CC News

সৈয়দপুর বিমানবন্দর সম্প্রসারনের খবরে বাড়ি তৈরীর হিড়িক

 
 

।। এম এ মোমেন ।। নীলফামারীর সৈয়দপুর বিমানবন্দর সম্প্রসারনের খবরে দক্ষিণ অংশে ঘর বাড়ী ও বৃক্ষ রোপনের প্রতিযোগিতায় নেমেছে জমির মালিকরা। শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারী) সরেজমিনে গেলে এ দৃশ্য দেখা যায়।
সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী সৈয়দপুর বিমানবন্দরকে আঞ্চলিক বিমানবন্দরে উন্নীত করণ কার্যক্রম শুরুর খবর ছড়িয়ে পড়লে দক্ষিণ অংশে রাতারাতি ঘরবাড়ী নির্মাণ ও বৃক্ষ রোপন শুরু করেন জমির মালিকরা। সৈয়দপুর বিমানবন্দর আঞ্চলিক মানের হলে উপকৃত হবে সৈয়দপুরসহ এ জনপদের ব্যবসায়ীসহ খেটে খাওয়া মানুষরা। এক শ্রেণির কতিপয় ব্যক্তি এ কার্যক্রমকে ব্যাঘাত সৃষ্টি করতে জমির মালিকের সাথে আর্তাত করে তাদের পরামর্শে জমির মালিকরা রাতারাতি আবাদি ও পরিত্যক্ত জমিগুলোতে নিম্নমানের ইট ও নাম মাত্র সিমেন্ট দিয়ে ঘর নিমার্ণ করছে। কেউবা টিনের ছাউনি ও টিনের বেড়া দিয়ে ঘর নির্মাণ করে রেখেছে। যেগুলোতে কোন লোক বসবাস করেনা।

অপরদিকে অনেক জমিতে বৃক্ষ রোপনের হিড়িক লেগেছে। বিমানবন্দর আধুনিকায়ন হতে যাচ্ছে শুনে সুযোগ সন্ধানিরা ক্ষতিপুরণ বাবদ বেশি টাকার পাওয়ার লোভে এ কাজ করছে। ওই এলাকার কয়েকজন দাদন ব্যবসায়ী জমির মালিকদের কাছ থেকে কয়েক বছরের চুক্তিতে জমি নিয়ে এ ঘর নির্মাণ ও বৃক্ষ রোপন করছে। তারা মূলত জমির মালিকদের চেয়ে বেশি টাকার আশায় এ কাজ করছে। তাদের উদ্যেশ্য বিমানবন্দরের কাজে ব্যাঘাত সৃষ্টি ও সরকারকে এসব দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা আদায় করা।
ওই এলাকায় গেলে কয়েকজন দাদন ব্যবসায়ীর সাথে কথা বলার চেষ্টা করলে তারা সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে মুখ খুলবেনা বলে পালিয়ে যায়। তবে বিমানবন্দর সুত্রে জানা গেছে আঞ্চলিক বিমানবন্দর ঘোষণার পর বিমানবন্দরের আশে পাশে ভিডিও দৃশ্য ধারণ করা হয়েছে। ওই ফুটেজ দেখে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে।
এ ব্যাপারে সৈয়দপুর বিমানবন্দর ম্যানেজার শাহীন আলম জানান, আঞ্চলিক বিমানবন্দর ঘোষণার পর জমি অধিগ্রহনের জন্য বিমানবন্দরের আশে পাশে এলাকায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ মিলে দুইটি টিম সার্ভে করে। ওই সার্ভে দেখে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। বর্তমানে অবৈধভাবে যেসব ঘর নির্মাণ ও বৃক্ষ রোপন করেছে এগুলো করে কোন লাভ হবে না। তবে তিনি বিমানবন্দরের উন্নয়নের স্বার্থে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

Print Friendly, PDF & Email