CC News

ছাত্রের টয়লেটে ছাত্রীকে ঢুকিয়ে দিল শিক্ষিকা

 
 

সিসি ডেস্ক : বিনা ইউনিফর্মে স্কুলে যাওয়ার জন্য পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ছাত্রদের টয়লেটে ঢুকিয়ে অমানবিক ও লজ্জাজনক শাস্তি দিলেন হায়দরাবাদের এক প্রাইভেট স্কুলের শিক্ষিকা।

সোমবার (১১ সেপ্টেম্বর) অন্ধ্রপ্রদেশ শিশু অধিকার সমিতি, রাজ্য মানবাধিকার কমিশন এবং পুলিশের পক্ষ থেকে অভিযোগ জানানো হলে তেলেঙ্গানা সরকার ঘটনাটির তদন্ত করার নির্দেশ দিয়েছে।

এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের সূত্রে জানা গেছে, ১১ বছরের ঐ ছাত্রী সেদিন স্কুল থেকে ফিরেই কাঁদতে শুরু করে। অভিভাবকরা সকলেই আশঙ্কিত হয়ে পড়েন। সারা রাত ধরে কাঁদার পরেও মেয়েকে সামলাতে পারেনি বাড়ির লোক। সে কাঁদতে কাঁদতে কেবল এটাই বলতে থাকে, সে আর এই স্কুলে যাবে না। অন্য স্কুলে ভর্তি হবে। এর পরই সামনে আসে পুরো ঘটনা।

স্কুল ছাত্রী ভাবতেও পারেনি, বিনা ইউনিফর্মে স্কুলে যাওয়ার জন্য কি শাস্তি অপেক্ষা করে আছে তার জন্য। ক্লাসে ঢোকার সময় স্কুলের নির্ধারিত পোশাক না পরার জন্য বকাঝকা করলেন শারীরিক শিক্ষার শিক্ষিকা প্রিয়ঙ্কা। কেবল বকাঝকাতেই বিষয়টি শেষ হয়ে যাবে ভেবেছিল স্কুল ছাত্রী। কিন্তু এরপরই তাকে দেওয়া হল চরম শাস্তি। স্কুলের দোতলায় অবস্থিত ছাত্রদের টয়লেটে তাকে ঢুকিয়ে দেওয়া হল। হায়দরাবাদের এক প্রাইভেট স্কুলের এমনই ‘অমানবিক’ শাস্তির ঘটনার কথা সামনে আসতেই সাড়া পড়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়।

জানা যায়, সেদিন ইউনিফর্ম না পরার কারণ হিসেবে ছাত্রীর কাছে জানতে চায় শিক্ষিকা। সে জানিয়েছিল সেটা কাচতে দেওয়া হয়েছে। তাই অন্য পোশাক পরেই আসতে হয়েছে। জবাবে সন্তুষ্ট না হয়ে দোতলায় ছেলেদের টয়লেটে নিয়ে গিয়ে তাকে দাঁড় করিয়ে রাখেন ওই শিক্ষিকা।

বেশ কিছুক্ষণ সেখানেই দাঁড়িয়ে থাকে সে। তাকে দেখে চতুর্থ শ্রেণির কয়েকজন ছাত্র হাসতে থাকে। গোটা ঘটনায় লজ্জা ও অস্বস্তিতে ক্রমে মানসিক ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়তে থাকে ওই ছাত্রী।

অনেকক্ষণ পরে কড়া হুঁশিয়ারি দিয়ে তাকে আবার ক্লাসে ঢোকার অনুমতি দেওয়া হয়। ওই শিক্ষিকা আরও ৩ জন শিক্ষককে ডেকে গর্ব করে বলতে থাকেন ছাত্রীকে দেওয়া অভিনব শাস্তির কথা।

Print Friendly, PDF & Email