CC News

ভালো ফলন দামে খুশি, জয়পুরহাটের আলু চাষী

 
 

জয়পুরহাট প্রতিনিধি, ১১ ফেব্রুয়ারী: দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম আলু উৎপাদনকারি অঞ্চল জয়পুরহাটে শুরু হয়েছে আগাম জাতের আলু উত্তোলন। চলতি মৌসুমে বাম্পার ফলন ও ভালো দর পেয়ে উচ্ছসিত কৃষক। দরপতন না ঘটলে এবার গত কয়েক বছরের লোকসান কাটিয়ে আবারও ঘুরে দাড়াবেন এমনই আশাবাদ কৃষকদের।
জয়পুরহাট কৃষি বিভাগ সুত্রে জানা গেছে, জেলায় এবার ৪২ হাজার হেক্টর জমিতে আলু চাষ হয়েছে যা গত বছরের চেয়ে ২ হাজার হেক্টর বেশী । আলু উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৮ লাখ ৬৪ হাজার মেট্রিকটন আর উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে প্রায় সাড়ে ৯ লাখ মেট্রিকটন। জয়পুরহাট সদর,পাঁচবিবি, আক্কেলপুর,ক্ষেতলাল ও কালাইয়ের আলু চাষীরা আগে ভাগেই দ্রুত বর্ধনশীল জাতের গ্রানোলা, লরা, মিউজিকা, ক্যারেজ, রোমানা ও ফাটা পাকরি চাষ করেছেন। জেলার দিগন্ত জুড়ে এখন আলু ক্ষেতের সবুজ সমারোহ। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় ফলন ভালো হওয়ার সম্ভাবনা উজ্জল হয়ে উঠছে দিন দিন। তাই তারা ব্যস্ত সময় পার করছেন আলু ক্ষেতগুলোতে। আর এরই মধ্যে আগাম জাতের আলু ঘরে তোলার কাজ শুরু করেছেন অনেকেই। ইতোমধ্যে তারা ক্ষেত থেকে আলু উত্তোলন ও বিক্রি শুরু করেছেন।
কৃষকরা বলছেন, প্রতি বিঘা (৩৩ শতক) জমিতে বীজ, জমি চাষ, সার-ওষুধ, সেচ, নিড়ানো, বাঁধাইসহ আলু উত্তোলনে চাষীদের উৎপাদন খরচ হয়েছে গড়ে ১৩ হাজার টাকা। চলতি মৌসুমে আগাম জাতের আলু উত্তোলন করে প্রতি শতাংশে ফলন পাওয়া গেছে ৫০ থেকে ৬০ কেজি। অর্থাৎ বিঘা প্রতি ফলন হয়েছে ৪০ থেকে ৫০ মণ । উত্তোলিত এসব আলু প্রকারভেদে চাষীরা প্রতি মণ আলু বিক্রি করছেন ৪’শ থেকে সাড়ে ৪শ’ টাকা দরে। এতে করে কৃষক প্রতি বিঘায় লাভ করছেন ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা।
ক্ষেতলাল উপজেলার দাশড়া গ্রামের সোনা মিয়া জানান, অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার ফলন যেমন বাম্পার হয়েছে দামও পাওয়া যাচ্ছে ভালো। আলু আবাদ করে বিগত কয়েক বছরে যে লোকসানের ঘানি টানতে হয়েছে তা হয়তো এবার অনেকটা পুষিয়ে যাবে।
কালাই উপজেলার হাতিয়র গ্রামের গোলাম রব্বানী জানান, এবার তিনি ৪ বিঘা জমিতে মিউজিকা জাতের আগাম আলু তুলেছেন। ফলন পেয়েছেন ১শ ৯০মণ। ৩৩ শতকের প্রতি বিঘায় তার খরচ হয় ১৪ হাজার টাকা। ৪ বিঘা জমির আলু তুলে সব খরচ বাদে লাভ করেছেন ৫৫ হাজার টাকা।
সদর উপজেলার বানিয়া পাড়া গ্রামের হারুন মন্ডল জানান, ৫৭ শতক আলু তুলে ৪৪০ টাকা মণ দরে বিক্রি করেছেন। আলু ক্ষেতে ২৫ হাজার টাকা খরচ করে আলু বিক্রি করেছেন ৬২ হাজার টাকা। সব খরচ বাদে তার লাভ হয়েছে ৩৮ হাজার টাকা।
আক্কেলপুর উপজেলার জামালগঞ্জ আলু ব্যবসায়ী সোহেল আলী, কালাই উপজেলার হাতেম মিয়া ও ক্ষেতলাল উপজেলার মান্নান মন্ডল জানান, বর্তমানে জাতভেদে আলু ৪০০- ৪৫০ টাকা দরে কেনা-বেচা হচ্ছে। এবার কৃষকরা আলুর ভাল দাম পাবে বলেও মন্তব্য করেন তারা ।
জয়পুরহাট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর উপ-পরিচালক সুধেন্দ্রনাথ রায় জানান, গত বন্যার পানি নেমে যেতে ও মাটি শুকাতে দেরী হওয়ায় জেলার আলু চাষীরা দেরীতে আলু রোপন করেছিলেন, তারপরও তারা এবার কৃষি বিভাগের পরামর্শে আলু চাষ করে বাম্পার ফলন পেয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় চলতি মৌসুমে আলুর বাম্পার ফলন হয়েছে। আলুর ভাল দাম পাওয়ায় কৃষকরা খুশি।

Print Friendly, PDF & Email