CC News

পরকীয়া থেকে ফেরাতে চীনে লাভ হাসপাতাল!

 
 

সিসি ডেস্ক: বিবাহিত কোন ব্যক্তির (নারী বা পুরুষ) স্বামী বা স্ত্রী ছাড়া অন্য কোন ব্যক্তির সঙ্গে বিবাহোত্তর বা বিবাহবহির্ভূত প্রেম, যৌন সম্পর্ক ও যৌন কর্মকাণ্ড হলো পরকীয়া। বিশ্বের প্রায় দেশেই পরকীয়ার প্রবণতা বেড়েই চলেছে। এর মধ্যে বেশি সমস্যায় পড়েছে চীন।

পরকীয়া থেকে ফেরাতে চীনে একটি হাসপাতাল খোলা হয়েছে। পরকীয়া বিষয়টি নিয়ে খুবই সমস্যায় পড়ে গেছে চীন। অবস্থা এমন পর্যায়ে চলে গেছে যে, পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়া মানুষকে ফিরিয়ে আনতে হাসপাতালসহ পরামর্শক প্রতিষ্ঠান খোলা হয়েছে দেশটিতে। এ ধরনের প্রতিষ্ঠানের ব্যবসাও রমরমা।

অবিশ্বস্ত স্বামী বা স্ত্রীকে পরকীয়া থেকে ফেরানোর এসব প্রতিষ্ঠানের পোশাকি নাম ‘মিসট্রেস ডিসপেলিং’। অর্থাৎ এই প্রক্রিয়ায় গোপন প্রেমিক-প্রেমিকাদের সরিয়ে দেওয়া হয়। এই প্রতিষ্ঠানগুলোকে নিয়ে বেশ লাভজনক একটি ‘শিল্প’ গড়ে উঠেছে।

এমনই একটি প্রতিষ্ঠানের নাম ‘ওয়েইকিং লাভ হসপিটাল’। সাংহাইয়ে এর খ্যাতি বেশ। সেখানে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মধ্যবয়সী এক নারী বিবিসিকে জানান, নিজের অভিজ্ঞতার কথা। দাম্পত্য জীবনে সমস্যার মুখোমুখি হয়ে ‘ওয়েইকিং লাভ হসপিটালে’ এসেছিলেন তিনি। তার স্বামী পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েছিলেন। তখন দুজনের মধ্যে বেশ ঝগড়া হয়েছিল। কোনোভাবেই সন্দেহ মিটছিল না। শেষে হাসপাতালে আসা।

ওই মধ্যবয়সী নারীর আরো জানান, এই হাসপাতাল তাকে সুখী দাম্পত্য জীবনের সূত্রগুলো শিখিয়ে দিয়েছে, ‘আমি আগে সম্পর্কটিকে শুধু বিয়ে ভেবেছিলাম। এখানে আসার পর মনে হচ্ছে, এটি আরো বেশি কিছু। আমি বুঝতে শিখেছি যে, আমাদের এখনকার দাম্পত্য জীবনই সত্যিকারের জীবন।’

এই প্রতিষ্ঠান থেকে বেশ কয়েক সপ্তাহ যে পরামর্শ নেন, তার বর্ণনায় যেটা দাঁড়ায় তা হলো, তাকে শেখানো হয়েছে কীভাবে আরো ইতিবাচক, আরো দায়িত্বশীল ও ভালো স্ত্রী হয়ে ওঠা যায়।

স্বামীকে পথভ্রষ্ট হওয়া থেকে ফিরিয়ে বৈবাহিক সম্পর্ক আবারো কীভাবে মধুর করা যায়, সেই গোপন রহস্য নারীদের বাতলে দেন ওয়েইকিংয়ের প্রতিষ্ঠাতাদের একজন মিং লি। অনেক ক্ষেত্রে সমস্যা অনেক গভীরে চলে যায় এবং স্বামীর মন বিক্ষিপ্ত হয়।

তাদেরই একজন ওই নারী বলেন, ‘আমি যখন সম্পর্কের বিষয়টি ধরতে পারলাম, তখন স্বামীর সঙ্গে বিবাদে জড়িয়ে পড়লাম। আমরা খুব বাজেভাবে ঝগড়া করলাম, আমি তাকে প্রশ্ন করলাম, এত বছর ধরে আমি তোমার সঙ্গে আছি তারপরেও কেন এমনটা করলে? প্রথম পর্যায়ে সে দোষ স্বীকার করল। কিন্তু ঝগড়াঝাটির পর সে আমার সঙ্গে আর কথা বলতে চাইত না। তখন আমি সহায়তার জন্য এখানে আসি।’

এরপর স্বামীর জীবন থেকে ওই নারীকে তাড়াতে ওয়েইকিংকে টাকা দেন তিনি। এক্ষেত্রে লোক লাগিয়ে ২৪ বছর বয়সী ওই সহকারীকে বোঝানো হয়, দ্বিগুণ বয়সের ওই ব্যক্তির চেয়ে আরো ভালো কাউকে তিনি পেয়ে যাবেন।

এজন্য কয়েক হাজার ডলার খরচ হলেও প্রতারক স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদের চেয়ে এটাই ভালো হয়েছে বলে মনে করেন ওই নারী। তিনি বলেন, ‘আমরা অনেক দিন ধরে একসঙ্গে। আমি এসব কিছুকে হারাতে চাই না। আমি কখনও বিচ্ছেদের কথা ভাবিনি।

১৭ বছর আগে মিং লির সঙ্গে মিলে ‘লাভ হাসপাতাল’ গড়ে তুলেছিলেন শু শিন। এ পর্যন্ত ১০ লাখের বেশি গ্রাহককে সেবা দিয়েছেন তারা।

শু শিন জানান, ‘মিসট্রেস’ তাড়াতে ৩৩টি কৌশল অবলম্বন করেন তারা।

তিনি বলেন, বিবাহিত জীবনে সব ধরনের সমস্যা থাকে এবং তার মধ্যে একটি অন্য কারো সঙ্গে সম্পর্ক। এটা খুবই গুরুতর। পরিবার এবং সমাজের স্থিতিশীলতার জন্যও এটা খারাপ।’

শু শিন তাদের চারটি কৌশলের কথা জানান : ওই নারীকে অন্য কারো প্রেমে ফেলা, স্বামীর বসকে রাজি করিয়ে কর্মস্থল বদল করে তাকে অন্য কোনো জেলায় নিয়োজিত করা, পরিবার ও বন্ধুদের দিয়ে হস্তক্ষেপ করানো এবং স্বামীর বদনাম ও বংশগতভাবে পাওয়া জটিল কোনো অসুখের কথা বলে তার প্রতি ওই নারীর মন বিষিয়ে তোলা। অপর কৌশলগুলো সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এগুলো ব্যবসার গোপন বিষয়। মিডিয়ায় আমরা এগুলো বলতে পারি না।’

চীনে আরো অনেক প্রতিষ্ঠান এবং কয়েকজন মিলে দলবেঁধে সমস্যাগ্রস্ত নারীদের এ ধরনের সেবা দিচ্ছেন বলে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়।

দাই পেং জুন নামে এ ধরনের সেবাদাতা একজনের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, চীনের অনেক সম্পদশালী ব্যক্তিই স্ত্রীর বাইরে আরেকজন ‘উপপত্নী’ রাখাকে স্বাভাবিক মনে করেন।

চেয়ারম্যান মাও জে দংয়ের আমলে সম্পদশালীদের দীর্ঘদিনের ওই চর্চাকে অবৈধ ঘোষণা করা হয়। বিয়ে আইনেও নারীর সমান অধিকার দেওয়া হয়। কিন্তু ১৯৭৬ সালে মাওয়ের মৃত্যুর পর ধীরে ধীরে ক্ষমতাসীন অনেক কমিউনিস্ট নেতাসহ ধনী ও প্রভাবশালী অনেকে পূর্বপুরুষদের ওই পথে হাঁটছেন।

সম্প্রতি প্রকাশিত একটি সরকারি জরিপে দেখা গেছে, চীনে বর্তমান প্রেসিডেন্টের আমলে দুর্নীতির দায়ে সাজাপ্রাপ্ত সরকারি কর্মীদের ৯৫ শতাংশেরই এক বা একাধিক পরকীয়া আছে।

চীনে অবস্থা এখন এমন দাঁড়িয়েছে যে, পরকীয়া থেকে ফেরানোর এসব প্রতিষ্ঠান শিগগিরই সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জের তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানে পরিণত হচ্ছে। লেখক ও সামাজিক বিশ্লেষক ঝ্যাং লিজিয়া বলেন, এমন পরিস্থিতির অন্যতম কারণ দেশটির বিবাহবিচ্ছেদ–সংক্রান্ত বর্তমান আইন। ২০১১ সাল থেকে কার্যকর নতুন আইন অনুযায়ী বিবাহবিচ্ছেদের পর সাবেক স্ত্রীকে সম্পদের ভাগ দিতে হচ্ছে না স্বামীদের।

Print Friendly, PDF & Email