CC News

নারী নির্যাতনে হিন্দু পুরুষরা মুসলিমদের চেয়ে এগিয়ে

 
 

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ৩০ জানুয়ারী: ভারতীয় সরকারি পারিবারিক স্বাস্থ্য সমীক্ষায় দেখা গেছে, ওই দেশে হিন্দু ধর্মাবলম্বী পরিবারগুলোয় নারী নির্যাতনের ঘটনা আনুপাতিক হারে মুসলিম, খ্রিস্টান, শিখসহ অন্যান্য ধর্মীয় গোষ্ঠীর চেয়ে বেশি ঘটে। সম্প্রতি দেশটির সুপ্রিম কোর্ট কর্তৃক মুসলিম সম্প্রদায়ের ধর্মীয় প্রথা ‘তিন তালাক’ অবৈধ ঘোষণার পর বর্তমানে ভারতজুড়ে মুসলিম নারীদের অধিকার নিয়ে আগের যে কোনো সময়ের চেয়ে বেশি আলোচনা চলছে।

বিজেপি সরকার ও গণমাধ্যমগুলো ওই আলোচনা ভুলভাবে জনগণের সামনে তুলে ধরছে। তারা দেখাচ্ছেন, বর্তমানে ভারতের মুসলিম নারীরা চরমভাবে নির্যাতিত ও নিপীড়িত। সেখানে পুরষের দ্বারা ‘তিন তালাক’ তাদের জন্য এক ধরনের ‘ভয়াবহ অস্ত্র’ হিসেবে কাজ করছে। ফলে বিজেপির পাস করা তালাক বিরোধী আইন স্বামীদের অত্যাচার থেকে তাদের রক্ষা করতে পারবে। অথচ সম্প্রতি প্রকাশিত জাতীয় পারিবারিক স্বাস্থ্য সমীক্ষা রিপোর্ট ২০১৫-১৬ সালের তথ্য উল্টো কথা বলছে।

সমীক্ষায় প্রকাশিত তথ্যে দেখা গেছে, মুসলিম নারীদের তুলনায় অন্য সম্প্রদায়ের নারীরাই অপেক্ষাকৃত বেশি বৈষম্য ও সহিংসতার স্বীকার হন। অবশ্য তাদের স্বামীদের কাছে ‌তিন তালাক’ নামক অস্ত্র নেই।

ওই সমীক্ষা রিপোর্টে দেখা গেছে, ২৭ শতাংশ নারী তাদের বয়স ১৫ বছর হওয়ার আগেই শারীরিক নির্যাতনের স্বীকার হয় এবং ৬ শতাংশ বাকি জীবনে যৌন নিপীড়নের শিকার হন। সেখানে গর্ভবতীদের মধ্যে ৩ শতাংশ অত্যাচার-নির্যাতনের শিকার হন।

বৈবাহিক সহিংসতার দিক দিয়ে দেখা গেছে, ৩১ শতাংশ নারী শারীরিক কিংবা মানসিক অত্যাচার ও যৌন নিপীড়নের শিকার হন। বৈবাহিক সূত্রে নির্যাতনের বিভিন্ন প্রকারের মধ্যে ২১ শতাংশ নারীকে শারীরিক ও ১৩ শতাংশকে মানসিক নির্যাতনের মুখোমুখি হতে হয়। এছাড়া যৌন নিপীড়নের শিকার হন ৬ শতাংশ বিবাহিত নারী।

ওই সমীক্ষায় বিভিন্ন সম্প্রাদায়ের মধ্যের পারিবারিক সহিংসতার চিত্রও আলাদাভাবে তুলে ধরা হয়েছে। এখানে দেখা গেছে, ১৫ থেকে ৪৯ বছর বয়সী হিন্দু নারীদের মধ্যে ২৮ দশমিক ৭ শতাংশ শারীরিক অত্যাচারের শিকার হন যেখানে মুসলিম নারীদের ক্ষেত্রে এর অনুপাত ২১ দশমিক ৫ ও খ্রিস্টান নারীদের ২১ দশমিক ৪ শতাংশ। ধর্মীয় সম্প্রদায়ের মধ্যে সব থেকে ভালো অবস্থানে আছেন জৈন নারীরা। তাদের ক্ষেত্রে ৯ দশমিক ৩ শতাংশ শারীরিক অত্যাচারের শিকার হন।

সূত্র : ভারতীয় জাতীয় পারিবারিক স্বাস্থ্য সমীক্ষা ২০১৫-১৬

আবার ভারতীয় নারীদের ওপর গবেষণায় দেখা গেছে, নিম্নবর্ণের নারীদের ওপর সহিংসতার মাত্রা সব থেকে বেশি। ৩৩ দশমিক ৩ শতাংশ নিম্নবর্ণ নারীরা শারীরিক অত্যাচারের শিকার হন। সেখানে দলিত নারীদের মধ্যে ২৯ দশমিক ২ ও উপজাতিদের মধ্যে ২৬ দশমিক ৩ শতাংশ ওই অত্যাচারের মুখে পড়ে।

এমনকি বিবাহ-পরবর্তীও নারীরা বিভিন্ন অত্যাচারের মুখোমুখি হন যার অধিকাংশ স্বামীর দ্বারাই হয়।

বৈবাহিক সহিংসতার তথ্য বিশ্লষণে দেখা গেছে, মুসলিম ও হিন্দু নারী- উভয়েই সমান অনুপাতে মানসিক অত্যাচারের শিকার। কিন্তু শারীরিক অত্যাচারের দিক দিয়ে যেখানে ২৮ দশমিক ৮ শতাংশ হিন্দু নারী শারীরিক অত্যাচারের শিকার হন সেখানে মুসলিমদের ২৩ দশমিক ৫ শতাংশ। আবার যৌন নিপীড়নে হিন্দু নারীদের ক্ষেত্রে ৬ দশমিক ৬ ও মুসলিমদের ৫ দশমিক ৭ শতাংশ।

ভারতে তিন তালাক নিয়ে বিতর্কের সময় বলা হয়েছিল, ওই আইনের ফলে মুসলিম সমাজে লৈঙ্গিক সমতার তৈরি হবে। কিন্তু সমীক্ষায় দেখা গেছে, অন্যান্য সম্প্রদায়ের পুরুষদের মধ্যেও নারীদের নিয়ন্ত্রণের প্রবণতা রয়েছে।

এছাড়া ২১ দশমিক ১ শতাংশ হিন্দু নারী অভিযোগ করেন, স্বামীরা তাদের নারী বান্ধবীদের দেখা করায় বাঁধা দেন। অন্যদিকে ১৮ দশমিক ২ শতাংশ মুসলিম নারী এমন অভিযোগ করেছেন। এদিক থেকে জৈন সম্প্রদায়ের নারীর শোচনীয় অবস্থায় রয়েছেন। ১৯ শতাংশ জৈন নারীদের তাদের বান্ধবীদের সঙ্গে দেখা করার ক্ষেত্রে বাধা দেয়া হয়। তাদের থেকে শিখ নারীরা স্বাধীন। শিখদের ক্ষেত্রে বাধাপ্রাপ্ত হওয়ার অনুপাত ৯ দশমিক ৯ শতাংশ।

সমীক্ষায় দেখা গেছে, ১৫ দশমিক ৭ শতাংশ হিন্দু নারীকে তাদের স্বামীরা পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে বাধা দেয়। মুসলিম নারীদের ১৩ দশমিক ৫ শতাংশ ওই অভিযোগ করেন। ওই অভিযোগের দিক দিয়ে শীর্ষে আছে জৈন নারীরা। জৈন সমাজের শতকরা ১৮ দশমিক ২ শতাংশ নারীদের স্বামীরা তাদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করায় বাধা দেন।

অর্থকড়ি নিয়ে বিশ্বাসের দিক দিয়েও হিন্দু পরিবারের তুলনায় মুসলিম পরিবারে নারীদের বেশি বিশ্বাস করা হয়। এক্ষেত্রে নারীদের সবচেয়ে বেশি আস্থার পাত্র হিসেবে দেখা হয় বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী পরিবারগুলোয়।

উৎসঃ   the joban
Print Friendly, PDF & Email