CC News

ভোলা-১: তোফায়েল ও পার্থর মনোনয়ন ‘নিশ্চিত’

 
 

ভোলা: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে ভোলার চারটি আসনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মনোনয়ন পেতে অনেকেই দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। তবে ভোলা-১ (সদর) আসনে দুজনের মনোনয়ন অনেকটা নিশ্চিত হয়ে আছে। তারা হলেন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোট থেকে দলের উপদেষ্টাম-লীর সদস্য তোফায়েল আহমেদ এবং বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির (বিজেপি) চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থ।

আওয়ামী লীগ

তোফায়েল আহমেদ এই আসন থেকে দলের মনোনয়ন নিয়ে বহুবার এমপি নির্বাচিত হয়েছেন। আগামী নির্বাচনেও মনোনয়ন চাইবেন দলের। ইতোমধ্যে উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে দলীয় বিভিন্ন প্রোগ্রামে আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পক্ষে ভোট চাইতে শুরু করেছেন তিনি। দলীয় নেতারা উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আবার আওয়ামী লীগকে নির্বাচিত করার আহ্বান জানাচ্ছেন।

দলীয় সূত্র থেকে জানা গেছে, ভোলা-১ আসনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোট থেকে দলের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য তোফায়েল আহমেদের মনোনয়ন প্রায় নিশ্চিত। তিনি এ আসন থেকে দলের মনোনয়ন পেয়ে বহুবার এমপি নির্বাচিত হয়েছেন।

ভোলা সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল ইসলাম জানান, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে ভোলায় নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন দলীয় নেতাকর্মীরা। সেই লক্ষ্যে জেলার বিভিন্ন উপজেলা, ইউনিয়ন, পৌরসভা ও ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের কমিটি গঠন এবং পুনর্গঠনের মাধ্যমে দলকে শক্তিশালী করা হচ্ছে। দলের সাংগঠনিক কার্যক্রম আরো গতিশীল করার লক্ষ্যে মহিলা সমাবেশ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

নির্বাচন সামনে রেখে দলকে সুসংগঠিত করচেন জানিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মইনুল হোসেন বিপ্লব বলেন, ‘বিভিন্ন উপজেলায় কমিটি গঠন করছি। দলের হাজার হাজার নারী-পুরুষ নেতা-কর্মীরা ওই সব কমিটিতে অংশ নিয়েছেন। নির্বাচনের জন্য দলের তৃণমূলের নেতাকর্মীরা এখন প্রস্তুত।’

বিএনপি

এই আসনে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরিকদল বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির (বিজেপি) চেয়ারম্যান ও সাবেক এমপি ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থর মনোনয়ন অনেকটাই নিশ্চিত বলে জানিয়েছেন দলের নেতাকর্মীরা।

বিজেপি নেতা পার্থ মনোনয়ন পেলে বিএনপির একটি অংশ তার পক্ষে নির্বাচন করবে বলেও দলীয় সূত্র জানায়। তারা বিজেপি নেতার সঙ্গে সব সময় যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন। ওই অংশের নেতা-কর্মীদের সমর্থন নিয়েই ২০০৮ সালে জোট থেকে মনোনয়ন পেয়ে এমপি নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি।

পার্থর মনোনয়ন প্রায় নিশ্চিত হলেও বিএনপি থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশী জেলা বিএনপির সভাপতি গোলাম নবী আলমগীর। তাকে এ আসনে জোট থেকে দলের মনোনয়নের দাবি জানিয়েছিলেন বিএনপি নেতাকর্মীদের একটি অংশসহ তার অনুসারীরা। তাদের দাবি ভোলা-১ আসনে জোট থেকে জেলা বিএনপির সভাপতি গোলাম নবী আলমগীরকে মনোনয়ন দিয়ে জোটের শরিক দল বিজেপি চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থকে ঢাকার কোনো আসন থেকে মনোনয়ন দেওয়া হোক।

তবে, পার্থর মনোনয়ন নিশ্চিত হওয়ার খবরে হতাশা বিরাজ করছে বিএনপির নেতা আলমগীর অনুসারিসহ দলের একটি গ্রুপের নেতাকর্মীদের মধ্যে। তাদের মনোবলও যেন ভেঙে পড়েছে। দলীয় কার্যালয়টিও অধিকাংশ সময়েই বন্ধ থাকছে।

ভোলা শহরের উকিলপাড়ার এক হোটেল ব্যবসায়ী বিএনপি কর্মী আব্দুল মন্নান বলেন, শেষ পর্যন্ত বিএনপি ও জামায়াত-শিবিরের তৃণমূলের নেতাকর্মীরা পার্থর পক্ষেই নির্বাচন করবে। তাদের সমর্থন পেয়েই ২০০৮ সালের নির্বাচনেও পার্থ এমপি হয়েছিলেন।

বিজেপি

অন্যদিকে ভোলায় বিজেপি নেতাকর্মীদের মধ্যে ফিরে এসেছে প্রাণচাঞ্চল্য। তাদের মধ্যে দেখা দিয়েছে চাঙ্গা ভাব। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে বিজেপির কার্যালয়ে। কার্যালয়ে এসে চা পান ও টেলিভিশ দেখে আলোচনায় ঝড় তুলছেন দলীয় নেতাকর্মীরা।

বিজেপির দলীয় সূত্র জানায়, সম্প্রতি ঢাকায় ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতাদের এক সভায় ভোলা-১ (সদর) আসনে ২০ দলীয় জোট থেকে বিজেপি চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থকে দলের মনোনয়নের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সাংগঠনিকভাবেও দল আগের চেয়ে অনেক শক্তিশালী বলে দাবি বিজেপির নেতাকর্মীদের। বিএনপির একটি সূত্র জানায়, বিজেপি নেতা পার্থ তার দলীয় নেতাকর্মী ছাড়াও বিএনপির অনেক নেতা-কর্মীকে বিভিন্নভাবে সহায়তা করেছেন।

এ বিষয়ে বিজেপি ভোলা দলীয় কার্যালয়ে কথা হয় দলের কার্যকরী কমিটির সদস্য আলমগীর হোসেন মানিকের সঙ্গে। তিনি বলেন, নির্বাচনের জন্য দল ও জোট প্রস্তুত।

বিজেপির সহযোগী সংগঠন জাতীয় যুব সংহতি ভোলা জেলা শাখার সহ-সভাপতি অনুপম দত্ত জানান, নির্বাচন সামনে রেখে দলকে শক্তিশালী করা হচ্ছে। বিজেপি ও দলের সহযোগী সব সংগঠনের জেলা-উপজেলা, পৌরসভা ও ওয়ার্ডে কমিটি গঠন ও পুূনর্গঠন করা হচ্ছে।

আর এবারও জয়ের আশা করছেন আন্দালিব রহমান পার্থ। তিনি বলেন, গত নির্বাচনে জোট থেকে মনোনয়ন পেয়ে এমপি নির্বাচিত হয়েছি। এবারও জোট থেকে মনোনয়ন পেয়ে জোটের নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে এমপি নির্বাচিত হব।’

Print Friendly, PDF & Email