CC News

দিনাজপুরে জাতীয় পতাকা উত্তোলন দিবস পালিত

 
 

দিনাজপুর প্রতিনিধি, ১৮ ডিসেম্বর: নানা আয়োজনের মধ্যদিয়ে আজ সোমবার দিনাজপুরে পালিত হয়েছে, জাতীয় পতাকা উত্তোলন দিবস। ১৯৭১ সালের ১৮ ডিসেম্বর এই দিনে দিনাজপুরের গোড়ে শহীদ বড় ময়দানে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। দিনাজপুরের বুকে প্রথম আনুষ্ঠানিকভাবে পতাকা উত্তোলন করেন বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ট সহচর ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এম. আব্দুর রহিম।
দিনটি উপলক্ষে আজ সকাল ১০টায় প্রথমেই জাতীয় সংঙ্গীতের মধ্যদিয়ে জাতীয় পতাকা উত্তোলন। এরপর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ট সহচর মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এম. আব্দুর রহিমের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বিভিন্ন রাজনৈতিক ও অরাজনৈতিক সংগঠন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি। অনুষ্ঠানে দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম,পুলিশ সুপার হামিদুর রহমান,অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) গোলাম রাব্বী, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুর রহমান, জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল লতিফ,শহর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক এস,এম,খালেকুজামান রাজু, কোতয়ালী আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ ঘোষ কাঞ্চনসহ বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
এছাড়াও দিনব্যাপী বিনামূল্যে চিকিৎসা ক্যাম্প, আলোচনা সভা, চিত্রাংকন ও মুক্তিযুদ্ধের গানের প্রতিযোগিতাসহ সংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
১৯৭১ সালের এই দিনে দীর্ঘ ৯ মাস রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধ শেষে ১৮ ডিসেম্বর সদ্য স্বাধীন দেশে দিনাজপুর গোর-এ-শহীদ বড় ময়দানে স্বাধীন বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা আনুষ্ঠানিকভাাবে উত্তোলন করেন মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও মুজিবনগর সরকারের পশ্চিমাঞ্চলীয় জোন-১ এর চেয়ারম্যান এম. আব্দুর রহিম এ্যাভোকেট এমপি। মহান মুক্তিযুদ্ধের অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে ঐতিহাসিক এই দিনটি উদযাপনের লক্ষ্যে আজ এম. আব্দুর রহিম সমাজকল্যাণ ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষণা কেন্দ্র, দিনাজপুর দিনাজপুর ইন্সটিটিউট প্রাঙ্গনে নানান কর্মসূচী গ্রহণ করে।
কর্মসূচীর মধ্যে ছিলো- সকাল ৯টায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন এবং মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ভাষা সৈনিক, বাংলাদেশের সংবিধান প্রণয়ন কমিটির অন্যতম সদস্য প্রয়াত জননেতা এম. আব্দুর রহিমের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন। সকাল ৯.৩০মি. স্বেচ্ছায় রক্ত দান ও বিনা মূল্যে চক্ষু, ডায়াবেটিক পরীক্ষাসহ চিকিৎসা ক্যাম্পের উদ্বোধন। বিকাল ৩টায় আলোচনা সভা। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করবেন এম. আব্দুর রহিম সমাজকল্যাণ ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষণা কেন্দ্রের সভাপতি প্রবীণ আইনজীবী আওয়ামীলীগ নেতা এ্যাডভোকেট আজিজুল ইসলাম জুগলু। চিত্রাংকন ও মুক্তিযুদ্ধের গানের প্রতিযোগিদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ। শেষে দেশ বরেণ্য প্রখ্যাত কণ্ঠশিল্পী জান্নাত-এ ফেরদৌসী লাকী’র গণজাগরণের গান ও স্থানীয় শিল্পীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর মুক্ত হয় বাংলাদেশ। তার আগে ১৪ ডিসেম্বর মুক্ত হয় দিনাজপুর জেলা শহর। জেলা শহর মুক্ত হলেও জেলার অন্য অনেক এলাকায় পাক হানাদার বাহিনী থাকার কারণে জেলা শহরে আসাও যথেষ্ট ঝুঁকিপূর্ণ ছিল। তবে ১৬ ডিসেম্বর পাক বাহিনী আত্মসমর্পন করার পর দিনাজপুর শহরে মানুষের ঢল নামে। ১৯৭১ সালের ১৮ ডিসেম্বর মুক্তস্বাধীন দিনাজপুর জেলায় আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলা-দেশের পতাকা উত্তোলন করা হয়। দিনাজপুর বড় ময়দানে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন পশ্চিমাঞ্চলীয় জোন-১ এর চেয়ারম্যান এম আব্দুর রহিম। এসময় ভারতীয় মিত্র বাহিনীর যৌথ কমান্ডার বিগ্রেডিয়ার ফরিদ ভার্টি ও কর্নেল শমসের সিং এর নেতৃত্বে একটি চৌকষ দল মুক্তিযোদ্ধা এবং ভারতীয় সৈন্যরা এম. আব্দুর রহিমকে গার্ড অব অনার প্রদান করেন। ঐতিহাসিক এই দিনটি স্মরণে দিনাজপুরে বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়েছে। দিনাজপুরের রাজনীতিতে অসামান্য অবদান রাখায় এম. আব্দুর রহিমের মুক্তিযুদ্ধে অবদান নিয়ে স্মৃতি চারণ করা হবে। এভাবে পতাকা উত্তোলন দিবসে এম. আব্দুর রহিম আমাদের নয়নের সম্মুখে না থাকলেও নয়নের মাঝখানে ঠাই করে নিয়েছেন। উল্লেখ্য গত ৪ঠা সেপ্টেম্বর’১৬ তিনি আমাদের সকলকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেছেন।

Print Friendly, PDF & Email