CC News

স্বপ্ন ফিরবে বাড়ি………….

 
 

সিসি নিউজ, ০১ জানুয়ারি : ‘নতুন বইয়ের গন্ধ শুঁকে ফুলের মতো ফুটব, বর্ণমালার গরব নিয়ে আকাশ জুড়ে উঠব’-এই স্লোগানকে সামনে রেখে পাঠ্যপুস্তক উৎসব দিবসের শুরু হয়েছে।
শিশুদের উচ্ছ্বাস নতুন বইয়ের গন্ধ শুঁকে, দেশব্যাপী আজ পালিত হবে জাতীয় পাঠ্যপুস্তক উৎসব।  শীতের পরশমাখা নতুন দিনের স্নিগ্ধ সকালে ৪ কোটি ৩৭ লাখ ৬ হাজার ৮৯৫ জন কোমলমতি শিক্ষার্থীর হাতে তুলে দেওয়া হবে নতুন শ্রেণির নতুন বই।  রাঙা বই ক্ষুদে হাতে করে বাড়ি ফিরবে মা-বাবার স্বপ্ন। স্কুলে স্কুলে নতুন বই বিতরণের এ উৎসবকে কেন্দ্র করে শিক্ষার্থীদের চোখে মুখেে এখন উচ্ছ্বাস, আনন্দ।
এ বছর বিভিন্ন স্তরের ৪ কোটি ৩৭ লাখ ৬ হাজার ৮৯৫ জন শিক্ষার্থীর মাঝে ৩৫ কোটি ৪২ লাখ ৯০ হাজার ১৬২ কপি পাঠ্যপুস্তক বিতরণ করা হবে।
ন্যাশনাল কারিকুলাম এন্ড টেক্সট বুক বোর্ডের সদস্য অধ্যাপক মো. মশিউজ্জামান জানান, সারাদেশে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পাঠ্যপুস্তক উৎসব পালনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। ২০১৮ শিক্ষা বর্ষের শুরুতে প্রাক-প্রাথমিক, প্রাথমিক ইবতেদায়ি, দাখিল, এসএসসি ভোকেশনাল, কারিগরি ও মাধ্যমিক স্তরের ৪ কোটি ৩৭ লাখ ৬ হাজার ৮৯৫ জন শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে বিতরণের লক্ষ্যে ৩৫ কোটি ৪২ লাখ ৯০ হাজার ১৬২ কপি পাঠ্যপুস্তক মুদ্রণ, বাঁধাই করে জেলা উপজেলায় পাঠানো হয়েছে। দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ৯৬৩ জন শিক্ষার্থীর জন্য ব্রেইল পদ্ধতির ৮ হাজার ৪০৫ কপি পাঠ্যপুস্তক বিতরণ করা হবে বলেও জানান তিনি।
মশিউজ্জামান জানান, ২০১৮ শিক্ষাবর্ষে প্রথম বারের মতো প্রাথমিক স্তরের ১ম শ্রেণির ৫টি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জন্য (চাকমা, মারমা, গারো, সাদরি ও ত্রিপুরা) ২৫ হাজার ৩৫৭ জন্য শিক্ষার্থীর মাঝে ৭৯ হাজার ৯৯২ কপি পাঠ্যপুস্তক বিতরণ করা হবে।
এছাড়াও প্রাক-প্রাথমিক স্তরে ৩২ হাজার ৯৪৯ শিক্ষার্থীর জন্য ৬৯ হাজার ২৮৪ কপি মাতৃভাষায় রচিত পাঠ্যপুস্তক মুদ্রণ করা হয়েছে।
তিনি জানান, ২০১৭ সালের মাধ্যমিক পর্যায়ের ৫৬টি পাঠ্যপুস্তকের জন্য প্রায় ৪৬ লাখ শিক্ষক শিক্ষাকার্যক্রম নির্দেশিকা প্রতিটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসায় ২ সেট করে বিনামূল্যে সরবরাহ করা হয়েছে। ২০১৮ সালে অবশিষ্ঠ ১৫টি বিষয়ের নির্দেশিকা সরবরাহ করা হয়েছে।
প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে রাজধানীর মিরপুরের ন্যাশনাল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়েও এই উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। আশপাশের কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা এতে অংশ নিয়েছে।রাজধানীর কেন্দ্রীয় অনুষ্ঠানের পাশাপাশি দেশের মাধ্যমিক স্তরের প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এ উৎসব পালিত হবে। বিভাগ, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উৎসবে উপস্থিত থাকবে।

Print Friendly, PDF & Email