CC News

সৈয়দপুরে মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কাদের পরিবারের অক্ষেপ

 
 

এম আর মহসিন, ১৬ জানুয়ারী: আমি আর কাউকে বলবনা আমার বাবা মুক্তিযোদ্ধা ছিল। কারন আমরা মানুষ হিসেবে স্থানিয় চেয়ারম্যান-মেম্বারদের কাছে বিধবা মা ঘুরে একটি বিধবা ভাতার কার্ড কিংবা শীতে কাতর হলেও একটি গরম কাপড় পাইনি। মনে হয় আমরা মানুষই না। এ কথাগুলো বলতে বলতে হাউ-মাউ করে কাদতে লাগলেন সৈয়দপুরের মিস্ত্রিপাড়া এলাকায় বসবাসকারি মৃত মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কাদেরের সন্তান মোঃ ফারুক(২৬)। গত মঙ্গলবার সকালে সৈয়দপুরের এ মুক্তিযোদ্ধার বাড়িতে গিয়ে তাদের কুশল বিনিময় কালে তিনি এ প্রতিবেদকের কাছে তাদের পরিবারের করুনবস্থার কথাগুলো এভাবে বলেন বীরযোদ্ধার শ্রমিক সন্তান। এ সময় তার বিধমা মা মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কাদেরের স্ত্রী ফিরোজা বেগমের কথা হলে তিনি জানান, ২০১০ সালে স্বামী ক্যান্সারে আক্রান্ত হলে বিভিন্ন জায়গায় সাহায্যের আবেদন করে সাড়া পাননি। এতে বাড়িতেই বিনা চিকিৎসায় তার স্বামীর মৃত্যু হয়। ওই সময় তিন মেয়ে স্কুলে পড়ার সময় তাদের পিতার চিকিৎসা ও খাবারের যোগানে বাড়ি সংলগ্ন তারিক গুল ফ্যাক্টরিতে গুলের পাউডার ডিব্বায় ভরা কাজ করি। এরপর তাদের পিতা মারা গেলে আর তাদের স্কুলে যাওয়া হয়নি। তবে গুল কারখানার তামাক পাতার গুড়া ভরা কাজ বাদ দিয়ে উল্টরা ইপিজেডের পরচুলা কারখানায় শ্রমিকের কাজ করছে। অতি সকালে বের হয়ে রাত ১০টা পর্যন্ত ২ মেয়ে কাজ শেষে ফেরেন। এতে তাদেও বিয়ের বয়স পেরিয়ে যাওয়ার ভীত সন্ত্রস্ত মুক্তিযোদ্ধার জায়া। বড় মেয়ে সেলিনা (২৪) আক্ষেপে সাথে জানান, এসব বলে কি লাভ। আমার বাবা সুস্থ্য থাকতে কোন কিছুই পান নি। আর তার মৃত্যুর পর কেউ দেখবে? তাই না পাওয়ার বিষয়টিকে তারা স্বাভাবিকভাবে মেনে পিতার আদর্শে বেচে থাকার জীবন সংগ্রামে প্রেরণা সাথেই লড়ে যাচ্ছেন এ মুক্তিসেনার কন্যাদ্বয়।
বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা কল্যান ট্রাস্ট এর একটি সূত্র জানায়, দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার ভাবকির চাউলিয়া গ্রামের মৃত. রুস্তম আলীর পুত্র আব্দুল কাদের। দেশ মাতৃকার ডাকে ১৯৭১ সালে ভারতে প্রশিক্ষণ নিয়ে তিনি ৬নং সেক্টরে খাদেুমল বাশারের নেতৃত্বে যুদ্ধ অংশ নেন। যা মুক্তিযোদ্ধাদের নামের তালিকায় ৫ খন্ডের ক্রমিক নম্বর ৩৬৭১১ এবং মুক্তিবার্তা এ এফনং ১৬২/৫ লিপিবদ্ধ পাওয়া যায়।
আবুল কাশেম নামে এক এলাকাবাসী জানান, স্বাধীনতার পর এ মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দপুর শুরুতে মিস্ত্রিপাড়ায় ভাড়া বাড়িতে এবং পরে ৪ শতকের ওপর কুড়েঘর নির্মাণ করে বসবাস করছেন। তাই সকলেই আব্দুল কাদেরকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে চিনতো।
এনিয়ে সৈয়দপুর পৌরসভার মেয়র আমজাদ হোসেন সরকার জানান, আব্দুল কাদের একজন বীরযোদ্ধা বিষয়ে শুনেছি। তবে সরকারের পৃথক মন্ত্রণালয় থাকতে কেন যে তিনি উপেক্ষিত এটা ঠিক জানি না।
এদিকে গত ১৯ মে সৈয়দপুর উপজেলার মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই-বাছাই অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় যাচাই বাছাই কমিটির সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা সংসদ নীলফামারী জেলা কমান্ডার ফজলুল হক, সদস্য সচিব সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু ছালেহ মোঃ মুসা জঙ্গী ও সদস্যবৃন্দ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের প্রতিনিধি মোঃ ওয়াহেদ আলী, জেলা কমান্ডারের প্রতিনিধি সৈয়দপুর কমান্ডের সহকারী কমান্ডার মোঃ আজিজার চৌধুরী, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার একরামূল হক, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের প্রতিনিধি মোঃ তাজুল ইসলাম ও জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল (জামুকা)প্রতিনিধি আব্দুল গফুর যাচাই-বাছাই কওে সাক্ষাত গ্রহন করেন। এ সময় এ মুক্তিযোদ্ধার পক্ষে কেউ উপস্থিত না থাকায় বিক্ষিপ্ত ভাবেই চাপা পড়ে তার বীরত্বগাথা অবদান।
সৈয়দপুর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার একরামুল হক মৃত মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কাদেরের পরিবারের প্রতি সমবেদনা প্রকাশ করে বলেন, তার পরিবার থেকে কেউ যোগাযোগ না করায় আমরা কিছুই করতে পারিনি। এমনকি নতুন তালিকায় নামটি সংযোগ করা হয়নি। তবে তার পরিবারের সদস্যরা আসলে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট দফতওে আবারো তার নাম অর্ন্তভুক্তির আবেদন করব।

Print Friendly, PDF & Email