CC News

নীলফামারীতে চাহিদার প্রায় ১৭হাজার মেট্রিক টন মাছের ঘাটতি

 
 

বিশেষ প্রতিনিধি: প্রায় ১৭হাজার মেট্রিক টন ঘাটতি নিয়ে নীলফামারীতে শুরু হয়েছে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ। ৩৩ হাজারেরও বেশি মেট্রিক টন মাছের চাহিদা থাকলেও উৎপাদন হচ্ছে ১৬ হাজার ১৩৪ মেট্রিক টন।
তবে ঘাটতি হওয়ার পেছনে কারণ হিসেবে মৎস্য বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন খাল, বিল, জলাশয় কমে যাওয়া এবং পানি না থাকায় উৎপাদন বাড়ছে না মাছের।
মঙ্গলবার দুপুরে (১৮জুলাই) জেলা মৎস্য অধিদপ্তর নীলফামারীর সম্মেলন কক্ষে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, জেলায় ৩৫৫১৯টি পুকুর, খাল ১৩টি, বিল ২১টি এবং ১০টি নদী রয়েছে। জানানো হয় সরকারী মৎস্য খামার ২টি, ব্যক্তি মালিকানাধীন হ্যাচারী ১০টি, নিবন্ধিত সমবায় সমিতি ৪৫টি এবং মৎস্যজীবীর সংখ্যা ৬৬৪৫ জন ও পোনা মাছের ব্যবসা করেন ৯৩৯ জন।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত থাকা মৎস্য চাষী মিজানুর রহমান বাদল বলেন, নীলফামারীর বাজারে মাছের বাজার দখল করে হাওরাঞ্চলের মাছ। কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ওদিকে মাছের চাষ হয় অনেক বেশি। তারা আমাদের এদিকে পাইকারী বিক্রি করে থাকেন। তবে নীলফামারীতেও মাছ চাষ বাড়ছে মন্তব্য করেন তিনি। অনেক শিক্ষিত বেকার যুবকরাও মাছ চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছেন দিন দিন।
জেলা মৎস্য কর্মকর্তা হাসান ফেরদৌস সরকার জানান, নীলফামারীতে তুলনামুলক হারে পানি নেই। যার কারণে মাছের চাষ হচ্ছে না সেরকম ভাবে।
তিনি বলেন, খাল বিল, জলাশয়ে পানি না থাকায় মাছের অভাব দেখা দিচ্ছে তবে নীলফামারীতে অনেক মানুষ আমিষের চাহিদা পূরণে মাছ চাষের দিকে ঝুঁকছেন। সরকারী ভাবে আমরা প্রয়োজনীয় উদ্যোগ এবং প্রকল্পের মাধ্যমে মাছ চাষ সম্প্রসারণে অগ্রসর হচ্ছি।
এদিকে এবারের জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে নীলফামারী সাতদিন ব্যাপী নানান কর্মসুচী গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে। মিডিয়া কর্মীদের সাথে অবহিত করণ সভার মাধ্যমে শুরু হওয়া সপ্তাহের কর্মসুচীর মধ্যে রয়েছে বুধবার আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধনী পর্ব এছাড়াও অন্যান্য দিনের কর্মসুচীর মধ্যে রয়েছে মাছের
পোনা অবমুুক্ত করণ, আলোচনা সভা, সফল মৎস্য চাষীদের পুরস্কার বিতরণ, প্রামাণ্য চিত্র, মৎস্য আইন বাস্তবায়নে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা প্রভৃতি।
সংবাদ সম্মেলনে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা হাসান ফেরদৌস সরকার ছাড়াও নীলফামারী সদর উপজেলার খামার ব্যবস্থাপক খায়রুল আলম ও সৈয়দপুর উপজেলা খামার ব্যবস্থাপক তপন কুমার দাস উপস্থিত ছিলেন।

Print Friendly, PDF & Email