CC News

বদরগঞ্জে পানের বাজারে আগুন

 
 

আজমল হক আদিল, বদরগঞ্জ: পান উত্তরাঞ্চলের মানুষদের কাছে পরিচিত একটি নাম। কারন ভাত সহ যে কোন খাবারের পরে পান না খেলে এ অঞ্চলের মানুষ যেন অস্বস্তিতে ভোগে। আবার শখের বশবর্তি হয়েও এ অঞ্চলের মানুষ পান খায়। যে কোন বাড়িতে বেড়াতে গেলেও অতিথিকে কমপক্ষে পান খেতে দেয়া হয়। সেই পান বাজারে হঠাৎ গত এক সপ্তাহ ধরে যেন আগুন লেগেছে। এতে করে ভোক্তারা পড়েছেন বিপাকে।
আজ শনিবার(১০ফেব্রুয়ারি)সকালে সরেজমিন বাজার ঘুরে দেখা যায়, ছোট ছোট পান বিক্রি হচ্ছে ১ শত ৫০টাকা শ”দরে(৬০টি পান)। একটু ভালো পান বিক্রি হচ্ছে ২শত টাকা শ”দরে। আর বড় ও ভালো পান বিক্রি হচ্ছে ৩ শত টাকা দরে।
এ দিকে,খিলি পান দোকানগুলিতে ছোট পান বিক্রি হচ্ছে ৫ টাকা দরে। অনেকে আবার পানের দাম বৃদ্ধিতে খিলি পান বিক্রি বন্ধ করে দিয়েছেন।
কথা হয় পান ব্যবসায়ি কমল রায়ের(৪০) সাথে,তিনি জানান,বদরগঞ্জ মুলতঃ পান আমদানি নির্ভর এলাকা। এ সময়টাতে এখানে শুধুমাত্র রাজশাহি,বিরামপুর,ভেড়ামারা হতে পান আসে। তবে এবার ঘন কুয়াশার কারনে পানের বরজে ছত্রাকের আক্রমন বেশি হওয়ায় পান নষ্ট হয়ে গিয়েছে। এ জন্য মোকামেই পানের দাম বেশি।
বাজারে পান ক্রয় করতে আসা ক্রেতা নওশাদ আলি জানান,হঠাৎ করে পানের বাজার কেন বৃদ্ধি পেল বুঝতে পারলাম না। আড়তদাররা অধিক মুনাফার জন্য দাম বৃদ্ধি করলো নাকি মোকামে পান সংকট। তিনি আরও বলেন,বাজারে পর্যাপ্ত পানের সরবরাহ থাকলেও পানের দামে কমতি নেই।
বদরগঞ্জ খিলি পান সমিতির সাবেক সভাপতি মোহন দাস জানান,গত এক সপ্তাহ ধরে পানের দাম শ’য়ে(৬০টি)দ্বিগুন হয়েছে। এ কারনে খিলি পান ৫ টাকার নিচে বিক্রি করা যাচ্ছে না। যা আগে আমরা ২ হতে ৩ টাকায় বিক্রি করেছি।
তিনি আরও জানান,পানের দাম অস্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধির কারনে খিলি পান বিক্রি অনেক কমে গেছে এবং অনেক খিলি পান দোকান বন্ধ হয়ে গেছে।
বদরগঞ্জ পান ব্যবসায়ি সমিতির সভাপতি মোন্নাফ হোসেন জানান,মোকামেই দাম বেশি হওয়াতে পানের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে তিনি দাম বৃদ্ধিতে ব্যবসায়িদের কারসাজির কথা অস্বীকার করেন।

Print Friendly, PDF & Email