CC News

আজ থেকে নীলফামারীতে জাতীয় রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মেলন শুরু

 
 

সিসি নিউজ, ৯ মার্চ: সংস্কৃতির আলোয় সাস্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদী উচ্চারণে আজ শুক্রবার থেকে নীলফামারীতে শুরু হবে জাতীয় রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মেলন। এবারের সম্মেলনে অংশ নেবে সারা দেশের সাত শতাধিক শিল্পী, সংগঠক ও সংস্কৃতিকর্মী। তিন দিন ব্যাপী সাঁইত্রিশতম এ সম্মেলনের আয়োজন করছে জাতীয় রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মিলন পরিষদ।

রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মিলন পরিষদের সপ্তত্রিংশ এ বার্ষিক অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে নীলফামারী হাই স্কুল মাঠে। আজ বিকেল সাড়ে ৪টায় তিন দিনের সম্মেলন উদ্বোধন করবেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। প্রধান অতিথি থাকবেন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিশ্বজিৎ ঘোষ। রবীন্দ্রপদক দিয়ে গুণী-সম্মাননা জানানো হবে রাজশাহীর প্রবীণ উচ্চাঙ্গসঙ্গীত শিল্পী মঞ্জুশ্রী রায় ও রংপুরের লোকসঙ্গীত শিল্পী উপেন্দ্রনাথ রায়কে। তিন দিনের সপ্তত্রিংশ বার্ষিক অধিবেশনে সহায়তা দিচ্ছে সংস্কৃতি ও বেঙ্গল গ্রুপ লিমিটেড।

তিন দিনেরই সান্ধ্য-অধিবেশন সাজানো হয়েছে গুণীজনের সুবচন রবিরশ্মি, আবৃত্তি, পাঠ, নৃত্য ও গান দিয়ে। সপ্তত্রিংশ অধিবেশনের দ্বিতীয় দিন শনিবার বিকাল চারটায় অনুষ্ঠিত হবে ‘মানবিক সমাজ গঠন’ বিষয়ক সেমিনার। এ বিষয়ে প্রবন্ধ রচনা করেছেন ড. আতিউর রহমান। সভাপতিত্ব করবেন জাতীয় রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মিলন পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি সন্জীদা খাতুন। আলোচনায় অংশ নেবেন অধ্যাপক শহিদুল ইসলাম ও অধ্যাপক দেবীপ্রসাদ রায়। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের চিত্রকর্মের প্রদর্শনীর পাশাপাশি সম্মেলনে থাকবে পরিষদের শাখাগুলোর এ যাবৎকাল পর্যন্ত পরিচালিত কার্যক্রমের উপস্থাপনা। বার্ষিক অধিবেশন উপলক্ষে যথারীতি প্রকাশিত হবে রবীন্দ্রনাথের সৃষ্টির নানা দিক নিয়ে বিশিষ্টজনদের লেখা প্রবন্ধের সংকলন ‘সঙ্গীত সংস্কৃতি’।

১৯৭৮ সালে যাত্রা শুরু করে জাতীয় রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মিলন পরিষদ্। কাজ শুরু হয়েছিল জাহিদুর রহিম স্মৃতি পরিষদ্ নামে। দেশব্যাপী বৃহত্তর পরিসরে কর্মকান্ড পরিচালনা করার লক্ষ্য নিয়ে পরবর্তীকালে বাঙালীর চিরকালের সঙ্গী রবীন্দ্রনাথের নাম যুক্ত করে সংগঠনের নাম করা হয় জাতীয় রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মিলন পরিষদ্। এই পরিষদের মূল লক্ষ্যটি হচ্ছে বাঙালীর আপন সংস্কৃতির চর্চা ও প্রসার। কিন্তু বিগত কয়েক দশকে নানা অশুভ ঘটনার ফলে বাঙালী সংস্কৃতির নির্বিঘ্ন বিকাশ এবং মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ী বাংলাদেশের মৌলিক ভাবাদর্শ ঘা খেয়ে চলেছে। স্বাধীন দেশে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসীরা যখন আত্মতুষ্ট, তখন পাকিস্তান আমলের মতোই ধর্মের উগ্রবাদী ব্যাখ্যা নিয়ে ধূর্ততার সাথে পরিকল্পিতভাবে অগ্রসর হয়েছে সাম্প্রদায়িক সংস্কৃতিবিনাশী শক্তি, তৃণমূল পর্যায়ে কাজ করে চলেছে, প্রভাবিত করছে সমাজের ধর্মবিশ্বাসী সরল মানুষদের। ধর্মবিশ্বাস ও জাতি পরিচয়ের মধ্যে জীবনাচারের ক্ষেত্রে কোনটিকে প্রাধান্য দেবে তা নিয়ে তারা দ্বিধাগ্রস্ত। রবীন্দ্রনাথ তার নানা রচনা ও ভাষণে সমাজে মানবিক মূল্যবোধ প্রতিষ্ঠার ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন, সমাজের নানা ঘাত-প্রতিঘাতের ক্ষত সারিয়ে তুলবার পরামর্শ রেখেছেন। আমরা বিশ্বাস করি, রবীন্দ্রনাথের কর্ম ও জীবন থেকে শিক্ষা নিয়ে রাষ্ট্র ও সমাজে মুক্তিযুদ্ধের ভাবাদর্শ প্রতিষ্ঠা এবং বাঙালী সংস্কৃতির নির্বিঘ্ন যাত্রা নিশ্চিত করা সম্ভব। ডাক এসেছে সবাই মিলে শাশ্বত মানবযাত্রার অংশী হতে। গৃহকোণে বসে ব্যক্তিগত কাজে নিরত থাকবার দিন নয় এখন। সকল চিত্তকায়া একাগ্র করে অন্ধকার পেরিয়ে কেবল এগিয়ে-চলা এবার। মুক্তির অভিযাত্রায় শরিক হব আমরা। বিঘ্নজয়ী গান গাইতে গাইতে বিপুল ভবিষ্যতের পথে ছুটে চলবার আকাঙ্খাই এখন সত্য।

Print Friendly, PDF & Email