CC News

রোহিঙ্গারা আমাদের অতিথি: রওশন এরশাদ

 
 

ঢাকা: রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশের অতিথি হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা ও জাতীয় পার্টির সিনিয়র চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ। তারা যত দিন ফেরত যেতে না পারবে তত দিন নিরাপদ আশ্রয় দেয়ার ব্যবস্থা নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েচেন।

আজ সোমবার রোহিঙ্গা ইস্যুতে সংসদে আলোচনার প্রস্তাবের পর তাতে অংশ নিয়ে এ আহ্বান জানান রওশন এরশাদ।

এর আগে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি সংসদে প্রস্তাবটি উত্থাপন করেন। প্রস্তাবটি হলো: ‘মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে ধর্মীয় ও জাতিগত সংখ্যালঘু সম্প্রদায় রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠেীর ওপর অব্যাহত নির্যাতন-নিপীড়ন বন্ধ, তাদের নিজ বাসভূম থেকে বিতাড়ন করে বাংলাদেশে পুশ ইন করা থেকে বিরত থাকা এবং রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে নিয়ে নাগরিকত্বের অধিকার দিয়ে নিরাপদে বসবাসের ব্যবস্থা গ্রহণে মিয়ানমার সরকারের ওপর জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক মহলের জোরালো কূটনৈতিক চাপ প্রয়োগের আহ্বান জানানো হোক’

এ সময় অধিবেশনে সভাপতিত্ব করছিলেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। এর আগে বিকেল পাঁচটায় প্রশ্নোত্তর পর্বের মধ্য দিয়ে অধিবেশন শুরু হয়।

রোহিঙ্গা সংকটের স্থায়ী সমাধানের জন্য সরকারকে ব্যবস্থা নিতে তাগিদ দিয়ে রওশন এরশাদ বলেন, মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নির‌্যাতনের শিকার রোহিঙ্গারা স্রোতের মতো বাংলাদেশে আসছে। এর আগেও তারা এ দেশে এসেছে। এর একটা স্থায়ী সমাধান করতে হবে।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রী পদক্ষেপ নিয়েছেন উল্লেখ করে রওশন এরশাদ বলেন, ‘এই পদক্ষেপের আলোকে এগিয়ে গেলে আশা করি একটা ব্যবস্থা বেরিয়ে আসবে।’

তবে রোহিঙ্গারা যাতে দেশে ছড়িয়ে যেতে না পারে সে ব্যাপারে সতর্ক থাকার পরামর্শ দেন রওশন। বলেন, ‘রোঙ্গিারা দেশে ছড়িয়ে যাচ্ছে। তাদের সঙ্গে অস্ত্র ও সন্ত্রাসীও হয়তো ঢুকে পড়েছে। তাই তাদের জন্য একটা জায়গা নির্দিষ্ট করে সেখানে তাদের জায়গা দিতে হবে।’

রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশের অতিথি হিসেবে উল্লেখ করে জাতীয় পার্টির এই সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান বলেন, ‘তারা আমাদের গেস্ট। তবে তাদের একসময় ফিরিয়ে যেতে হবে। তারা যাতে ফিরে যেতে পারে সেই চেষ্টা করতে হবে। যত দিন সেটা না হচ্ছে তত দিন তাদের আশ্রয় দিয়ে যেতে হবে আমাদের।’

রওশন এরশাদ মনে করেন জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনানকে নিয়ে গঠিত কফি আনান কমিশনের রিপোর্টের কথা উল্লেখ করে বলেন, কফি আনান কমিশনের রিপোর্ট অনুয়ায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে। তাহলে একটা সমাধানের পথ খুঁজে পাওয়া যাবে।

Print Friendly, PDF & Email