CC News

রৌমারীতে ফেন্সিডিল ও ইয়াবাসহ ২ জন আটক

 
 

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে ২ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে রৌমারী থানা পুলিশ।
পুলিশ জানায়, বুধবার রাতে কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার সদর ইউনিয়নের চর ফুলবাড়ী গ্রামে অভিযান চালিয়ে মাদক ব্যবসায়ী সোহরাব আলীর বাড়ি থেকে ৯৯ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করে পুলিশ। এসময় তার বাড়িতে থাকা জামালপুর জেলার বকসীগঞ্জ থানার চরকাউনিয়া গ্রামের মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেনের পুত্র মোঃ আবু মাজেদ রানাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায় মাদক ব্যবসায়ী সোহরাব আলী, কামরুল হোসেন ও বাবু মিয়া।
পরে রৌমারী থানায় আটক আবু মাজেদ রানাসহ ৪ জনের নামে মামলা দিয়ে জেল হাজতে পাঠানো হয়।
অপরদিকে বুধবার রাতে রৌমারী উপজেলার সদর ইউনিয়নের সবুজপাড়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে মাদক ব্যবসায়ী আলমগীর হোসেনকে তার বাড়ি থেকে আটক করে পুলিশ। এসময় তার হেফাজতে থাকা ২১ পিচ ইয়াবা টেবলেট উদ্ধার করে। পরে মাদক ব্যবসায়ী আলমগীর হোসেনের নামে মাদক দ্রব্য আইনে মামলা দিয়ে জেল হাজতে প্রেরন করে পুলিশ।
এব্যাপারে রৌমারী থানার অফিসার ইনচার্জ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, রৌমারী থানায় পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযান অব্যাহত রয়েছে। আটক মাদক ব্যবসায়ীদের নামে মামলা দিয়ে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।

রাজারহাটে ৩য় শ্রেনীর ছাত্রীর লাশ উদ্ধার
কুড়িগ্রামের রাজারহাটে ৩য় শ্রেনীর এক ছাত্রীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার সকালে শিশুর লাশটি ময়না তদন্তের জন্য কুড়িগ্রাম মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় রাজারহাট থানায় মামলা দায়ের করেছে নিহত শিশুটির পরিবার।
পুলিশ জানায়, উপজেলা ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়নের খিতাব খাঁ কামারপাড়া গ্রামের দুদু কুমার মালীর কন্যা ও খামার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রী সুমি রানী (১০) বুধবার বিকালে বাড়ীর পাশে বল খেলতে গিয়ে আর বাড়ী ফিরে আসেনি। তাকে অনেক খোঁজাখুঁজির পর বুধবার মধ্যরাতে ইব্রাহিম নামের এক ব্যক্তির পুকুরে লাশ দেখতে পায়া যায়। খবর পেয়ে রাজারহাট থানা পুলিশ রাত ৩টায় লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।
প্রত্যক্ষদশীরা জানান, লাশের শরীরের ডান চোখের উপরে এবং মুখের ওপরে কেটে গিয়ে রক্তাক্ত হয়েছে। এটি একটি হত্যাকান্ড বলে ধারনা করছে এলাকাবাসীরা।
নিহতের মা আতশী রানী সন্তান হারার বিলাপ করে বলেন, বুধবার বিকালে মেয়েটা মোর বল খেলতে গেল। আর ফিরে আসলো না। যেখানে বল খেলতে গেছে সেখানে বার বার দেখতে গেলাম তাকে পেলাম না। অথচ রাতে তাকে পাওয়া গেল পুকুরে। সে পুকুরে পড়ে গেলে জল খেত। কিন্তু ছাওয়ার পেটত কোন জল ঢুকে নাই।
বিষয়টি ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রবীন্দ্রনাথ কর্মকার নিশ্চিত করেছেন।
এ ব্যাপারে রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মোখলেসুর রহমান জানান, প্রাথমিকভাবে ইউডি মামলা নেয়া হয়েছে। ময়না তদন্ত রিপোর্টের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email