CC News

পাখি প্রেমিক আলমগীরের গল্প

 
 

কাকন, ০৬ নভেম্বর: পিঠে লাল সবুজের পতাকা, গলায় হ্যান্ড মাইক ঝুলানো। গায়ে বিভিন্ন স্লোগান সংবলিত টিশার্ট, হাতে সচেতনতা মূলক লিফলেট। এ নিয়েই দুই চাকার সাইকেল চেপে সৈয়দপুর হতে তেঁতুলিয়ায় ক্যাম্পিং করেছেন নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার খাতামধুপুর ইউনিয়নের তরুণ পাখি প্রেমিক আলমগীর হোসেন। উদ্দেশ্য পাখি বাঁচাও, প্রকৃতি বাঁচাও আন্দোলন বেগবান করা। আর এ লক্ষ্যেই তিনি গত ৩১ অক্টোবর হতে ২ নভেম্বর পর্যন্ত টানা তিনদিন উত্তরের চার জেলা নীলফামারী, দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও ও পঞ্চগড় ভ্রমণ করেন।

ভ্রমণের সময় আলমগীর হোসেন বিভিন্ন স্কুল-কলেজ ও হাট-বাজারে যাত্রা বিরতি দিয়ে আলোচনা সভা ও লিফলেট বিলি করেছেন। পাখি ও প্রকৃতির গুরুত্ব তুলে ধরে তিনি সকলকে পাখির সুরক্ষায় সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান।

পাখি বাঁচাও, প্রকৃতি বাঁচাও আন্দোলনের সাথে এই ব্যতিক্রম ভ্রমণে তার সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে নীলফামারী জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খালেদ রহীম, পঞ্চগড় জেলা প্রশাসক অমল কৃষ্ণ মন্ডল, সৈয়দপুর পৌরসভা মেয়র আমজাদ হোসেন সরকার, সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদের চেয়্যারম্যান মোখছেদুল মোমিন, বোদা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও তেতুলিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সানিউল ফেরদৌস পাখি প্রেমিক আলমগীর হোসেনকে সাধুবাদ জানান।

ক্যাম্পিংয়ের প্রথম দিন সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) পরিমল কুমার সরকার আলমগীরের সাইকেল যাত্রার শুভ উদ্বোধন করেন। এদিন আলমগীর সাইকেল চালিয়ে সৈয়দপুর হতে ঠাকুরগাঁও সদরে পৌঁছান। পথিমধ্যে রাবেয়া, চম্পাতলি, রানীর বন্দর, বেকুপুল বাজার, ভূষিরবন্দর, দশমাইল ও ঠাকুরগাঁও সদরে তিনি বেশ কয়েকটি পথসভা করেন।

ক্যাম্পিংয়ের দ্বিতীয় দিন ঠাকুরগাঁও হতে সাইকেল চালিয়ে পঞ্চগড় যাওয়ার পথে তিনি ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক চত্বর, চিনিকল বাজার, শহীদ মিনার চত্বর কান্তজির মন্দির বাজার ও তেতুলিয়া বাজারেও পথসভা করেন।

ক্যাম্পিংয়ের তৃতীয় ও শেষদিন পঞ্চগড় হতে বাংলাবান্দা জিরো পয়েন্ট যাওয়ার পথে স্থানীয় একদল স্বেচ্ছাসেবক আলমগীরের এ পথচলায় সঙ্গী হন। তারা একত্রে পথচারীদের মাঝে সচেতনতা মূলক কয়েক হাজার লিফলেট বিতরণ করেন।

এদিন বিকেলে সাইকেল চালিয়ে তিনি বাংলাবান্দা জিরো পয়েন্ট পৌছালে তেতুলিয়া উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়্যারম্যান রাজিয়া সুলতানা অভিবাদন জানিয়ে আলমগীরের তিনদিনের এ সাইকেল যাত্রার সমাপনী ঘোষণা করেন।

এছাড়াও পাখি ও প্রকৃতি বাঁচাতে শিক্ষার্থীদের মাঝে ব্যাপক সচেতনতা সৃষ্টিতে আলমগীর তিনদিনের এ সাইকেল যাত্রাপথে আলোকডিহি জেবি উচ্চ বিদ্যালয়, ঠাকুরগাঁও জেলা স্কুল, দশমাইল দ্বিমুখী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, বেগম খালেদা জিয়া বালিকা বিদ্যালয়, দশমাইল উচ্চ বিদ্যালয় ও তেতুলিয়া ডিগ্রি কলেজে আলোচনা সভা করেন।

উদ্যমী এই পাখি প্রেমিক বলেন, পাখি ও প্রকৃতির সুরক্ষায় আমাদের সকলকে সচেতন হতে হবে। এ জন্যে চাই বেশি বেশি প্রচারণা। আর এ লক্ষে তিনি সাইকেল চালিয়ে তিনদিনের এ ক্যাম্পিং করেছেন। সামনে পাখি ও প্রকৃতি বাঁচানোর আহবান জানাতে সাইকেল চালিয়ে গোটা দেশ ভ্রমণের পরিকল্পনা আছে বলেও জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, পাখি সুরক্ষা ও পাখির নিরাপদ আবাসন গড়ে দিতে আলমগীর সেতুবন্ধন নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন প্রতিষ্ঠা করে ২০১৩ সাল হতে নীলফামারীর সৈয়দপুর জুড়ে গাছে গাছে মাটির কলস লাগিয়ে দিয়েছেন। তার লাগানো সেসব কলসে পাখিরা বসবাস করে এবং বংশবিস্তার ঘটায়। এরই ফলস্বরূপ ইতিমধ্যে আলমগীর হোসেন “পাখি সংরক্ষণ সম্মাননা -২০১৬” পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। এবং তিনি ইতোমধ্যে রাজশাহী বিভাগ সহ রংপুর বিভাগের জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন, গ্রাম মহল্লা সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে, গাছ বাগানে, সরকারী-বেসরকারি অফিস চত্বরের গাছে পাখির নিরাপদ আবাসস্থল তৈরির মাধ্যমে পাখির বন্ধু আলমগীর নামে সুপরিচিত হয়ে উঠেছেন ।

Print Friendly, PDF & Email