CC News

রাখাইনে পরিকল্পিতভাবে যৌন নির্যাতন করেছে মিয়ানমার: এপি

 
 

সিসি ডেস্ক, ১৩ ডিসেম্বর: মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে পরিকল্পিতভাবে রোহিঙ্গা নারীদের ওপর যৌন নির্যাতন চালানো হয়েছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস-এপি। বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা নারীদের সাক্ষাৎকারের ভিত্তিতে তৈরি প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এ তথ্য। প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে চরম নির্যাতনের শিকার হয়েছেন ১৩ থেকে ৩৫ বছর বয়সী নারীরা।
রাখাইনে রোহিঙ্গা নারীদের ওপর সেনাবাহিনীর যৌন নির্যাতনের অভিযোগ নতুন নয়। ২৫ আগস্ট রাজ্যটিতে নতুন করে সহিংসতা শুরুর পর আবারও সামনে আসে এ অভিযোগ।
বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের সাক্ষাৎকারের ভিত্তিতে বার্তা সংস্থা এপির প্রতিবেদন বলছে, ২০১৬ সালের অক্টোবর থেকে চলতি বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পরিকল্পিতভাবে যৌন নির্যাতন চালায় মিয়ানমারের সেনারা। ১৩ থেকে ৩৫ বছরের ২৯ জন নারী সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, চরম নির্যাতনের শিকার তারা। বলেছেন গণধর্ষণের কথাও।
এক নারী বলেন, এ কষ্ট আর সহ্য করা যাচ্ছে না। পারছি না চিকিৎসকের কাছেও যেতে। আমি সারারাত কেঁদেছি। এতটাই যন্ত্রণাদায়ক যে, প্রার্থনার জন্যও বসতে পারছি না।
ভুক্তভোগীদের একজন বলেন, সেনারা এসে ঘিরে ফেলে পুরো গ্রাম। তরুণীদের টেনেহিঁচড়ে ঘরের বাইরে নিয়ে ধর্ষণ করে। কয়েকজন এসে আমাকে মারতে থাকে এবং ছুরিকাঘাত করে। তারপর চোখ-মুখ বেঁধে ধর্ষণ করে। তখন মনে হয়েছিলো মারা যাচ্ছি।
অপমান, লজ্জা এবং প্রাণনাশের হুমকিতে নির্যাতনের অভিযোগ জানান না এসব নারী। এর ফলে জরুরি চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত ভুক্তভোগীরা। অনেকেই আক্রান্ত মরণব্যাধি এইডসে।
মেডিসিন্স সান্স ফ্রন্টিয়ার্সের জরুরি স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপক ক্রিস্টাল ভ্যান লিউয়েন বলেন, বেশির ভাগই এসেছেন ক্ষত সেরে ওঠার পর। এতে যৌনবাহিত সংক্রমণ এবং এইচআইভি প্রতিরোধের সামান্য সুযোগও আমরা পাইনি। গর্ভবতী অবস্থায়ও এসেছেন অনেকে।
আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা মেডিসিন্স সান্স ফ্রন্টিয়ার্স বলছে আগস্ট থেকে এ পর্যন্ত যৌন নির্যাতনের শিকার ১১৩ জনকে চিকিৎসা দিয়েছে তারা। এর মধ্যে এক-তৃতীয়াংশের বয়স ১৮ বছরের নিচে। এমনকি ৯ বছরের শিশুও ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে জানায় তারা।

Print Friendly, PDF & Email