CC News

চাঁদাবাজির অভিযোগে পুলিশসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা

 
 

সিসি ডেস্ক: বরিশালে অস্ত্র ঠেকিয়ে ব্যবসায়ীর কাছে চার লাখ টাকা চাঁদা দাবি ও মারধরের অভিযোগে ভোলা জেলা পুলিশের এক কনস্টেবলসহ তিনজনের নামে মামলা করা হয়েছে।

বুধবার সকালে ভুক্তভোগী ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে বরিশাল চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলাটি দায়ের করেন।

আদালতের বিচারক অমিত কুমার দে মামলাটি আমলে নিয়ে বরিশাল পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)কে বিষয়টি তদন্ত করে আদালতে তদন্ত রিপোর্ট জমা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

দায়েরকৃত মামলায় আসামিরা হলেন, আলোকান্দা ১৩ নং ওয়ার্ডের মৃত. খালেক হাওলাদারের ছেলে পুলিশ কনস্টেবল (কং নং ৩৭৪, বর্তমানে ভোলা জেলায় কর্মরত) মানিক হাওলাদার, তার স্ত্রী রুমি বেগম ও শ্বশুর হরিনাফুলিয়া ২৬ নং ওয়ার্ডের মৃত হাকিম সরদারের ছেলে আবু সরদার।

মামলায় উল্লেখ করা হয়, মামলার বাদী নজরুল ইসলাম একজন ব্যবসায়ী ও বরিশাল নগরীর ১০ নং ওয়ার্ডের চাঁদমারি এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা। আসামি মানিক হাওলাদার, রুমি বেগম ও তার শ্বশুর আবু সরদার প্রভাবশালী, মামলাবাজ, দাঙ্গা-হাঙ্গামাকারী ও চাঁদাবাজ। আসামিরা দীর্ঘদিন যাবৎ বাদী নজরুল ইসলামের কাছে চার লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে আসছেন। চাঁদা না দেয়ায় ক্ষীপ্ত হন আসামিরা। এরই ধারাবাহিকতায় গত ২ সেপ্টেম্বর সকাল ১১টায় বরিশাল মডেল স্কুল এ্যান্ড কলেজের সামনে পথ রোধ করে আসামি পুলিশ কনস্টেবল মানিক হাওলাদার, রুমি বেগম ও আবু সরদারসহ অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জন সন্ত্রাসী। এ সময় আসামি মানিক হাওলাদার একটি অস্ত্র বাদীর তলপেটে ঠেকায় এবং মারধর করে চাঁদা দাবি করে। অন্যান্য আসামিরাও বাদীকে মারধর করেন। এরপর স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে আসামিরা পালিয়ে যায়। যাবার সময় আসামি পুলিশ কনস্টেবল মানিক দাবিকৃত ৪ লাখ টাকা চাঁদা না দিলে বাদীকে হত্যা করবে বলে হুমকি দেন। এ ছাড়া দীর্ঘদিন যাবৎ পুলিশ কনস্টেবল মানিক হাওলাদার ও তার শ্বশুর মামলাবাজ হওয়ায় বাদীর বিরুদ্ধে দুইটি মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করেছে। এরপরও ভবিষ্যতে আবারও মামলা দিয়ে হয়রানি করতে পারে বলে বাদীর আশঙ্কা রয়েছে। এ ছাড়া আসামি মানিক হাওলাদার ও আবু সরদারের বিরুদ্ধে বরিশালের বিভিন্ন স্থানে একাধিক মামলা রয়েছে।

এ ঘটনায় পুলিশ কনস্টেবল মানিকের হয়রানির হাত থেকে রক্ষা পেতে অবশেষে বুধবার সকালে মামলা দায়ের করেন বাদী নজরুল ইসলাম।

Print Friendly, PDF & Email