CC News

গ্রামীণ নারীদের ভাগ্য উন্নয়নের নিদর্শন উত্তরা ইপিজেড

 
 

সিসি নিউজ, ৮ মার্চ: চার বছর ধরে ১০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে উত্তরা রপ্তানী প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চলে ভেনচুরা নামক লেদার তৈরি কারখানায় কাজ করতে আসতেন দিনাজপুরের খানসামা উপজেলার গোয়ালডিহি ইউনিয়নের চকপাড়ার গৃহবধু খালেদা বেগম। ৫ বছর আগে পক্ষাঘাতগ্রস্ত হয়ে স্বামী খয়ের উদ্দিন মারা যাওয়ায় বিপাকে পড়ে খালেদা। দুই সন্তানকে নিয়ে অনাহারে-অর্ধাহারে একটি বছর দিনাতিপাত করে ওই গৃহবধু। অবশেষে দুই সন্তানকে লালন-পালনের জন্য বেছে নেন নিজের চেষ্টায় ইপিজেডে চাকুরী। অন্যের বাই-সাইকেলে কিংবা মটরসাইকেলে যাতায়াত করায় গ্রামের মানুষের সমালোচনার মুখে পড়লে নিজেই বাই-সাইকেল চালানো রপ্ত করে সাইকেল চালিয়ে কর্মস্থলে যেতেন তিনি। বর্তমানে তাঁর বড় ছেলে প্রিন্স হাসিমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে দশম শ্রেনীতে ও ছোট মেয়ে সুমাইয়া স্থানীয় একটি প্রাথমিকে পড়ছে। আন্তর্জাতিক নারী দিবসের আগের দিন বুধবার সকালে উত্তরা ইপিজেডের পকেট গেটে দাঁড়িয়ে এসব কথা বলছিলেন খালেদা।
খালেদার মতো নীলফামারীর উত্তরা ইপিজেডে চাকুরীর সুবাদে আশেপাশের ৮-১০টি ইউনিয়নের প্রায় ২০ হাজার নারীর ভাগ্যের উন্নয়ন ঘটেছে। পরিবর্তন হয়েছে তাদের যীবনযাত্রার মান। এছাড়া ইপিজেড কেন্দ্রীক প্রায় ৫শ দোকানপাট গড়ে উঠায় ব্যবসার প্রসার বেড়েছে। পাশাপাশি জমির দামও বেড়েছে শতগুণ।
ইপিজেড সংলগ্ন কাজীরহাটের ব্যবসায়ী মোকছেদুল ইসলাম জানান, আশেপাশের ইউনিয়নগুলোতে প্রায়ই ঘরে ঘরে চাকুরী হওয়ায় কৃষি শ্রমিকের সংকটে পড়েছে জমির মালিকরা। প্রতিদিন ৫শত টাকা মজুরীর বিনিময়ে মিলছে না কৃষি শ্রমিক। যেখানে এক শতক জমি মাত্র ২ হাজার টাকায় বিক্রি হতো, ইপিজেডের কারনে বর্তমানে এক শতক জমি দুই থেকে আড়াই লাখ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
নীলফামারী জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা রাফিয়া ইকবাল বলেন, পুরুষদের পাশাপাশি নারীরা বিভিন্ন কাজ শিখে তাদের জীবিকা নির্বাহ করলেও রয়েছে বেতন বৈষম্য। নারীদের সচেতনতা সৃষ্টির জন্য বিভিন্ন সভা-সেমিনার অব্যহত রয়েছে।
উল্লেখ্য যে, ১৯৯৬ সালে নীলফামারী সদর উপজেলার সংগলশী ইউনিয়নে গড়ে উঠে উত্তরা ইপিজেড। পুরোদমে সেটি চালু হয় ২০০১ সালে। বর্তমানে বর্তমানে ১২টি কোম্পানিতে ৩০ হাজার কর্মচারী কর্মরত রয়েছে। যার মধ্যে নারী শ্রমিকের সংখ্যা প্রায় ২০ হাজার।

Print Friendly, PDF & Email