CC News

জয়পুরহাটে সেচ বন্ধ থাকায় বিপাক্ষে ২ শতাধিক কৃষক

 
 

জয়পুরহাট প্রতিনিধি, ০৭ ফেব্রুয়ারী: জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার মহিতুর গ্রামে একটি গভীর নলকুপের পরিচালনাকারীদের দু’ পক্ষের কোন্দলে প্রায় ২ ’শ বিঘা জমিতে সেচ ব্যবস্থা বন্ধ হওয়ার ফলে ফসলহানীর আশঙ্কায় মহা বিপাকে পরেছেন কৃষকরা। অন্যদিকে এই ঘটনাকে কেন্দ্রে করে দু পক্ষের রক্তক্ষয়ি সংঘর্ষের আশংকায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতি হতে পারে বলে মন্তব্য করছেন এলাকাবাসি।

এলাকাবাসি ও স্থানীয় কৃষকের সাথে কথা বলে জানা যায়,আক্কেলপুর উপজেলার গোপিনাথপুর ইউনিয়নের মহিতুর গ্রামের মাঠে কৃষি সেচ কাজের জন্য ১৯৮৩ সালে ১৩ জন অংশিদার নিয়ে একটি গভীর নলকুপ স্থাপিত হয়। সম্প্রতি ওই গভীর নলকুপের মালিকানা নিয়ে দু’ পক্ষের কোন্দল চরমে উঠেছে। এক পক্ষে রয়েছেন জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও ওই এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তি বলে পরিচিত গোলাম মস্তফাসহ ৩ জন এবং অপর পক্ষে রয়েছেন অবশিষ্ট ১০ জন গ্রামবাসী। ।

গভীর নলকুপের হিসাব নিকাশসহ মালিকানার নানা শর্ত নিয়ে চলমান দ্বন্দ চরম আকার ধারন করায় সেচ কার্য বন্ধ হলে ওই গভীর নলকুপের সেচ সুবিধার আওতায় থাকা প্রায় ১৫০ বিঘা জমির প্রায় ২ শতাধিক কৃষক।

মহিতুর গ্রামের আবু সুফিয়ান, পাশর্^বর্তী হিজলী পাড়্ াগ্রামের আইয়ূব আলী, একই গ্রামের বাবর আলীসহ ওই গভীর নলকুপের সেচ কার্যের আওতাধীন অনেক কৃষক জানান, তারা দীর্ঘ দিন যাবৎ ওই গভীর নলকুপ থেকে সেচ সুবিধা নিয়ে চাষাবাদ করে আসছেন। বর্তমানে মালিকানা নিয়ে কোন্দল হওয়ার কারনে গভীর নলকুপটি বন্ধ রয়েছে। এ অবস্থায় বর্তমানে তারা সরিষাসহ বিভিন্ন শাক-সবজির ক্ষেতে পানি সেচ দিতে পারছেন না। ফলে তাদের জমির ফসল হানির আশঙ্কা দিন দিন প্রকট হচ্ছে, পাশাপাশি আসন্ন বোরো মৌসূমে সেচ না দিতে পারলে সব চেয়ে বড় ফসল বোরো ধান রোপন করতে পারবেন না।

এ ব্যাপারে উভয় পক্ষের পরষ্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে। গভীর নলকুপটির ১৩ অংশিদারের মধ্যে বড় ১০ অংশের দাবীদার মহিতুর গ্রামের এমদাদুল মন্ডল, আব্দুল লতীফ মন্ডল, আজাহার আলী প্রাং সহ সকলেই অভিযোগে জানান, মাত্র ৩ অংশিদারের প্রধান একই গ্রামের গোলাম মোস্তফা জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তি, তিনি ভাড়া করা সন্ত্রাসীদের নিয়ে গভীর নলকুপটি জবর দখল করে নেন। গভীর নলকুপের মালিকানা দাবী করা তো দুরের কথা সেখানে গেলে তাদের প্রানে মেরে ফেলে দেওয়া হবে বলেও হুমকি দিচ্ছেন জেলা আওয়ামীলীগ নেতা গোলাম মোস্তফা।

অপর দিকে অভিযোগ অস্বীকার করে গোলাম মোস্তফা জানান, ১৯৮৩ সাল থেকে প্রায় ৩০ বছরেরও বেশী সময় ধরে ওই ১০ জন অংশিদার গভীর নলকুপটি পরিচালনা করে আসলেও কোন আয়-ব্যায়ের হিসাব দেননি বলে গভীর নলকুপটিতে অচলাবস্থা দেখা দিয়েছে।

এসব ঘটনায় উদ্বিগ্ন পাশর্^বর্তী মোাহম্মদপুর গ্রামের মন্তাজ আলী, আলাউদ্দিনসহ নিরীহ এলাকাবাসীরা জানান, গভীর নলকুপের মালিকানা নিয়ে কোন্দলের জের ধরে যে কোন সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা রয়েছে। এ সংকটের উত্তরনে প্রশাসনের হস্তক্ষেপের মাধ্যমে সুষ্ঠু সমাধানের পাশাপাশি গভীর নলকুপটি চালু করে আবাদী জমিতে সেচ ব্যবস্থা স্বাভাবিক করার অনুরোধও জানান তারা।

এ ব্যাপারে জয়পুরহাট বিএডিসি’র সেচ বিভাগের প্রধান ও সহকারী প্রকৌশলী এ কে এম জিন্নাত রসুল জানান, তিনি বিষয়টি শুনেছেন, অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়ে সেচ ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email