CC News

পোল্ট্রি খাদ্যে আলু ব্যবহারে সাফল্য

 
 

প্রযুক্তি ডেস্ক: পোল্ট্রি খাদ্যে আলু ব্যবহারে সফলতা পেয়েছেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএইউ) পোল্ট্রি বিজ্ঞান বিভাগের গবেষক প্রফেসর ড. ফৌজিয়া সুলতানা। তিন বছরেরও বেশি সময় তিনি পোল্ট্রি খাদ্যে আলুর ব্যবহার শীর্ষক গবেষণা করে আসছেন।

দেশে আলুর অপচয় রোধ করার পাশাপাশি পোল্ট্রি শিল্পের উৎপাদন খরচ ১০ শতাংশ কমে আসবে, ফলে পোল্ট্রি শিল্পের সঙ্গে জড়িতরাও লাভবান হবেন বলে জানান তিনি।

২০১৩ সালে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে পোল্ট্রি খাদ্যে আলু ব্যবহার এ প্রকল্প নিয়ে গবেষণা শুরু করেন ড. ফৌজিয়া। সহকারী হিসেবে একই বিভাগের প্রফেসর হাফিজা খাতুন ও সুমাইয়া আফরিনও তার সাথে যুক্ত হন। ২০১৬ সালে আলুর ওপর গবেষণা শেষ করে গবেষণার রিপোর্ট আমেরিকার কেমিক্যাল অ্যান্ড বায়োলজিক্যাল টেকনোলজি ইন এগ্রিকালচার ডিপার্টমেন্টে পাঠান। ২০১৭ সালের মার্চ মাসে আমেরিকার স্প্রিঞ্জার পাবলিশার জার্নালে পোল্টি শিল্পের খাদ্যে আলু ব্যবহার বিষয়ে ড. ফৌজিয়ার গবেষণা রিপোর্ট প্রকাশিত হয়। পরবর্তীতে গবেষণার ফলাফল নিয়ে বিএইউতে দুই বার সেমিনার করা হয়।

ড. ফৌজিয়া জানান, আলু ব্যবহারে তৈরিকৃত খাদ্য ও বাজারে প্রচলিত পোল্ট্রি খাদ্য নিয়ে আলাদাভাবে খামারের মাংসের জন্য ব্রয়লার ও সোনালি মুরগি এবং ডিমের জন্য লেয়ার ফিমেল মুরগির ওপর গবেষণা করা হয়। পোল্ট্রি খাদ্যে অন্যান্য উপাদানের সঙ্গে শতকরা ২০ থেকে ২৫ শতাংশ শুকনো আলু মিশিয়ে ব্যালেন্স ডায়েট তৈরি করা হয়।

গবেষণায় দেখা যায়, আলুতে কার্বহাইড্রেড উপাদান বেশি থাকায় ভুট্টা দিয়ে তৈরি খাদ্যের তুলনায় আলু ব্যবহারের ফলে প্রতিটি মুরগির ২০ থেকে ২৫ শতাংশ বেশি বৃদ্ধি হয়।

তিনি আরও বলেন, পর্যাপ্ত সংরক্ষণের ব্যবস্থা না থাকায় ভরা মৌসুমে উত্তরবঙ্গসহ সারাদেশে আলুর ব্যাপক অপচয় হয়। কৃষকরাও তাদের ন্যায্য দাম থেকে বঞ্চিত হন। মৌসুমে কম দামে আলু কিনে পোল্ট্রি শিল্প মালিকরা পোল্ট্রি খাদ্যে আলু ব্যবহার করতে পারেন।

বিএইউ’র পোল্ট্রি বিজ্ঞান বিভাগের প্রধান প্রফেসর ড. মোসাব্বির আহমেদ জানান, আমাদের দেশে পোল্ট্রি খাদ্য উৎপাদনে ভুট্টার উপর নির্ভর করতে হয়। ভুট্টার দাম বেশি হওয়ায় খাদ্য উৎপাদনে খরচ বেড়ে যায়। ড. ফৌজিয়া সুলতানার আলু ব্যবহারে গবেষণার ফলাফল সরকারিভাবে সারা দেশে ছড়িয়ে দেয়া গেলে পোল্ট্রি শিল্পের উৎপাদন খরচ অনেকটাই কমে আসবে।

ময়মনসিংহ সদর উপজেলার গোপালনগর গ্রামের রেম পোল্ট্রি খামারের স্বত্বাধিকারী মো. মোশাররফ হোসেন জানান, খাদ্যের দাম বেশি হওয়ায় পোল্ট্রি শিল্পের উৎপাদন খরচ দিন দিন বাড়ছে। ফলে সীমিত লাভ নিয়ে ব্যবসা চালাতে হয়। তবে আলু ব্যবহারে পোল্ট্রি খাদ্যের দাম কমে আসলে শিল্প মালিকরা লাভবান হবেন এবং আরও অনেকে পোল্ট্রি ব্যবসায় এগিয়ে আসবেন।

Print Friendly, PDF & Email