CC News

মাথা ন্যাড়া করে বিয়ে ঠেকিয়েছি

 
 

সিসি ডেস্ক: বিয়ের বয়স এখনও হয়নি। সবে দশম শ্রেণির ছাত্রী। এর এক বছর আগেই বিয়ের পিঁড়িতে বসানোর আয়োজন করেছিলেন কৃষক বাবা সাইদুল ইসলাম। অবুঝ বাবার জ্ঞান ফেরায় কিশোরী মেয়ে শাবানা আক্তার। নিজের মাথা নিজেই ন্যাড়া করে ঠেকিয়েছিল বাল্যবিয়ে। অদম্য শক্তি আর পৃথিবীসম স্বপ্ন নিয়ে এ কিশোরী আজ স্কুলের ‘উচ্ছ্বাস প্রাণ’।

তার স্বপ্নকথা শোনাতে আজ বুধবার রাজধানী ঢাকায় এসেছিল রংপুরের গঙ্গাচড়ার কেএনবি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির এই ছাত্রী। রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটউটে বিশ্ব কন্যা দিবসের আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে শোনাল জীবন জয় আর অদম্য সাহসিকতার কথা।

‘আমি এখনো বিয়ের কথা মাথায় আনতে পারি না। বাবা বাধ্য করছিল বিয়েতে রাজি হতে। নিজের মাথা নিজেই ন্যাড়া করে বাল্যবিয়ে ঠেকিয়েছি। এগিয়ে যাব বহুদূর। নারী হিসেবে নয়, মানুষ হিসেবে বাঁচতে চাই। চাই সকল সহলের সহযোগিতা।’

২০১৬ সালের ঘটনা। পরীক্ষার পড়ালেখা নিয়ে ব্যস্ত শাবানা। দরিদ্র কৃষক বাবার কাছে পাশের গ্রাম থেকে মেয়ের বিয়ের প্রস্তাব আসে। অভাবের সংসারে আগে-পিছে না ভেবে প্রস্তাবে রাজি হন বাবা। মেয়েকে পড়ার টেবিল থেকে উঠিয়ে বিয়ের পিঁড়িতে বসানোর জোরজবরদস্তি চলে। এতে বেঁকে বসে শাবানা। বন্ধ হয়ে যায় তার স্কুলে যাওয়া। খানা-পিনাও অনেকটা বন্ধ।

খবর পেয়ে স্কুলের বন্ধুরা শাবানাকে ডেকে পাঠায়। বিয়ের খবর পৌঁছে যায় স্কুলের শিক্ষকদের কাছেও। শাবানার স্কুলের সহপাঠী আর শিক্ষকরা মিলে বাবাকে বোঝানোর চেষ্টা করেন। তাতে মন গলে না শাবানার বাবার। সিদ্ধান্তে অটল থাকেন।

বাবার এমন কঠোর মনোভাবে উপায়ান্তর না দেখে অভিনব বুদ্ধি আঁটে এই কিশোরী। বাবাকে না জানিয়ে উকুনের কথা বলে হঠাৎ করেই মাথা ন্যাড়া করে ফেলে। এরপরই গণেশ উল্টে যায়। ন্যাড়া মাথার কন্যাকে দেখে বরপক্ষ ফিরে যায়। বাল্যবিয়ের অভিশাপ থেকে রক্ষা পায় শাবানা। সমাজকে কৌশলী বুদ্ধিমত্তার ফাঁদে ফেলে শিকল থেকে মুক্তি পায় সে।

নিজের জীবনের এমন গল্প শুনিয়ে উপস্থিত সবাই তাক লাগিয়ে দেয় গ্রাম্যবালিকা শাবানা। অদম্য সাহসিকতায় এগিয়ে যাওয়ার গল্প শুনিয়ে সম্মাননা পেয়েছে ছয় কিশোরী। প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে শাবানা বলছিল, ‘আমি এখনও বিয়ের কথা মাথায় আনতে পারি না। বাবা বাধ্য করছিল বিয়েতে রাজি হতে। নিজের মাথা নিজেই ন্যাড়া করে বাল্যবিয়ে ঠেকিয়েছি।’

স্বপ্নে বিভোর শাবানার ভাষ্য, এগিয়ে যাব বহুদূর। নারী হিসেবে নয়, মানুষ হিসেবে বাঁচতে চাই। চাই সব মহলের সহযোগিতা।

আন্তর্জাতিক কন্যা দিবস উপলক্ষে রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটে ওই আলোচনা সভা যৌথভাবে আয়োজন করে ব্র্যাক, অ্যাসিড সারভাইভারস ফাউন্ডেশন এবং অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশন।

ব্র্যাক জেন্ডার জাস্টিস অ্যান্ড ডাইভারসিটির পরিচালক আন্না মিনজ’র সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাউল সম্রাজ্ঞী ও সংসদ সদস্য মমতাজ বেগম। সভায় আরও ছিলেন অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশনার স্যালী-এ্যান ভিনসেন্ট, মনোবিজ্ঞানী ড. মেহতাব খানম, আইন ও সালিশ কেন্দ্রের নির্বাহী পরিচালক শিপা হাফিজ প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে অদম্য সাহসিকতায় এগিয়ে যাওয়ার গল্প শোনানো ছয় কিশোরীকে সম্মাননা দেয়া হয়েছে। তারা হলো- শামীমা আক্তার, আমিনা খাতুন নীলা, লিলিমা খাতুন, শাবানা আক্তার, তুলি দেবনাথ, মুক্তার আক্তার মৌ।

উৎস: জাগো নিউজ

Print Friendly, PDF & Email