CC News

সৈয়দপুর ১০০ শয্য হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটার চালু

 
 

।। এম আর মহসিন ।। অর্ধ শতাব্দি আগে প্রতিষ্ঠিত সৈয়দপুর ৫০ শয্যা হাসপাতাল ১০০ শয্যায় উন্নীত হয়েছে। বেড়েছে অন্যান্য সুবিধা তবে জনবল বাড়েনি। এতে নানা প্রতিকুলতার মধ্যে অপারেশন থিয়েটার চালু হওয়ায় সরকারের এ চিকিৎসা সেবা কেন্দ্রটি সকলের জন্য আর্শিবাদ হয়ে দাড়িয়েছে। আর চিকিৎসা ব্যবস্থাপনায় নতুন মাত্রা যোগ হওয়ায় স্বস্তি আর আনন্দ বইছে জনপদবাসীর মধ্যে।

জানা যায়, ১৯৬৫ সালে শহরের কুন্দল পুর্বপাড়া এলাকায় প্রায় ৭ একর জমির ওপর সৈয়দপুর হাসপাতালটি ৫০ শয্যার সুবিধা প্রদানের মাধ্যমে শুরু করে চিকিৎসাসেবা। ডাক্তার, নার্স, অফিস স্টাফ ও অন্যন্য মিলে নিয়োগ দেয়া ৭৫ জন জনকে। মেডিকেল অফিসার,আবাসিক মেডিকেল অফিসার খ,নাক-কান,বিশেষজ্ঞ সিনিয়র কনসালটেন্ট মেডিসিন, গাইনি, ডেন্টাল, ডাক্তার মিলে ১৩ জন ডাক্তার নিয়মিত চিকিৎসা সেবা প্রদান করতেন। করা হত ছোট-বড় অপারেশন ও জটিল প্রসূতি মায়েদের সিজার। এতে হাসপাতালটি স্থানীয়সহ প্রাশ্ববর্তী জেলা-উপজেলাবাসির কাছে চিকিৎসায় নির্ভরতার প্রতিক হয়ে ওঠে। অন্তঃ ও বহিঃবিভাগে প্রতিদিন হাজার- হাজার রোগীর সমাগম ঘটে। তবে শ্রমিক শহর খ্যাত এ এলাকায় এ সকল চিকিৎসকরা চেম্বারে সুবিধে করতে না পারায় কেহই দীর্ঘ সময় এ হাসপাতালে থাকত না। এছাড়া অবসর ও অন্যন্য কারনে অভিজ্ঞরা চলে যাওয়ায় এ হাসপাতালের অপারেশন কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। নাক-কান-গলাসহ অন্যন্য বিশেষজ্ঞদের অভাবে থমকে যায় চিকিৎসা ব্যবসস্থাপনা। এভাবে দির্ঘ দিন কাটার পর সরকারের নেক নজরে পড়ে ২০১২ সালে ৫০ থেকে ১০০ শয্যায় উন্নিত হয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার আর্থিক সহায়তায় ২১ কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মাণ করা হয় ডাক্তারসহ সকল স্টাফদের জন্য বহুতল ভবন,ডরমেটরি, র‌্যাম বিশিষ্ট নতুন চার তলা হাসপাতাল ভবন। পুরাতন সব কিছু সংস্কার ও দৃষ্টিনন্দন প্রবেশ পথ নির্মাণ করা হয়। দেয়া হয় পর্যাপ্ত ওষুধ সরবরাহ। তবে ঘাটতি রয়ে যায়। দামি সব যন্ত্রপাতি থাকা সত্বেও চিকিৎসকের অভাবে অপারেশন থিয়েটার বন্ধ থাকে। আর যথাযথ পদে চিকিৎসক না থাকায় অনেক সেবা এ হাসপাতালে আর মেলে না।

তবে কতৃপক্ষের জোড় তৎপরতায় আবারো সররগরব হয়ে উঠেছে এ হাসপাতাল চত্বর। গত ২৬ সেপ্টেম্বর অপারেশন থিয়েটার চালু হওয়ায় চিকিৎসায় আবারো প্রান সঞ্চার করেছে।এ দিন পারভীন(২৫) নামে এক দরিদ্র ঝুকিপুর্ণ গর্ভবতি মায়ের সিজারের মাধ্যমে নতুন চিকিৎসা সেবার যাত্রা শুরু হয়। পুত্র সন্তান পেয়ে দরিদ্র দিনমজুরের পরিবারে সকলেই আনন্দিত। আর পারভীনের মত সকল প্রসুতি মায়েরাই আশায় বুক বাধছেন এ হাসপাতালের সিজার ব্যবস্থাপনায় নতুন সেবা নিয়ে। ওই দিন হাসপাতালটির অপারেশন কার্যক্রমের উদ্বোধনে রংপুর বিভাগের স্বাস্থ্য পরিচালক ডাঃ মোঃ মোজাম্মেল হক, নীলফামারী সিভিল সার্জন রঞ্জিক কুমার বর্মন, সৈয়দপুর হেলথ কমপ্লেক্সের পরিচালক ডাঃ সিরাজুল ইসলাম, হাসপাতালটির আর এম ও ডাঃ মোঃ আরিফুল হক সোহেল, এথেনসিয়া চিকিৎসক ডাঃ তাইফুর রহমান ও গাইনি বিশেষজ্ঞ সার্জারী ডাঃ আ শ শামছুন্নাহার উপস্থিত ছিলেন।
হাসপাতাল কতৃপক্ষ জানায়, নিজস্ব ৭জন আর ডেপুটিশনের ৪ চিকিৎসক দিয়ে এ হাসপাতাল চলছে। আর অন্যন্য পদ মিলে ৫০ শয্যর জনবলের ১৯ জন নেই। এতে ১০০ শয্যর জন্য দ্বিগুন জনবলের প্রয়োজন। এছাড়া ইসিজি,এক্সরে,রক্ত,মল,মুত্র পরীক্ষা সরকারের দেয়া ফি নিয়েই দেয়া হচ্ছে।
সৈয়দপুর ১০০ শয্য হাসপাতালের আর এম ও ডাঃ আরিফুল হক বলেন, আমরা ৫০ শয্যর ঘাটতি জনবল দিয়ে ১০০ শয্যর রোগীর সেবা চলছে। অন্যন্য ঘাটতির বিষয়ে উর্ধ্বতনদের জানানো হয়েছে। আশা করি পর্যাায়ক্রমে সে গুলো পাবো। আর উর্ধ্বতন কতৃপক্ষের আন্তরিক প্রচেষ্টায় এ অপারেশন থিয়েটারটি আবারো চালু হলো। এটি সেবার মাধ্যমে ধরে রাখার চেষ্টা করা হবে ।
নীলফামারী সিভিল সাজর্ন ডাঃ রঞ্জিত কুমার বর্মন বলেন, এ হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা প্রদানে কোন বাণিজ্য না হয় আর আগতরা যাতে সরকারের দেয়া সেবাটুকু শতভাগ পায় সে পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। আর ঘাটতি জনবল বিষয়ে যথাযথ কতৃপক্ষ নিয়োগ দিলেই সব পুরন হবে।
রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য বিষয়ক পরিচালক ডাঃ মোঃ মোজাম্মেল হক বলেন, স্থানিয় সকল নেতৃবর্গ ও কতৃপক্ষ সমন্বয় করে কাজ করলে সেবা প্রদান কাজ গুলো সহজ হয়। ঘাটতির কারনে এ হাসপাতাল কতৃপক্ষের দোষ না ধরে সহযোগিতায় এগিয়ে আসতে হবে। এতে সকলের কাছে এটি একটি সেবার বাড়ি মনে হবে। আর জনবল ঘাটতি পুরণে একটি প্রক্রিয়ার বিষয়। যা মন্ত্রানালয়ের মাধ্যমে শিঘ্রই বিজ্ঞপ্তি দ্বারা পুরন হবে। তবে জনবল পুরন হোক বা না হোক অত্যন্ত এ হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটার যেন হটাৎ বন্ধ হয়ে এ জনপদবাসিরা সেবা বঞ্চিত না হয় এমন দাবি এ উর্ধ্বত্বনের কাছে।

Print Friendly, PDF & Email