CC News

চেতনানাশক ওষুধ খাইয়ে কলেজছাত্রীকে দলবেঁধে ‘ধর্ষণ’

 
 

সিসি ডেস্ক: মাদারীপুরের কালকিনিতে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে চেতনানাশক ওষুধ খাইয়ে এক কলেজছাত্রীকে দলবেঁধে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। ওই ছাত্রীকে গুরুতর আহত অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। ওই ছাত্রীর বাড়ি গৌরনদী উপজেলার খাঞ্জাপুর এলাকায়। এ ঘটনায় ধর্ষণের মূল হোতার বাবা-মাকে আটক করেছে পুলিশ। শনিবার বিকালে এ ঘটনাটি ঘটে।

এলাকা ও পুলিশ জানায়, গৌরনদী সরকারি কলেজের এইচএসসির প্রথম বর্ষের ছাত্রীর সাথে খাঞ্জাপুর গ্রামের রাজ্জাক আকনের ছেলে রিফাত আকনের দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিল। এর সূত্র ধরে রিফাত বিয়ের প্রলোভন দিয়ে ওই ছাত্রীকে কালকিনি উপজেলার কাজীবাকাই এলাকার মাইজপাড়া গ্রামের একটি নির্জন বাগানে বেড়াতে নিয়ে যায়। এসময় তাকে চেতনানাশক ওষুধ খাইয়ে রিফাত আকনসহ তার ৪-৫ বন্ধু মিলে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এতে করে ওই ছাত্রী পুরোপুরো অসুস্থ হয়ে পড়লে রিফাত আকন কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ওই ছাত্রীকে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। পরে রিফাত আকনের বাবা রাজ্জাক আকন ও তার মা রেহেনা বেগম ঘটনা জানতে হাসপাতালে আসলে পুলিশ তাদের আটক করে।

কালকিনি হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. খায়রুল আলম মোল্লা বলেন, অসুস্থ অবস্থায় এক কলেজ ছাত্রীকে ভর্তি করা হয়েছে। তার চিকিৎসা চলছে। মেডিকেল পরীক্ষার পরে বিস্তারিত বলা যাবে।

কালকিনি থানার এএসআই মো. শাহআলম বলেন, কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় রিফাত আকনকে না পেয়ে তার বাবা-মাকে আটক করেছি।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুমন দেব বলেন, অসুস্থ অবস্থায় এক কলেজছাত্রীকে কালকিনি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ওই ছাত্রী অসুস্থ থাকায় কথা বলতে পারছে না। আমরা তদন্তের পরে বিস্তারিত জানাতে পারব।

Print Friendly, PDF & Email