক্তাভ আভা ছড়ানোর জন্য। আপনি যদি ফর্সা হয়ে থাকেন, তবে হালকা গোলাপি বা পিচ এবং আপনার গায়ের রং যদি একটু গাঢ় হয়ে থাকে, সেক্ষেত্রে ব্রোঞ্জ বাদামি, কমলা বা একটু গাঢ় গোলাপি রং ব্যবহার করতে পারেন। ব্লাশনের বদলে গোলাপি, পিচ বা ব্রোঞ্জ শিমার পাউডার ব্যবহার করতে পারেন রাতের সাজের ক্ষেত্রে।

লিপস্টিক
দিনের সাজের সঙ্গে হালকা লিপস্টিকই ভালো। চোখকে হাইলাইট করতে চাইলে ঠোঁট হালকা রাখুন। গোলাপী, মড, পিচ, পিংক ও বাদামি রঙের লিপস্টিক ব্যবহার করে ওপরে গ্লস লাগাতে পারেন। অথবা ঠোঁটে শুধু গোলাপি লালচে ও চকলেট লিপগ্লস লাগাতে পারেন।

চুল
চুল আপনার সাজের একটি বড় অংশ। ঈদের এক সপ্তাহ আগে চুল কাটুন, ঈদের আগের দিন অবশ্যই চুলে শ্যাম্পু-কন্ডিশনিং করে রাখবেন। বাইরে বের হলে চুল যদি বড় হয়, তবে হাত খোঁপা করে সাইডে ফুল দিতে পারেন। মাঝারি ও ছোট চুল ব্লো-ড্রাই বা আয়রন করে নিতে পারেন। আয়রন বা কার্লিং আয়রন দিয়ে কার্লিং লুক দিতে পারেন। অথবা সামনের অংশের চুল হালকা পাফ করে ফুলিয়ে পেছনে ক্লিপ বেঁধে বাকি চুল খোলা রাখতে পারেন।

হাত ও পায়ের দিকে নজর দিন
আপনার ঈদের দিনের সাজসজ্জায় আপনার হাত-পা যেন বাদ না পড়ে। ঈদের আগেই ম্যানিকিউর ও প্যাডিকিউর করে সুন্দরভাবে নখ ফাইলিং করে রাখুন। মেহেদি ঈদের অবিচ্ছেদ্য অংশ। সুন্দর ডিজাইন করে মেহেদি লাগিয়ে নিন ঈদের আগের রাতেই। নখে দিতে পারেন ম্যাচিং কালার নেলপলিশ অথবা আপনার নখগুলোকে আকর্ষণীয় করে তুলতে করতে পারেন নেল আর্ট।

পোশাক
দিনের পোশাক একটু হালকা হলেই ভালো। যদিও গরম তেমন নেই, তবুও দিনের আলোয় হলুদ, সবুজ, সাদা, নীল, ফিরোজা, গোলাপি, পিচ প্রাধান্য পায়। রাতে অপেক্ষাকৃত গাঢ় রঙই ভালো লাগবে।

গয়না নির্বাচন
দিনের সাজে হালকা গয়না মানানসই। সালোয়ার-কামিজ ও ফতুয়ার সাথে চেইনের সঙ্গে হালকা ধরনের পাথরের সেট, সঙ্গে কানে ছোট দুল পরতে পারেন। কানে ছোট চুলের সাথে গলায় লম্বা ধরনের মালাও পরতে পারেন। কানের দুলটা যদি ভারী পরেন তবে গলায় কিছু না পরাই ভালো।

সুগন্ধি
সবশেষে সাজের পরিপূর্ণতা আনতে হালকা সুগন্ধি ব্যবহার করুন।

Print Friendly, PDF & Email