CC News

সৈয়দপুরে উৎপাদিত গ্যানো মাশরুম সারাদেশে জনপ্রিয়

 
 

।। আলমগীর হোসেন ।। আজগার আলী পেশায় নলকূপ বোরিং মিস্ত্রি। তিনি নীলফামার জেলার সৈয়দপুর শহরের বাঙ্গালীপুর দারুল উলুম এলাকর বাসিন্দা। বিগত ১২ বছর থেকে এলার্জির সমস্যায় ভুগছেন। এলার্জি জনিত কারনেই তার সারা শরীরে ঘা হয়ে যায়। দুর্গন্ধে পরিবারের লোকজন ছাড়া তার কাছে কেউ যেত না। বিভিন্ন জনের পরামর্শে প্রচুর টাকা খরচ করে চিকিৎসক, কবিরাজ, হেকিমি, হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা করেও রোগমুক্তি মেলেনি। রোগটিকে অভিশপ্ত মনে করে চিকিৎসা বন্ধ করে মৃত্যুর প্রহর গুনতে থাকেন আজগার আলী। গত বছরে প্রতিবেশীর কাছে জানতে পারেন গ্যানো মাশরূমের কথা, ওই প্রতিবেশী নিয়ে যান সৈয়দপুর শহরেই গ্যানো মাশরূম উৎপাদনকারী আজিজুল হকের কাছে। তার পরামর্শে প্রক্রিয়াজাতকৃত গ্যানো মাশরূম সেবনে আজগার এখন সম্পূর্ণ সুস্থ। মোঃ শফিকুর রহমান অডিটর সৈয়দপুর সেনানিবাসে সিভিলে কর্মরত ছিলেন বাসা বাঙ্গালীপুর নিজপাড়া, সৈয়দপুর, নীলফামারী নেক ইস্টিপনেস (ঘাড় বাঁকা ও শক্ত হয়ে যাওয়া) সমস্যায় আক্রান্ত হয় দেশে এবং ভারতের ব্যাঙ্গালর নিউরো হসপিতালে চিকিৎসা নেন, উন্নতি না হওয়ায় ফেরৎ আসেন এবং বাঁচার আশা ছেড়েদেন। পাশবর্তি লোকের কাছে জানতে পারেন মাশরুমের উপকারিতার কথা এবং সরণাপণ্য হন আজিজ সাহেবের কাছে। তিনি গ্যানো মাশরুম খেতে ও শারীরিক ব্যায়ামের পরমার্শ দেন এতেই তিনি আস্তে আস্তে সুস্থ হয়ে উঠেন।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ঋষি গ্যানো মাশরূম নিয়ে শ্রমিক কর্মচারীদের কর্মযজ্ঞ। মুখে মাস্ক ও হাতে গ্লোভস পড়ে কাজ করছে ৫০জন নারী শ্রমিক। কেউ ল্যাবে, কেউ কালচারে, কেউবা প্রক্রিয়াজাতে ও প্যাকেটিং কাজে ব্যস্ত সময় পার করছে।
পুষ্টি ও ঔষধি গুণ সর্ম্পূন্ন ঋষি/ গ্যান ডার্মা আধুনিক প্রযুক্তিতে সৈয়দপুরে উৎপাদন করে বাজারজাত করা হচ্ছে সারাদেশে।
যুপোপযোগী এ মাশরূম উৎপাদন কেন্দ্রটি ইতিমধ্যে পরিদর্শন করেছেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ্, অতিরিক্ত সচিব (গবেষনা) ফজলে ওয়াহেদ খন্দকার, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর মহাপরিচালক মোঃ হামিদুর রহমান, হটি কালচার উইং এর পরিচালক কুদরত-এ-গণি, হাজি দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. সাইফুল হুদার নেতৃত্বে কৃষি বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। নিয়মিত এটি পরিদর্শন করেন। এছাড়াও সারা দেশ থেকে এ প্রতিষ্ঠান পরিদর্শনে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি আসেন।
সৈয়দপুর শহরের টেকনিক্যাল কলেজ পাড়ায় ২৪ শতক জমির উপর ২০০৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এই মাশরূম সেন্টারটি। বর্তমানে ১ একর জমির উপর এ কেন্দ্রটিতে রয়েছে ল্যাব, কালচার হাউস ও ওয়ার্কশপ। প্রতিদিন এখানে কাজ করছে ৫০ জন, প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে ১৫০ জন শ্রমিক। এখানে গ্যানো মাশরূমের টিস্যু কালচার, মাদার কালচার, প্রক্রিয়াজাত ও প্যাকেটজাত করা হচ্ছে। এই সব ঔষধি মাশরূম বিক্ষিপ্ত আকারে সারা দেশে বাজারজাত করা হচ্ছে।

উৎপাদিত গ্যানো মাশরূম নিজস্ব ল্যাবে প্রক্রিয়াজাত করে ক্যাপসুল ও বিভিন্নভাবে প্যাকেটজাত করে বাজারজাত করা হয়। যা এফ গ্যানো জেনারেল, এফ গ্যানো এম, গ্যানো চা, এফ মাশরূম, এফ গ্যনো তেল, ফেসিয়াল ফেস প্যাক নামে বাজারজাত করছে। অনেক প্রবাসীরা দেশে এসে ব্যক্তিগত এবং পরিবারের অন্যান্য আত্মীয় স্বজনের প্রয়োজনে নিজ উদ্যোগে বিদেশে নিয়ে যাচ্ছেন।
নিজস্ব ল্যাবটারীতে উৎপাদিত বিভিন্ন গুন সম্পূন্ন এ গ্যানো মাশরূমের জন্য ফাতেমা এন্টারপ্রাইজ বাংলাদেশের অনেক প্রতিষ্ঠান থেকে অনেক সনদ পেয়েছে।
বাংলাদেশে ঋষি ও ওয়েষ্টার মাশরূম উৎপাদনে সফলতা, বানিজ্যিক ভিত্তিতে চাষ, সম্প্রসারণ, আত্ম কর্মসংস্থান সৃষ্টি, পুষ্টিপূরণ ও দারিদ্র বিমোচনে অবদানের জন্য কৃষি মন্ত্রনালয় কর্তৃক বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরুষ্কার ১৪১৮ বংঃ অর্জন করেছে প্রতিষ্ঠানটি।
এছাড়াও সারা দেশে মাশরূম উৎপাদনে শ্রেষ্ট প্রতিষ্ঠান হিসেবে বাংলাদেশ একাডেমী অব এগ্রিকালচার অ্যাওয়ার্ড, সিটি অ্যাওয়ার্ড, স্টার অ্যাওয়ার্ড, তানজিন কালচারাল ফাউন্ডেশন সম্মাননাসহ বিভিন্ন সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে বহু পুরষ্কার ও সুনাম অর্জন করেছে।
মাশরূম চাষে আজিজুলের সফলতা দেখে তার পরামর্শমত কক্সবাজার, ময়মনসিংহ, সিরাজগঞ্জ, রংপুর, লালমনিরহাট, ঠাঁকুরগাঁও, পঞ্চগড় ও সৈয়দপুরে মাশরূম চাষ করে সাবলম্বী হয়েছে অনেক যুবক ও যুবতী।
বাংলাদেশের প্রথম গ্যানো মাশরূম বানিজ্যিক ভিত্তিতে উৎপাদন, প্রক্রিয়াজাতকরণ ও বাজারজাতকরণে মেসার্স ফাতেমা এন্টারপ্রাইজের অগ্রগামী। প্রতিষ্ঠানের স্বত্ত্বাধিকারী আজিজুল হক জানান, গত ২০১৫ সালের হরতাল অবরোধের সময় উৎপাদিত ওয়েস্টার মাশরূম প্রায় ৫০ টন নষ্ট হয়ে যায়। সম্প্রতি ২০১৭ সালের বন্যায় খড়খড়িয়া নদীর বাধ ভেঙ্গে গ্যানো মাশরূমের ১লক্ষ স্পন্দ পানিতে ডুবিয়ে নষ্ট হয়েছে। তিনি আরও বলেন, সরকার আর্থিক সহযোগিতা করলে অবকাঠামো ও অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি সংযোজিত করে প্রতিষ্ঠানটি আর্ন্তজাতিক মানের করা সম্ভব। দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রপ্তানি করা সম্ভব। পৃথিবীতে ৩ লক্ষ প্রজাতি মাশরূম রয়েছে। তার মধ্যে খাওয়ার উপযোগী ২ হাজার মাশরূম। ঔষধি গুণ সম্পূন্ন মাশরূম মাত্র দু’শটি। এর মধ্যে গ্যানো ডার্মা/মাশরূম হল প্রথম। সরকার মাশরূম প্রকল্পের উপর একটু নজর দিলে আমাদের দেশে তৈরী পুষ্টি ও ঔষুধি গুণ সম্পন্ন মাশরূম দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রপ্তানি করার যোগ্যতা রাখে।
মাশরূমের সম্পর্কে মাশরূম ইন্সটিটিউটের উপ পরিচালক ড. নিরোদ চন্দ্র সরকার বলেন, গ্যানো মাশরূম মানব দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এটি নিয়মিত সেবনে টিউমার, ডায়েবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ, ডেঙ্গু, এইচআইভি, যকৃৎ, ক্যান্সার, কিডনি, জন্ডিস, গ্যাস্টিক, আমাশয়সহ বহু রোগ প্রতিরোধ, নিরাময় বা নিয়ন্ত্রণ করে।

Print Friendly, PDF & Email