CC News

দিনাজপুরে গৃহবধূর যৌনাঙ্গে মরিচের গুড়া ছিটিয়ে নির্যাতন

 
 

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: দিনাজপুর সদরের পল্লীতে স্বামী ও তাঁর স্বজনরা মিলে সালমা (৩৫) নামে তিন সন্তানের জননী এক গৃহবধূকে অমানুষিক নির্যাতন করেছে। শুধু এখানেই ক্ষান্ত হয়নি, শারিরিক নির্যাতন করে যৌনাঙ্গসহ শরীরের অন্যান্য স্থানে মরিচের গুড়া ছিটিয়ে অজ্ঞান অবস্থায় রাস্তার পাশে পানিতে ফেলে দিয়েছে মর্মে অভিযোগ করেছে গৃহবধূর বোন ও ছেলে।
বুধবার (৯ জুলাই) সকাল আনুমানিক ৭টার দিকে দিনাজপুর সদর উপজেলার আউলিয়াপুর ইউনিয়নের তরিমপুর গ্রামে এই লোমহর্ষক ঘটনা ঘটে। মুমুর্ষূ অবস্থায় গৃহবধূকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
গৃহবধূ সালমার স্বজনরা জানায়, সালমার স্বামী মো. সিরাজুল ইসলাম নিজের বোনের সাথে শারিরিক অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। স্ত্রী ঘটনা জানার পর তাতে বাধা দিলে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কথা-কাটাকাটি ও ঝগড়া বিবাদের সূত্রপাত হয়। এ নিয়ে পারিবারিকভাবে অনেক দেন-দরবার হলেও ভাই-বোনের অবৈধ সম্পর্ক অব্যাহত থাকে।
কয়েক মাস আগে এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া ও কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে স্বামী সিরাজুল ইসলাম স্ত্রী সালমাকে আঘাত করলে স্ত্রী সালমার মাথা ফেটে যায়। এ ঘটনার পর স্ত্রী স্বামীর বিরুদ্ধে দিনাজপুর অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা করেন। যা বর্তমানে চলমান রয়েছে।
মামলার পর স্বামী সিরাজুল ইসলাম ও তার স্বজনরা আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। স্বামীর স্বজনরা সালমাকে মামলা তুলে নেয়ার জন্য চাপ ও নানান হুমকি দিয়ে আসছিল। মামলা তুলে না নেয়ায় স্বামী সিরাজুল স্ত্রী সামলাকে এক তরফা তালাকও দিয়ে দেয়। কিছুদিন পর সিরাজুল ইসলাম ভুল স্বীকার করে স্ত্রীকে আবারো ঘরে ফিরিয়ে নিতে রাজি হয়। স্বামীর কথায় সন্তানদের দিকে তাকিয়ে এক পর্যায়ে স্ত্রী মামলাও তুলে নিতে রাজি হয়। সালমা তাঁর দুই ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে স্বামীর বাড়ীতেই অবস্থান করে। কিন্তু আইনি প্রক্রিয়ার কারণে মামলা তুলে নিতে দেরী হওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে সিরাজুল ইসলাম ও তার স্বজনরা।
এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার (৯ জুলাই) সকাল আনুমানিক ৭টার দিকে গৃহবধু সালমার স্বামী মো. সিরাজুল ইসলাম, তার দুই ভাই খায়রুল ইসলাম ও শফিকুল ইসলাম, তিন বোনের জামাই আলাল, দুলাল ও অতিয়ার, তিন বোন লাইলী, লাইজু ও বেলী মিলে সালমাকে শারিরিক নির্যাতন করলে অজ্ঞান হয়ে যায়। এ সময় পাষন্ডরা সালমার যৌনাঙ্গসহ শরিরের অন্যান্য স্থানে মরিচের গুড়া ছিটিয়ে বাড়ীর পাশে রাস্তার কাছে পানিতে ফেলে দেয়।
প্রতিবেশীদের মাধ্যমে খবর পেয়ে আউলিয়াপুর ইউপি সদস্যা সাবিনা ইয়াসমিন স্থানীয় লোকদের সহায়তায় মুমুর্ষূ অবস্থায় গৃহবধূ সালমাকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে দিনাজপুর আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। বর্তমান তাঁর অবস্থা সংকটাপন্ন বলে জানিয়েছেন কর্বব্যরত চিকিৎসক।
এদিকে সালমার বড় ছেলে শাহিন আলম তাঁর মাকে নির্যাতনকারী পিতা সিরাজুল ইসলামসহ দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়ে। এছাড়া ইউপি সদস্য সাবিনা ইয়াসমিনসহ সালমার স্বজনরাও এই লোমহর্ষক ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করেছেন।
আউলিয়াপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. আব্দুর রাজ্জাক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, গৃহবধূ সালমার স্বজনদের পক্ষ থেকে স্বামী সিরাজুল ইসলামসহ এ ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email