CC News

ঝিনুকেই জীবিকা নির্বাহ

 
 

আজমল হক আদিল, বদরগঞ্জ: ফাগুনের এই অগ্নি ঝরা দিনে বেশ গরম অনুভুত হয়। এ সময়টাতে নদীর তীরে বেড়াতে কার না ভালো লাগে। রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার বুক চিড়ে বয়ে চলছে এক সময়ের প্রমত্তা যমুনেশ^রি নদী। সময়ের পথ পরিক্রমায় প্রমত্তা যমুনেশ^রি তার ভরা যৌবন হারিয়ে ফেললেও কিছুটা জৌলুস এখনও ধরে রেখেছে। তাই এখানকার মানুষ স্নিগ্ধ কোমল নির্মল হাওয়ার আশার ভীড় জমায় যমুনেশ্বরী নদীর তীরে।
সংবাদ সংগ্রহ ও নির্মল হাওয়ার আশায় গত শনিবার (২৪ফেব্রুয়ারি) বিকেলে চলে যাই যমুনেশ^রি নদীর তীরে। একটু দুর হতে দেখতে পাই বেশ কিছু নারী নদীর হাটু পানিতে নেমে, কি যেন কাজ করছেন ? তারা তাদের দু-হাত ডুবিয়ে পরে শাড়ির বাড়তি অংশে তা মজুদ করছেন।
নদীতে আর আগের মত তেমন দেশি মাছ নেই তবুও পানিতে নেমে নারীরা কি করছেন, কৌতুহল বশতঃ এ বিষয়টি দেখতেই আমিও পানিতে নেমে পড়ি। কাছে গিয়ে দেখি,বেশ কয়েকজন নারী নদীতে নেমে ঝিনুক সংগ্রহ করছেন আর তাদের শাড়ির বাড়তি অংশে তা মজুদ করছেন।
এ সময় কথা হয় নদীতে ঝিনুক সংগ্রহের কাজে ব্যস্ত নারী,উপজেলার দামোদরপুর ইউপির মোস্তফাপুর গুদামপাড়া গ্রামের বাসিন্দা স্মৃতি রানির(২৬)সাথে,তিনি জানান,আমরা গরীব মানুষ। কৃষি শ্রমিকের কাজ করি। এই সময়টাতে আমাদের কোন কাজ না থাকায় আমরা নদী হতে ঝিনুক সংগ্রহ করে বাড়িতে নিয়ে আসি। পরে আমার বাড়ি হতে চুন কারিগররা ও দিনাজপুর হতে পোল্ট্রি খামারিরা ৪শত টাকা মন দরে কিনে নিয়ে যায়। এ হতে যা আয় হয় তা দিয়ে কোন রকমে চলে আমার সংসার।
তিনি আরও জানান,সরকারি সাহায্য(ভাতা)সহযোগিতা আমরা পাই না। তাই কর্মহীন এই সময়টাতে আমরা নদীতে ঝিনুক সংগ্রহ ও বিক্রি করে জীবন বাঁচাই।
কথা হয়, একই এলাকার কাজলি রানি(২৫)সাথে,তিনি জানান, এক সময় আমার স্বামি কৃষি শ্রমিকের কাজ করতো,সে বর্তমানে গুরুতর অসুস্থ্য হয়ে বড়িতে বসে আসে। অভাব অনটনের সংসার। বাড়িতে কোন খাবার নেই। ঝিনুক সংগ্রহ করে,স্থানিয় যুগিচুন ব্যবসায়িদের কাছে বিক্রি করবো।
তিনি আরও বলেন,পানিতে নেমে কষ্ট করে ঝিনুক সংগ্রহ করতে কার ভালো লাগে ? কিন্তু কোন উপায় নেই। এই সময়টাতে একদিন ঝিনুক সংগ্রহ করে বিক্রি করতে না পারলে সন্তানদের নিয়ে না খেয়েই থাকতে হবে।
দামোদরপুর ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুল হক জানান,এ সময়টাতে আমার ইউপির কিছু নারী নদী হতে ঝিনুক সংগ্রহ করে তা বিক্রি করে।
তিনি আরও জানান,সবাইকে সরকারি সাহায্যের আওতায় আনতে আরও সময়ের প্রয়োজন।
বদরগঞ্জ মহিলা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ বিমলেন্দু সরকার জানান,এ সময়ে গ্রামে কোন কাজ না থাকায় দরিদ্র ঘরের নারীরা ঝিনুক কুঁড়িয়ে জীবিকা নির্বাহ করে। এই সকল হতদরিদ্র পরিবারগুলোকে সরকারি সাহায্যের আওতায় নিয়ে আসা উচিত।
বদরগঞ্জ উপজেলা সমাজসেবা অফিসার ওমর ফারুক জানান,আমি সদ্য যোগদান করেছি। এ ব্যাপারে আমি তেমন কিছু জানি না।

Print Friendly, PDF & Email