CC News

একজন ছাত্রলীগ কর্মীর আবেদন

 
 

বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া সংগঠন ‘বাংলাদেশ ছাত্রলীগ’-এর বর্তমান দায়িত্ব পালনকারী আমার বা আমাদের সবার প্রিয় শ্রদ্ধেয় সাইফুর রহমান সোহাগ ও এস এম জাকির হোসেন ভাই, আপনাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

আপনারা সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক দুই জন মিলে বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া এই সংগঠনকে কলঙ্কমুক্ত করতে বিবাহিত ও চাকুরীজীবিদের জন্য ৭২ ঘন্টার আল্টিমেটাম দিয়েছিলেন। আর সেই আল্টিমেটামে সারা বাংলাদেশের লক্ষ লক্ষ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা আশার আলো ফিরে পাবার আকাঙ্খা করেছিল। কিন্তু এতদিনেও তার কোনো সুষ্ঠ সমাধান পাওয়া যায়নি। বিভিন্ন গনমাধ্যমেও বিবাহিত ও চাকুরীজীবীদের নাম উঠে এসেছে।

ভাই, আমাদের মতন নেতাকর্মীর ভালবাসার মধ্য দিয়েই আপনারা সারা বাংলার ছাত্রসমাজের নয়নের মনি হয়েছেন। সংগঠনের ভালমন্দ অবশ্যই আপনারা দুইজনে আমাদের চেয়ে অনেক ভাল বোঝেন। কিন্তু এটাও ঠিক যে, আমরাও প্রাণের সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগকে ভালবাসি।

ভাই, বঙ্গবন্ধুকন্যা, জননেত্রী শেখ হাসিনার আদেশ-নিষেধ আপনাদের মতন আমাদের কাছেও দৈব বাণীর মতন। আমরাও আমাদের প্রাণপ্রিয় নেত্রীকে ভালবাসি। ভাই আজকের পর থেকে এই ব্যপারগুলো নিয়ে আপনাদের নিকট আর কখনো উপস্থাপন করব না। কারণ, উপস্থাপন করলে আমরা অবিবাহিত অথবা চাকুরীজীবী না হয়েও কুচক্রী মহলে পরিণত হব।

তবে একটি কথা বলতে চাই, এরা আপনাদের সামনে গিয়ে হয়তো শুধু লোক দেখানো সালামটাই দেই। ভালবাসার সালামটি দেয় না। কারণ, আপনাদেরকে ভালবাসলে আপনাদের আদেশকে অমান্য করতে পারত না। এমনকি তারা এটাও বলে, কি করে দেখে নিব। বউকে অনায়াসে বোন বানিয়ে দেয়।

ভাই, এতদিন জেনে এসেছি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নাকি মেধাবী ছাত্ররা পড়াশোনা করে এবং মেধাবী রাজনীতিবীদদের সৃষ্টি হয়। তাহলে আমার প্রশ্ন হল, রাজনীতিতে মেধাবী কারা? ভাই যারা গালি দেয় তারা হয় তো আপনাদের দেয় না, কিন্তু আমাদের লাগে।

ভাই, আপনাদের দুজনের নিকট বাংলাদেশ ছাত্রলীগের একজন কর্মী হিসেবে আমার আকুল আবেদন এই যে, নিজেদের ভিতর বিতর্ক সৃষ্টি না করে বিতর্কিত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অতি দ্রুত যথাযথ ব্যবস্থা নিবেন আশা করি। এতে করে আপনারা দুইজন ছোট হবেন না বরং সারা বাংলার ছাত্রসমাজের হৃদয়ের মনিকোঠায় স্থান পাবেন। কারণ, কোনো চোর যদি সাধু ব্যক্তির সামনে বড় বড় কথা বলে তাহলে সাধু ব্যক্তিটির কি অবস্থা হতে পারে?

বিশেষ দ্রষ্টব্য : উপরোক্ত বিষয়াবলীর সমাধান যদি আপনারা দুজনে না পারেন তাহলে আমাদেরকে বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে নিয়ে চলেন। কথা দিচ্ছি আর কেউ না করলেও আমি আহসান হাবীব রানা, সহ-সভাপতি, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ থেকে আপনাদের মাধ্যমে আশা-ভরসার শেষ ঠিকানা জননেত্রী শেখ হাসিনার নিকট পদত্যাগ পত্র জমা দিব। আপনাদের মনে কষ্ট দিয়ে থাকলে আমাকে শেষবারের মতন ক্ষমা করে দিয়েন।

 

আহসান হাবীব রান‌ার ফেসবুক থে‌কে

Print Friendly, PDF & Email