CC News

রাজবাড়ীতে নারী চিকিৎসককে গণধর্ষণ, আটক ৩

 
 

সিসি ডেস্ক, ২৫ ফেব্রুয়ারী: রাজবাড়ীতে এক নারী চিকিৎসক গণধর্ষণের স্বীকার হয়েছেন। এই অভিযোগে তিনজনকে আটক করেছে র‌্যাব।

আটককৃতরা হলো, রাজবাড়ী সদর উপজেলার খানখানাপুর ইউনিয়নের দত্তপাড়া গ্রামের আরশাদ মোল্লার ছেলে মামুন মোল্লা (২০), বসন্তপুর ইউনিয়নের মজলিশপুর গ্রামের মৃত মুন্নাফ সরদারের ছেলে হান্নান সরদার (৩০) ও মৃত আবুল মোল্লার ছেলে রানা মোল্লা (২৫)।

শনিবার রাত ৮টার দিকে ফরিদপুর র‌্যাব-৮ ক্যাম্পে ধর্ষিত ওই চিকিৎসক হাজির হয়ে বলেন, ৭জন মিলে পালাক্রমে তাকে গণধর্ষণ করে। শুক্রবার রাত ৯টার দিকে জেলা সদরের বসন্তপুর ইউনিয়নের মজলিশপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে বলেও জানান তিনি।

তিনি আরও বলেন, শুক্রবার বিকেল তিনটার দিকে ঢাকার গাবতলী থেকে ফরিদপুরের বাসে উঠেন। পাটুরিয়া ঘাটে এসে যানজট দেখে তিনি লঞ্চে পদ্মানদী পার হয়ে দৌলতদিয়া ঘাটে পৌছান। সেখান থেকে মাহেন্দ্র গাড়িতে করে রাত সাড়ে ৮টার দিকে গোয়ালন্দমোড়ে পৌছান। এরপর সেখান থেকে একটি ইজিবাইকে উঠেন তিনি। ওইসময় ইজিবাইকের পাশে আরও একটি ছেলে বসা ছিলো। ইজিবাইকটি বেশকিছু দূর যাওয়ার পর আরও একটি ছেলে উঠে। এরপর একটি নির্জন জায়গায় ইজিবাইকটি দাড় করিয়ে চালকসহ তিনজন তাকে থেকে নামতে বলে এবং মোবাইলসহ ব্যাগপত্র কেড়ে নেয়।

এসময় পরিস্থিতি খারাপ বুঝতে পেরে চিৎকার করতে গেলে তার মুখ চেপে ধরে রাস্তার ঢালে জঙ্গলের মধ্যে নিয়ে যায়। সেখানে ইজিবাইক চালকসহ ওই ৩জন তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে আরো ৪জন এসে পালাক্রমে তাকে ধর্ষণ করে। এভাবে মোট ৭জন তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়।

এরপর সেখান থেকে পালিয়ে স্থানীয় একটি বাড়িতে আশ্রয় নেন তিনি। এরপর ওই বাড়ির মালিক স্থানীয়দের সহযোগিতায় পুলিশকে খবর দেন।

র‌্যাব-৮ ফরিদপুর ক্যাম্পের দুই নম্বর কোম্পানির অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রইছ উদ্দিন বলেন, এ অভিযোগে ৩জনকে আটক করা হয়। পরে জিজ্ঞাসাবাদে তারা গণধর্ষণের কথা স্বীকার করে।

এ ঘটনায় ওই নারী চিকিৎসক বাদী হয়ে রাজবাড়ী সদর থানায় ধর্ষণের অভিযোগে একটি মামলা করেছেন বলেও জানান র‌্যাবের এই কর্মকর্তা।

Print Friendly, PDF & Email