CC News

সৈয়দপুরে শ্বশুরবাড়িতে জামাতার মৃত্যু: একদিন পর লাশ দাফন

 
 

সিসি নিউজ, ২৫ফেব্রুয়ারী: সৈয়দপুরের পল্লীতে শ্বশুর বাড়িতে রহস্যজনক মৃত্যুর একদিন পর এক ব্যক্তির লাশ দাফন করা হয়েছে। আজ (রবিবার) সকালে উপজেলার ২ নম্বর কাশিরাম বেলপুকুর ইউনিয়নের হাজারীহাট পাকাধরার পূর্বপাড়ায় নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাঁর লাশ দাফন করা হয়। নিহত ব্যক্তির নাম আবু কালাম (৩৫)। গত শুক্রবার দিবাগত গভীর রাতে একই উপজেলার খাতামধুপুর ইউনিয়নের খালিশা ফকিরপাড়ায় শ্বশুর বাড়িতে ওই ব্যক্তির রহস্যজনক মৃত্যু ঘটেছে। এ ঘটনায় সৈয়দপুর থানায় একটি অপমৃত্যু (ইউডি) মামলা দায়ের করা হয়েছে।
থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ২ নম্বর কাশিরাম বেলপুকুর ইউনিয়নের হাজারীহাট পাকাধরা পূর্বপাড়ায় রহিম উদ্দিনের ছেলে আবু কালাম। গত ১০/১২ বছর আগে একই উপজেলার খাতামধুপুর ইউনিয়নের খালিশা ফকিরপাড়ায় মতিয়ার রহমানের মেয়ে মোছা. তানজিলা বেগম ওরফে তারজি’র (২৯) সাথে তাঁর বিয়ে হয়। ওই দম্পতি দুই ছেলেমেয়ে রয়েছে। আবু কালাম পেশায় ছিলেন একজন ফেরিওয়ালা। গ্রামে গ্রামে ফেরি করে চুঁড়ি, ফুল-ফিতাসহ বিভিন্ন কসমেটিকস্ বিক্রি করতে তিনি। গৃহবধূ তানজি গত ৭/৮ দিন আগে ছেলেমেয়েকে নিয়ে বাবার বাড়িতে বেড়াতে যান।

এদিকে, গৃহবধূর স্বামী আবু কালাম গত শুক্রবার শ্বশুর বাড়িতে যান। রাতের খাওয়া-দাওয়া শেষে স্ত্রীকে নিয়ে যথারীতি শ্বশুর বাড়িতে ঘুমিয়ে পড়েন। গভীর রাতে শ্বশুর রাতে শ্বশুরবাড়িতে তাঁর রহস্যজনক মৃত্যু ঘটে। পরে তাঁর মৃত্যুর খবর পেয়ে সৈয়দপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে নীলফামারী আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। লাশের প্রাথমিক সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করেন সৈয়দপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. আব্দুল হাকিম। তিনি জানান, নিহতের শরীরে কোনভাবে মেরে ফেলার কোন রকম দাগ, আঘাত কিংবা আলামত পাওয়া যায়নি। তারপরও যেহেতু শ্বশুর বাড়িতে রাতে বেলায় ওই ব্যক্তি মারা গেছে, তাই সন্দেহ হওয়ায় এবং মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হতে লাশের ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলে তাঁর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। তিনি জানান, লাশের ময়না তদন্ত শেষে যথাযথ নিয়ম মেনে পরিবারের কাছে হস্তান্তর কর হয়।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ওই ব্যক্তির মৃত্যুকে তাঁর পরিবারের সদস্যরা সহজভাবে মেনে নিতে পারেননি। তারা অভিযোগ করেন শ্বশুরবাড়িতে তাকে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় তারা লিখিত অভিযোগ নিয়ে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করলেও পুলিশ নিতে গড়িমসি করতে থাকে। এ অবস্থায় রহস্যজনক মৃত্যু ব্যক্তির লাশ তাঁর বাড়িতে নিয়ে না গিয়ে স্থানীয় হাজারীহাট স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে রাখেন পরিবারের লোকজন। পরে গভীর রাত পর্যন্ত অনেক দেন দরবার শেষে থানা পুলিশ অভিযোগ গ্রহন করলে লাশ বাড়িতে নেয়া হয়। আর এ কারণে ওই মৃত্যু ব্যক্তির লাশ দাফনে বিলম্ব ঘটেছে বলে জানা গেছে।
সৈয়দপুর উপজেলার খাতামধুপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. জুয়েল চৌধুরী জানান, হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে ওই ব্যক্তির মারা গেছেন বলে ধারনা করা হয়। তারপরও সব রকম সন্দেহ দূর করতে আইন মোতাবেক লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে।
পরিবারের অভিযোগ নিতে গড়িমসির অভিযোগ অস্বীকার করে সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. শাহজাহান পাশা জানান, এ ঘটনায় থানায় একটি ইউডি মামলা দায়ের করা হয়েছে। মৃত্যুর ব্যক্তির পরিবারের লিখিত অভিযোগও গ্রহন করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়া সাপেক্ষে পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় আইনী পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

Print Friendly, PDF & Email