CC News

সৈয়দপুরে বিচার না পেয়ে ধর্ষিতার পরিবারের আত্মহত্যার হুমকি

 
 

সিসি নিউজ, ১৮ জানুয়ারী: নীলফামারীর সৈয়দপুরে মেধাবী স্কুল ছাত্রী ধর্ষণ মামলার দুই মাস অতিবাহিত হলেও পুলিশ ধর্ষককে গ্রেফতার না করায় হতাশ হয়ে পড়েছে পরিবারের সদস্যরা। তারা অনতিবিলম্বে ধর্ষকের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবী করেছে। অন্যথায় আত্মহত্যার হুমকি দিয়েছে পরিবারটি।
তাদের অভিযোগ, পুলিশ অজ্ঞাত কারনে ধর্ষককে গ্রেফতারে টালবাহানা করছে। আর এ সুযোগে ধর্ষকপক্ষের লোকজন মামলা প্রত্যাহারের জন্য অহরহ হুমকি দিয়ে আসছে।
ধর্ষকের নাম মো. রুবেল (২২)। তার বাবার নাম সামসুল হক মিস্ত্রি। বাড়ি উপজেলার কাশিরাম ইউনিয়নের পশ্চিম বেলপুকুর গ্রামের কাগজীপাড়ায়।
বুধবার সন্ধ্যায় শহরের মিডিয়া হাউসে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ধর্ষিতার বাবা ওইসব অভিযোগ করেন। এ সময় ধর্ষিতাসহ তার বাবা, মা, ভাই ও এলাকার বিশিষ্টজনরা উপস্থিত ছিলেন।
ধর্ষিতার বাবা ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ কর্মী সাইকেল মেরামতকারী মো: খলিল অভিযোগে জানান, গত বছরের ২০ নভেম্বর রাতে প্রতিবেশী লম্পট রুবেল শোবার ঘরে থাকা আমার মেধাবী স্কুল পড়ুয়া মেয়েকে ধর্ষণ করে। এদিন নিকট আত্মীয় মারা যাওয়ায় বাড়িতে মেয়েকে একে রেখে আমরা আত্মীয়ের বাড়িতে যাই। আর এই সুযোগে রুবেল আমার মেয়েকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এ সময় মেয়ের আর্তচিৎকারে প্রতিবেশীরা ছুটে এসে ধর্ষককে হাতেনাতে ধরে আটকে রাখেন। খবর পেয়ে ধর্ষক রুবেলের মা লায়লা বেগম স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার মো. আলমকে নিয়ে বাড়িতে এসে তালা ভেঙ্গে ছেলেকে ছিনিয়ে নিয়ে যায়। পরে পরিস্থিতি নিজের পক্ষে নিতে ধর্ষক রুবেলের বাবা সামসুল মিস্ত্রি, মা লায়লা বেগম ও ইউপি সদস্য মো. আলম মেয়েকে বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন। এ নিয়ে ২১ নভেম্বর এলাকায় সালিশ বৈঠক বসে। কিন্তু সিদ্ধান্ত ছাড়াই সেদিন সালিশ বৈঠক শেষ হয়। অবশেষে ন্যায় বিচারের আশায় মেয়ের শারীরিক প্রতিবন্ধী মা বাদী হয়ে গত ২৩ নভেম্বর ধর্ষক রুবেলকে অভিযুক্ত করে থানায় ধর্ষণ মামলা করেন। গত ২৫ নভেম্বর ধর্ষিতার মেডিকেল টেস্ট সম্পন্ন করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে ধর্ষিতার পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করেন, মামলায় তদন্ত কর্মকর্তা থানার উপ-পরিদর্শক মোনতাসের হোসেন মাসুম দ্রুত আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় ধর্ষক রুবেল আত্মগোপনে চলে যায়। পুলিশ তাকে গ্রেফতারে অভিযান পরিচালনা না করে এখন উল্টোপথে হাটছে। পুলিশের এমন আচরণে ন্যায় বিচার পাওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। লোক লজ্জায় প্রায় এক ঘরে হয়ে পড়েছেন তারা। ঘটনার শিকার মেয়ে নবম শ্রেণির ফাইনাল পরীক্ষাতেও অংশ নিতে পারেনি, বন্ধ হয়ে গেছে তার পড়ালেখা। তবে ন্যায় বিচারের অন্যথা হলে পরিবারের সকল সদস্য একযোগে আত্মহত্যা করতে বাধ্য হবো। বিচার বঞ্চিত হয়ে বেঁচে থাকার কোন অর্থ হয় না। তাই অবিলম্বে ধর্ষক রুবেলকে গ্রেফতার ও ন্যায় বিচার পেতে মানবতার জননী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেছে ধর্ষিতার পরিবার।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মোনতাসের হোসেন মাসুম মুঠোফোনে বাদীর অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, আসামীকে গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে, তবে এক্ষেত্রে মামলার বাদীর সহযোগিতা প্রয়োজন।
স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান এনামুল হক চৌধুরী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, স্থানীয়ভাবে ঘটনার সুরাহা করতে চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু কোন পক্ষই আমার কথা শোনেনি।

কথা হয় সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শাহজাহান পাশার সাথে। তিনি সিসি নিউজকে জানান, ঘটনার পর স্থানীয় ভাবে মিমাংসার চেষ্টা করতে গিয়ে বাদী পক্ষ মামলা করতে দেরি করেছে। আর এ সুযোগেই আসামী আত্মগোপন করেছে। তবে আসামীকে গ্রেফতারে পুলিশের জোর চেষ্টা চলছে।

Print Friendly, PDF & Email