CC News

সাত খুন মামলার পিপির মেয়েকে হত্যার চেষ্টা

 
 

সিসি ডেস্ক: নারায়ণগঞ্জের চাঞ্চল্যকর সাত খুন মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ওয়াজেদ আলী খোকনের মেয়েকে মিষ্টি খাওয়ানোর কথা বলে জোর করে বিষাক্ত কিছু একটা খাওয়ানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বুধবার সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ শহরের নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের বিপরীতে একটি কোচিং সেন্টারের সামনে এ ঘটনা ঘটে। তার নাম মাইশা ওয়াজেদ প্রাপ্তি। সে ও-লেভেলে পড়ে।

ওয়াজেদ আলী খোকন সাংবাদিকদের বলেন, আমাদের বাসা শহরের (হাজী মঞ্জিল) থেকে কাছেই একটি কোচিং সেন্টারে ক্লাস করতে যায় মাইশা। কোচিং শেষে চারতলা ভবনের ওই কোচিং সেন্টারের নিচে নামার পর কয়েকজন ব্যক্তি তাকে বলে, সাত খুনের মামলায় তোমার বাবা তো অনেক ভালো কাজ করেছেন। এ জন্য আমরা তোমাকে মিষ্টি খাওয়াতে এসেছি, এই নাও মিষ্টি খাও।

মাইশা তাদের বলে যে, চাচা আমি বাইরে কিছু খাই না, তারা জোর করতে চাইলে মাইশা তাদের বলে যে আমি খাব না। তখন তারা বলেন, আমরা তোমার বাবার পরিচিত। এরপরই ওই তিন ব্যক্তি জোর করে বিষজাতীয় কিছু একটা তার মুখে পুরে দেয়। এরপরই তারা দ্রুত পালিয়ে যায়। জোর করে খাওয়ানোর কিছুক্ষণ পরই অসুস্থ হয় পড়লে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বুধবার রাত সোয়া ৮টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয় মাইশা ওয়াজেদ প্রাপ্তিকে। এরপর চিকিৎসকেরা তার পাকস্থলী পরিষ্কার করেছেন। তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মঈনুল হক রাতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি ওই এলাকার আশপাশের মানুষের সঙ্গে এ ঘটনা নিয়ে কথা বলেছেন।

২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল ঢাকা-নারায়ণগঞ্জের লিংক রোডের লামাপাড়া এলাকায় র‍্যাবের সদস্যরা চেকপোস্ট বসিয়ে কাউন্সিলর নজরুলের গাড়ি থামান। র‍্যাবের সদস্যরা গাড়ি থেকে নজরুল, তার তিন সহযোগী ও গাড়িচালককে তুলে নিয়ে যান। এ সময় ওই পথ দিয়ে যাচ্ছিলেন আইনজীবী চন্দন সরকার। তিনি অপহরণের বিষয়টি দেখে ফেলায় তাকে ও তার গাড়িচালককেও র‍্যাব তুলে নিয়ে যায়। পরে তাদের সবাইকে হত্যা করে ওই রাতেই পেট কেটে এবং ইটের বস্তা বেঁধে লাশ শীতলক্ষ্যা নদীতে ডুবিয়ে দেয়া হয়।

এ ঘটনায় দুটি মামলা হয়। একটির বাদী নজরুলের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম এবং অপরটির বাদী আইনজীবী চন্দন সরকারের জামাতা বিজয় কুমার পাল। ওয়াজেদ আলী খোকন এসব মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

Print Friendly, PDF & Email