CC News

মিয়ানমারে ফের সেনা বিদ্রোহের শঙ্কা

 
 

সিসি নিউজ: ‘সু চির অবস্থান নড়বড়ে। মিয়ানমারে গণতন্ত্র এখনও ভঙ্গুর। সুচি ২০১৫ সালের নির্বাচনে জয় পেলেও এখন সেনাশাসন ফেরাতে মরিয়া হয়ে উঠেছে ডার্ক ফোর্স। একটি ভুল পদক্ষেপেই তিনি ক্ষমতাচ্যুত হতে পারেন এবং মিয়ানমারে গণতন্ত্রের স্বপ্নের মৃত্যু ঘটতে পারে।’ বৃহস্পতিবার টাইম ম্যাগাজিনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে মিয়ানমারের ক্যাথলিক ধর্মগুরু কার্ডিনাল চার্লস মং বোসেনা এসব কথা বলেন। টাইম ম্যাগাজিনে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে মিয়ানমারে ফের সেনা অভ্যুত্থানের আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে। রোহিঙ্গা সঙ্কটকে ঘিরে অং সান সুচিকে ফাঁদে ফেলে সেনাবাহিনী ফের ক্ষমতা দখল করতে পারে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মিয়ানমারের ৭০ বছরের ইতিহাসে ৫৫ বছরই শাসন করেছে সেনাবাহিনী। সেনারা সুচিকে দীর্ঘ ১৫ বছর গৃহবন্দি রেখেছিল। ২০১৫ সালে বিপুল ভোটে জয়ী হওয়ার পর অং সান সুচির দল ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসি ক্ষমতায় এলেও সেনাবাহিনী এখনও সর্বেসর্বা, সংসদে ২৫ ভাগ আসন তাদের নিয়ন্ত্রণে। প্রতিরক্ষা, স্বরাষ্ট্র ও সীমান্তবিষয়ক মন্ত্রণালয়গুলোও সেনাবাহিনীর দখলে। আশঙ্কা করা হচ্ছে, সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে অবস্থান নিলে তাকে ফের ক্ষমতাচ্যুত করা হতে পারে।

রোহিঙ্গা নিধনযজ্ঞে মুখ্য ভূমিকা পালন করছে সেনাবাহিনী। সুচি ক্ষমতায় টিকে থাকতে রাখাইনে গত ২৫ আগস্ট নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর ‘রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের’ কথিত হামলার পরপরই ‘ক্লিয়ারেন্স অপারেশন্স’-এর অনুমতি দেয় সেনাবাহিনীকে। রাখাইনের ৪৭১টি রোহিঙ্গা গ্রামের ১৭৬টি তথা ৪০ ভাগ গ্রাম এখন জনশূন্য। গ্রামগুলোতে রোহিঙ্গাদের বাস ছিল। রাখাইনের লোকজন চরম দুর্ভোগ, অবহেলা ও দুর্ব্যবহারের শিকার।

Print Friendly, PDF & Email