CC News

“ভালো করে পড়ো, নইলে বিয়ে দিয়ে দিবো”

 
 

|| খুরশিদ জামান কাকন ||

মেয়ে ভালো করে পড়ছে না, স্কুল-কলেজে ভালো ফলাফল করছে না। এ মেয়েকে দিয়ে কিচ্ছু হবে না। এর উপর কোন আশাভরসা নেই। একে বিয়ে দিতে পাড়লেই নিস্তার। এটাই যেনো আমাদের দেশের অভিভাবকদের মনোভব হয়ে দাঁড়িয়েছে।
.
“ভালো করে পড়ো, নইলে বিয়ে দিয়ে দিবো” কথিত এ বাক্যটি শুনতে হয়নি এমন পরিবারের মেয়ে খুব কম খুজে পাওয়া যাবে।
.
আমাদের দেশের অভিভাবকদের দিনরাত এ বাক্যটি জপতে দেখা যায়। তাই এ বাক্যটি সম্পর্কে কম বেশি সব মেয়ের ধারনা আছে।
.
তবে আমার বোধে আসে না আমাদের অভিভাবকেরা আসলে এর মাধ্যমে কি বুঝাতে চায়। তারা কি সন্তানের পড়াশোনায় মনোযোগ ফেরাতে চান? নাকি বিয়ে সম্পর্কে সন্তানের মনে একটা ভ্রান্ত ধারনা জন্ম দিতে চান?
এর মাধ্যমে মেয়েদের মনে কি নীতিবাচক প্রভাব পড়ছে না?
.
এরূপ ধারনার কারনে বিয়ের পরব্রতীতে একটি মেয়ের মনে হতেই পারে যে তার স্বামী ও শশুড় বাড়ির লোকেরা কখনোই তার আপনজন নয়।
তাই তাদের প্রতি মেয়েটির মনে জন্মাতে পারে বিরূপ ধারনা। যার ফলে সৃষ্টি হতে পারে পারিবারিক অশান্তি। যা পরব্রতীতে ধারণ করতে পারে বিশালাকার।
.
ছোট বেলা থেকে মেয়েদের গেলানো হচ্ছে বিয়ে একপ্রকার শাস্তি। যা তাকে পেতে হবে, যদি সে স্কুল-কলেজে ভালো ফলাফল এনে না দিতে পারে।
.
অথচ বিয়ে একটি পবিত্র বন্ধন। এ বন্ধন সারাজীবন অটুট রাখা প্রত্যেকটা বিবাহিত নারীপুরুষের কর্তব্য।
কিন্তু বিয়ে সম্পর্কে নীতিবাচক ধারনা পেয়ে বড় হয়ে উঠা মেয়েটা কি বুঝবে এ পবিত্র বন্ধনের গভীরতা?
এর জন্য কি কোনদিন কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে না আমাদের অভিভাবকদের?

Print Friendly, PDF & Email