CC News

ঝিনাইদহে পুজা মন্ডপে আনসার সদস্যদের দায়িত্ব বন্টনে ঘুষ!

 
 

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু উপজেলার ২৬টি পুজাঁ মন্ডপে শারদীয় দুর্গা পূজাঁয় আনসার ও ভিডিপির সদস্যদের মধ্যে দায়িত্ব বন্টনে ঘুষ, দুর্নীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহারসহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে উপজেলা প্রশিক্ষিকার বিরুদ্ধে। প্রশিক্ষনপ্রাপ্ত, সার্টিফিকেট ও স্মাট কার্ডধারী আনসার সদস্যদের দায়িত্ব না দিয়ে উপজেলা প্রশিক্ষিকা রিনা খাতুন ইউনিয়ন দলপ্রতিদের সহযোগীতায় জনপ্রতি ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা ঘুষ নিয়ে পছন্দমত আনসার সদস্যদের ডিউটি দিয়েছেন। স্থানীয় অনেক আনসার-ভিডিপি সদস্য তাকে ঘুষ দিতে না পারায় তাদের পুজাঁর ডিউটি দেয়া হয়নি। ওই কর্মকর্তা তার পছন্দমত আনসার সদস্য দিয়ে তাদের কাছ থেকে রেট মাফিক ঘুষ নিয়ে বিভিন্ন পূজাঁ মন্ডপে ডিউটি দিয়েছেন। এ ঘটনায় পূজাঁর ডিউটি থেকে বঞ্চিত একাধিক আনসার সদস্য ক্ষুব্ধ হয়েছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কয়েকজন আনসার ও ভিডিপির সদস্য অভিযোগ করে বলেন, আমাদের আনসার ভিডিপির প্রশিক্ষন নেয়া আছে, আছে সার্টিফিকেট ও স্মাট কার্ড। কিন্তু উপজেলা প্রশিক্ষিকা রিনা খাতুনকে চাহিদামত ঘুষ না দেওয়ায় তিনি আমাদের পুজাঁর ডিউটি দেননি। এছাড়া ২৬ টি পুজা মন্ডপে প্রতিটিতে অধিক গুরুত্বপূর্ণ ৮জন, গুরুত্বপূর্ণ ৬ এবং সাধারনে ৪জন করে আনসার সদস্যদের নামের তালিকা দেয়া হয়েছে। খাতা-কলমে ১৫২ জন দেখানো হলেও প্রকৃতপক্ষে পুজাঁ মন্ডপে পাঠানো হয়েছে চাহিদার তুলনায় কম। প্রতিটি পূজাঁমন্ডপে ২/১জন করে কম আনসার পাঠানো হয়েছে। আর এসব আনসার সদস্যদের টাকা লুটপাট করা হয়েছে। ছুটির দিনে ডিউটির টাকা দেয়ার বিধান না থাকলেও তিনি তা করেছেন। খাতা কলমে যা দেখানো হয়েছে ডিউটি করেছে তার তুলনায় কম। ডিউটি বাবদ একজন পিসি-এপিসি পেয়েছেন ১৭৯০ টাকা এবং সাধারন আনসার-ভিডিপি সদস্য পেয়েছেন ১৬০০ টাকা।

এই ডিউটি নিতে উপজেলা প্রশিক্ষিকা রিনা খাতুনকে ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা করে ঘুষ দিতে হয়েছে। যারা এসব টাকা দিতে পারেননি তাদের কে ডিউটি দেয়া হয়নি। বরং ওই কর্মকর্তা তার পছন্দমত আনসার-ভিডিপির সদস্যদের ডেকে এনে তাদের কাছ থেকে নগদ নারায়নে তুষ্ঠ হয়ে পুজাঁ মন্ডপে উিউটি দিয়েছেন। সূত্রে জানা গেছে, ২৬ টি পুজা মন্ডপে ১৫২ জন আনসার-ভিডিপি সদস্যের ডিউটি করার কথা। কিন্তু প্রতিটি পুজা মন্ডপে ৮ জনের স্থলে ৬ জন, ৬জনের স্থলে ৫জন করে ডিউটি করানো হয়েছে। বাকি ৫০ জন আনসার সদস্য বেশি দেখিয়ে সেখান থেকে প্রায় লক্ষাধিক টাকা ওই কর্মকর্তা আত্মসাত করেছেন বলে অভিযোগ। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক আনসার সদস্যরা জানান, হরিণাকুন্ডু উপজেলা প্রশক্ষিকা (টিআই) রিনা খাতুন ইউনিয়ন দলপ্রতিদের সহযোগীতায় সাধারন মানুষের কাছ থেকে জন প্রতি রেট ফেলে ঘুষ নিয়ে পুজাঁ মন্ডপে ডিউটি দিয়েছেন। কিন্তু স্থানীয় অনেক আনসার সদস্য রয়েছেন তাদের ডিউটি দেয়া হয়নি বলে অভিযোগ। পৌরসভার আনসার সদস্যদের উপজেলার কোন পূজাঁতেই ডিউটি দেয়া হয়নি বলে তারা অভিযোগ করেন। আনসার ভিডিপির সদস্যরা আরো জানান, উপজেলা প্রশিক্ষিকা রিনা খাতুন তার নিকটতম আত্বীয় বা ঘনিষ্টজন যারা বিভিন্ন ব্যাংক, ফার্ম ও গোডাউনে আনসার সদস্য হিসেবে কর্মরত রয়েছেন তাদের ছুটি করিয়ে এনে পুজা মন্ডপে ডিউটি দিয়েছেন। তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে উপজেলা প্রশিক্ষিকা রিনা খাতুন জানান হেড কোয়ার্টারের নির্দেশনা মোতাবেক আনসারদের ডিউটি করানো হয়েছে। এর বেশি কিছু আমি বলতে পারবো না। তবে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) দিলারা রহমান বলেন, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত, সার্টিফিকেটধারী বা স্মাট কার্ড ধারী যেসব আনসার সদস্যরা পূজাঁয় ডিউটি পায়নি তারা অভিযোগ দিলে আমি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিব।

Print Friendly, PDF & Email