CC News

জনতার ইটপাটকেল নিক্ষেপ: ডিম বিক্রি বাতিল

 
 

সিসি ডেস্ক: বিশ্ব ডিম দিবসে বিক্রি শুরুর আগেই বন্ধ করে দেওয়া হলো ডিম বিক্রি। জনতার ইট-পাটকেল নিক্ষেপ ও চরম শৃঙ্খলাহীন পরিস্থিতিতে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।
আজ শুক্রবার বেলা সোয়া ১১টার পর এমন ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। মূলত সকাল ৯টা থেকে রাজধানীর খামারবাড়িতে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে (কেআইবি) তিন টাকায় ডিম বিক্রি হওয়ার কথা ছিল। ২০ হাজার ডিম দেওয়া হতো। একজন পেতেন ৯০টি করে।
রাজধানীর খামারবাড়িতে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে দেখা যায়, প্রায় পঞ্চাশ হাজার মানুষের লাইন।  তিন টাকা পিচ দামে  ডিম কিনতে এসব মানুষ সকাল ছয়টা থেকে লাইনে দাঁড়ানো শুরু করে। নয়টার মধ্যে এ লাইন কেআইবি চত্বর ছেড়ে বিজয় সরণি পার হয়ে যায়।
এতো মানুষের ভিড়ে পুরো ইনস্টিটিউশনে গোলমালের সৃষ্টি হয়। যোগানের চেয়ে মানুষের চাহিদা বেশি হওয়ায় বিশৃঙ্খল পরিবেশ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। পুলিশ এতো মানুষকে ছত্রভঙ্গ করতে লাঠি চার্জ করে।
তিন টাকা পিস ডিম কিনতে মানুষজন সকাল ৬টা থেকে লাইনে দাঁড়ানো শুরু করেন বলে কর্তৃপক্ষ জানায়। ৯টার মধ্যে এ লাইন কেআইবি চত্বর ছাড়িয়ে ফার্মগেট, বিজয় স্মরণী পার হয়ে করে। লাগে দীর্ঘ যানজট।
মানুষের ভিড়ে প্রচুর ডিম ভেঙে গেছে। রাস্তায় দেখা গেছে ডিম ভেঙে সয়লাব। তবুও যেগুলো বেঁচেছে তা পরবর্তীতে বিলিয়ে দেওয়া বা কম মূল্যে নির্দিষ্ট বাজারে বিক্রি করা হবে বলে জানা গেছে।
ডিম কিনতে এসে আয়োজকদের ওপর নিজের ক্ষোভ ঝাড়লেন আবুল কাশেম।
‘আমাদের এমন হয়রানি করার মানে হয় না। বিক্রির আগে কত প্রচারণা। এখন শুরু হয়নি ডিম বিতরণ কার্যক্রম। ডিম বিক্রির নামে এসব নাটক, ভন্ডামী ছাড়া কিছু নয়।’
কাশেমের মতো হাজার মানুষকে ডিমের জন্য,  চিৎকার-চেঁচামেচি, শ্লোগান দিতে শোনা যায়।
সকাল ১০টায় বিক্রি শুরু হওয়ার কথা থাকলেও ডিম বিক্রি বন্ধ রেখেছে আয়োজক কর্তৃপক্ষ। বিক্রি স্থানে অতিরিক্ত ভিড় হওয়ায় শতশত ডিম ভেঙে যায়। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।
আয়োজক কমিটির সদস্য শ্যামলী পোল্ট্রি লিমিটেড হেড অব মার্কেটিং নজরুল  ইসলাম বলেন,আজকে আর বিক্রি হবে না। আমাদের ২০ হাজার ডিম বিক্রির টার্গেট ছিলো। কিন্তু ভাবতে পারি নাই এতো লোক হবে। এখন বিক্রি করতে গেলে পরিস্থিতি খারাপ হবে।  সাংঘর্ষিক পরিস্থিতি দাঁড়াবে। ম্যানেজমেন্ট যে কোনো সময় ঘোষণা দিবে ডিম বিক্রি হবে না।
এদিকে বিজয় সরণির দিকে লাইনে দাড়ানো মানুষ জানে না,  যে ডিম সংকটের বিষয়টি।  রোদে  ডিমের প্রত্যাশায় তারা দাঁড়িয়ে রয়েছে। বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি এড়াতে বন্ধ হওয়ার ঘোষণাও দিতে পারছে না।
ডিম নিতে আসা রায়হান নামে এক যুবক বলেন, প্রস্তুতি ছাড়া বাংলাদেশের মতো জায়গায় এভাবে ডিম বিক্রির প্রচারণা করা উচিত হয় নি। ফেসবুক, টিভি,  অনলাইন পত্রিকা, দৈনিক পত্রিকাসহ কোনো মাধ্যমে প্রচার করতে বাদ রাখে নাই। আর আজকে হয়রানি করা হচ্ছে।
পরিস্থিতি এতো খারাপ দাঁড়িয়েছে অয়োজক কমিটি সদস্যদের বিশৃঙ্খলা এড়াতে পুলিশের সঙ্গে বারবার কথা বলতে দেখা যায়।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সদস্য বলেন, আয়োজনে ঘাটতি থাকায় পরিস্থিতি এমন দাঁড়িয়েছ।  ২ কোটি মানুষের রাজধানীতে  ২০ হাজার ডিম বিতরণ বোকামি সিদ্ধান্ত। এখন পুলিশ ছাড়া পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ সম্ভব না।
উল্লেখ্য, বিশ্ব ডিম দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ পোলট্রি ইন্ডাস্ট্রিজ সেন্ট্রাল কাউন্সিল (বিপিআইসিসি) ও প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর ৩ টাকা ধরে ডিম বিক্রি করার উদ্যোগ নেয়। আজ সকাল ১০টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত প্রতিটি ডিম তিন টাকায় বিক্রি হবে। আগে এলে আগে পাবেন ভিত্তিতে এই ডিম বিক্রি করা হবে। একজন ব্যক্তি সর্বোচ্চ ৯০ টি ডিম কিনতে পারবে।

এবি নিউজ

Print Friendly, PDF & Email