CC News

আকাশে ওড়া তিন বছরের প্রিয়ন্ময়ী

 
 

সিসি ডেস্ক, ১৩ মার্চ: তিন বছরের ছোট্ট প্রিয়ন্ময়ীর খুব শখ ছিলো আকাশে ওড়ার। কাছের মানুষদের সেকথা বলতো। সেই শখ পূরণও হলো। কিন্তু সেই আকাশে ওড়ানোর অভিজ্ঞতা কোনোদিনই আর শেয়ার করতে পারবে না অবুঝ শিশুটি।

সোমবার নেপালে বিধ্বস্ত বিমানের যাত্রী ছিলো প্রিয়ন্ময়ী। এফএইচ প্রিয়ক ও তার তিন বছরের মেয়ে প্রিয়ন্ময়ী মারা গেছে। গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি প্রিয়ন্ময়ীর মা এ্যানি প্রিয়ক।

বিমানে ওঠার আগে প্রিয়ক-এ্যানি দম্পতির সঙ্গে মেহেদি হাসান অমিও-সোনামনি প্রিয়তমা দম্পতিকে টার্মিনালে তোলা দুটি ছবিতে দেখা যায়। একটি ছবিতে প্রিয়ক ও এ্যানি দম্পতির সঙ্গে তাদের মেয়ে প্রিয়ন্ময়ী এবং অমিও’র স্ত্রী সোনামনিকে দেখা যায়। অপর ছবিতে অমিও-সোনামনি দম্পতির সঙ্গে প্রিয়কের স্ত্রী এ্যানি এবং প্রিয়ন্ময়ীকে দেখা যায়।

প্রিয়কের ভাগনে সালাহউদ্দিন জানান, প্রিয়ক এবং প্রিয়কের মেয়ে প্রিয়ন্ময়ী মারা গেছেন। বাকি তিনজন বেঁচে আছেন। ফ্লাইটের দুই শিশুই মারা গেছে। তাদের লাশ পাওয়া গেছে।

সালাহউদ্দিন বলেন, প্রিয়ন্ময়ী খুব চটপটে ছিল। খুব কথা বলত। গতকালও খুব খুশি ছিল। আমাকে বলেছে- ভাইয়া, আমি আকাশে উড়ব, বিমানে চড়ব।

এদিকে সোনামনি প্রিয়তমার বড় বোন সাইয়েদা মুক্ত আমির বলেন, আমার বোন এবং তার স্বামী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের একটি বিমান বিধ্বস্ত হয়। এতে অন্তত ৫০ জন নিহত হয়েছেন।

Print Friendly, PDF & Email