CC News

রসিক জয়ে জাপায় নতুন প্রাণসঞ্চার হয়েছে : এরশাদ

 
 

ঢাকা, ৯ জানুয়ারী: রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের পর জাতীয় পার্টিতে ‘নতুন প্রাণের সঞ্চার’ হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ। আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারির মহাসমাবেশ এবং আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে দলকে সংগঠিত করতে জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীদেরকে আরো মনযোগী হওয়ার নির্দেশ দেন তিনি।

মঙ্গলবার রাজধানীর কাকরাইলে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে জাতীয় পার্টির এক যৌথ সভায় এরশাদ আরো বলেন, দেশের বর্তমান অবস্থা ভালো মনে হয় না। আমার মনে হয় সামনে আবারো একটা অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে যাচ্ছে। কিন্তু আমরা যদি শক্তিশালী হই, তাহলে কিছুই ভয় করি না। দলকে শক্তিশালী করতে হবে। আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি মহাসমাবেশ। এখন পর্যন্ত আমরা কারো সাথে কথা বলিনি। আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি আমরা দেখাতে চাই- আমরা শক্তিশালী দল।

এখন কথা হচ্ছে, আমরা প্রস্তুত কী না। আমরা টাকাপয়সার কথা চিন্তা করছি না। তোমরাও টাকা পয়সার কথা চিন্তা কোরো না। জীবনমরণ সংগ্রাম আমাদের, এই সংগ্রামে জয়ী হতে হবে। আমার জীবনের শেষ নির্বাচন। জাতীয় পার্টিকে ক্ষমতায় দেখে যেতে চাই। তার আগে মরতে চাই না। আল্লাহর কাছে একটা আবেদন করি- জাতীয় পার্টিকে ক্ষমতায় নেয়ার পর আমি আর নির্বাচন করব না, পলিটিক্স করব না। কবরে শুয়ে তোমাদের জন্য দোয়া করব।

এরশাদ বলেন, একটা কথা মনে রাখবে, দুর্বলের সাথে কেউ হাত মেলায় না। আমার ফাইনাল কথা- শক্তি সঞ্চয় করো। হাত এগিয়ে আসবে। শক্তি সঞ্চয় করার দায়িত্ব কাদের? তোমাদের। শক্তি প্রদর্শন করার সময় কবে? ১৫ ফেব্রুয়ারি। কত লোক দরকার? ৫ লাখ। এখন তোমরা আমাকে কথা দিয়ে যাও আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি তোমরা ৫ লাখ লোক জোগাড় করে আনবে। যদি করতে পারো, ক্ষমতায় যাওয়া নিশ্চিত আমাদের জন্য।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ৩৭ টি মামলা হয়েছে। আমার বিরুদ্ধে হয়েছিল ৪২ টি। মানে আরো ৫ টা বাকি আছে। একটা গল্প মনে পড়লো। একটা ছেলে তার বাবাকে বাড়ি থেকে বের করে দেবে, ঘাড় ধরে নিয়ে গেছে রাস্তায়। তো বাপ বলল, আমার বাবাকে এই পর্যন্ত আনসিলাম, এর আগে আর যাইস না। কথাটা মনে করিয়ে দিলাম।

সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গা, শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু, দলের মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, এসএম ফয়সল চিশতী এবং কেন্দ্রীয় নির্বাহী ও অন্যান্য বিভিন্ন শাখা কমিটির নেতাকর্মীরা।

Print Friendly, PDF & Email