CC News

চাকরিচ্যুত ৬৭৪ আনসারকে চাকরিতে পুনর্বহালে রায়

 
 

ঢাকা, ১৮ ফেব্রুয়ারি : আনসার বিদ্রোহে অংশ নেওয়ার অভিযোগ থেকে খালাস পাওয়াদের মধ্যে যাদের বয়স ও শারীরিক সক্ষমতা এখনো আছে এমন আরো ৬৭৪ জনকে চাকরিতে পুনর্বহালের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। তবে যাদের চাকরির বয়স শেষে হয়ে গেছে বা শারীরিক-মানসিকভাবে চাকরি করতে অক্ষম তারা যতদিন চাকরি ছিলেন ততদিনের পেনশন সুবিধা দিতে বলেছেন আদালত।

এ বিষয়ে জারি করা রুল যথাযথ ঘোষণা করে রবিবার  বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি মো. বদরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই রায় ঘোষণা করেন।

আদালতে আনসার সদস্যদের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার সৈয়দ মো. জাহাঙ্গীর হোসেন, অ্যাডভোকেট সাহাবুদ্দীন খান লার্জ ও অ্যাডভোকেট রাশেদুল ইসলাম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল সূচীরা হোসাইন।

এর আগেও দুই দফায় হাইকোর্টের একই বেঞ্চ ১ হাজার ৭৩৬ জন চাকরিচ্যুত আনসার সদস্যকে  চাকরিতে পুনর্বহালের নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ১৯৯৪ সালে আনসার বাহিনীর সদস্যদের মধ্যে বিভিন্ন দাবি-দাওয়া আদায়ের লক্ষ্যে অসন্তোষ দেখা দেয়, যা পরবর্তীকালে বিদ্রোহের রূপ নেয়। পরে সেনাবাহিনী বিদ্রোহ দমন করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ্ ঘটনার পর কিছু সংখ্যক আনসার সদস্য পলাতক হন। এ বিষয়ে গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্টের আলোকে বিদ্রোহে জড়িত থাকার অভিযোগে ২ হাজার ৪৯৬ জন আনসার সদস্যকে অ-অঙ্গীভূত (চাকরিচ্যুত) করা হয়। তাদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করা হয়। পরবর্তীকালে বিভিন্ন সময়ে মামলার অভিযোগ থেকে আনসার সদস্যরা খালাস পান।

২ হাজার ৪৯৬ আনসার সদস্যের মধ্যে  ১ হাজার ৭৩৬ জন চাকরিচ্যুত আনসার সদস্য চাকরিতে পুনর্বহাল ও প্রাপ্ত সুযোগ-সুবিধা চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন। রিটের শুনানি নিয়ে  আদালত বিভিন্ন সময়ে রুল জারি করেন।

সেই ধারাবাহিকতায় আদালত আজ ৬৭৪ জন চাকরিচ্যুতকে চাকরিতে পুনর্বহালের নির্দেশ দেন।

Print Friendly, PDF & Email