CC News

আত্রাইয়ে বাঁশের তৈরি শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন

 
 

নাজমুল হক নাহিদ, আত্রাই: নওগাঁর আত্রাইয়ে একুশে ফেব্রুয়ারি ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে উপজেলার মুনিয়ারী ইউনিয়নের ১০২ নং মুনিয়ারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিজেদের হাতে বাঁশ দিয়ে তৈরী শহীদ মিনারে ভাষা শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন কোমলমতি শিশু-কিশোর, শিক্ষক ও এলাকাবাসী। ১৯৫২ সালের এ দিনে সালাম, রফিক, জব্বার, বরকতেরা বুকের রক্ত দিয়ে মায়ের ভাষা বাংলাকে রক্ষা করেছিলেন। তাদের সেই জ্বালানো দীপশিখাই একাত্তরে অধিক উজ্জ্বল হয়ে রূপ নিয়েছিলো স্বাধীনতায়।
তাই যথাযোগ্য মর্যাদায় ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতেই আত্রাই উপজেলার ১০২ নম্বার মুনিয়ারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থী তৈরি করেছে ‘বাঁশের শহীদ মিনার।’
বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) সকালে সরেজমিনে দেখা যায়, বাঁশের তৈরি ওই শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের স্মরণ করেছে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও কর্মচারীরা।
পশ্চিম শ্রীমঙ্গল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মোট শিক্ষার্থী রয়েছে ২৮৬জন। শিক্ষক-শিক্ষিকার সংখ্যা মাত্র তিনজন। তারা হলেন- মো: জাহাঙ্গীর আলম (ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিক), সহকারি শিক্ষক শিক্ষিকা মন্ডলীরা হলেন মো:আব্দুস ছালাম ও মোছা: ছাবিনা ইয়াসমিন।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমাদের বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা নিজ উদ্যোগে কয়েকজন শিক্ষার্থীকে সঙ্গে নিয়ে এ বাঁশের শহীদ মিনার তৈরি করেছিলাম। এ শহীদ মিনার তৈরি আগে আমরা দেয়ালের মধ্যে শহীদ মিনার অঙ্কন করে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করতাম।
এলাকাবাসীকে উদ্ধুদ্ধ করতেই আমাদের এমন শহীদ মিনার নির্মাণ করা। স্থানীয় উদ্যোগে এলাকাবাসীকে সঙ্গে নিয়ে মৌখিক নির্দেশনায় এ শহীদ মিনার নির্মাণ করা রয়েছে বলেও জানান প্রধান শিক্ষক।
সহকারী শিক্ষক মো: আব্দুস ছালাম বলেন, এলাকাবাসীর কাছে থেকে বাঁশ সংগ্রহ করে তৈরি করা হয়েছে এ শহীদ মিনার। ক্লাসের ফাঁকে ফাঁকে প্রায় তিন সপ্তাহ ধরে তৈরি করা হয় এটি।
স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব মো: ইসমাইল হোসেন বলেন, আমাদের মনিয়ারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় অবহেলিত এখানে শুধু শহীদ মিনার না শিক্ষকেরও সংকট। অভিভাবকদের মধ্যে জাতীয় দিবসগুলোর প্রতি তেমন সচেতনাও নেই। নিজ উদ্যোগে নানান উন্নয়নমূলক কাজ করছি। শিগগিরই এখানে স্থায়ী একটি শহীদ মিনার স্থাপনের চেষ্টা চলছে।
এব্যাপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোছা: রোখছানা আনিছা বলেন, স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণের কোনো সরকারি বরাদ্দ আমাদের কাছে নেই। তবে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের আন্তরিক সহযোগিতায় আমার প্রাথমিক স্কুলগুলোর উন্নয়ন কাজ করার চেষ্টা করছি।

Print Friendly, PDF & Email