CC News

গৃহবধূকে ধর্ষণের স্বীকারোক্তি ছাত্রলীগ নেতার

 
 

বরিশাল: বরিশালের বানারীপাড়ায় স্বামীকে আটকে রেখে গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনা স্বীকার করেছেন এ মামলার প্রধান আসামি ও উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সুমন হোসেন মোল্লা। রোববার রাতে গ্রেফতারের পর পুলিশের কাছে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন তিনি।
সোমবার বরিশালের আমলি আদালতের বিচারক মো. সিহাবুল ইসলাম সুমন মোল্লার জবানবন্দি রেকর্ড করে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। অপরদিকে ওই গৃহবধূকে ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করার পাশাপশি আদালতে জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়েছে।

এর আগে রোববার বিকেলে গৃহবধূর স্বামী ছাত্রলীগ নেতা সুমন ও তার সহযোগী মামুনসহ অজ্ঞাতনামা আরো দুজনকে আসামি করে মামলা করেন।
মামলার এজাহারে পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ওই গৃহবধূ নোয়াখালী জেলার বাসিন্দা। চট্টগ্রামে কাজ করার সুবাদের বানারীপাড়া বেতাল গ্রামের এক অটোচালকের সাথে তার পরিচয় হয়। পরিচয়ের সূত্র ধরেই প্রেমের সম্পর্ক এবং পরে দুজন বিয়ে করেন। এটা তার দ্বিতীয় বিয়ে। তাই স্বামীর বাড়িতে না উঠে ৭-৮ দিন আগে একই গ্রামে স্বামীর নানার বাড়িতে ওঠেন। ঘটনার দিন রাতে খবর পেয়ে সুমন মোল্লা এবং তার সহযোগীরা ওই বাড়িতে গিয়ে মেয়েটি ও তার স্বামীকে ধরে নিয়ে যান। এ সময়ে ওই দম্পতির কাছে চাঁদা দাবি করা হয় বলে অভিযোগ ওঠে।
পরে গৃহবধূকে পাশের একটি বাড়িতে নিয়ে ধর্ষণ করা হয় বলে অভিযোগ করেন ধর্ষিতা। এ সময়ে তার স্বামীকে তার অন্যত্র আটকে রাখা হয় বলেও এজাহারে উল্লেখ করেন।
বানারীপাড়া থানার ওসি সাজ্জাত হোসেন বলেন, “স্থানীয় চেয়ারম্যানের মাধ্যমে খবর পেয়ে সকাল ১১টার দিকে ঘটনাস্থলে গিয়ে ভিকটিম ও তার স্বামীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়। পরবর্তীতে ওই গৃহবধূ বাদী হয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সুমন মোল্লার বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও ধর্ষণে সহযোগীতা করায় অজ্ঞাতনামা আরো ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। ভিকটিমের শারীরিক পরীক্ষার জন্য আদালতের মাধ্যমে শেরে বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।”

Print Friendly